Inqilab Logo

ঢাকা সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬ আশ্বিন ১৪২৭, ০৩ সফর ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

সরকার ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করে মাদরাসা শিক্ষাকে যুগোপযোগী করেছে-প্রফেসর আব্দুল মান্নান

যশোরে আরবি ভাষা ও ইসলামি জ্ঞান প্রতিযোগিতা

বিশেষ সংবাদদাতা, যশোর ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২২ অক্টোবর, ২০১৭, ১২:০০ এএম

ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোগে আরবি ভাষা ও ইসলামি জ্ঞান প্রতিযোগিতার অনুষ্ঠানকে ঘিরে মাদরাসা শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মিলন মেলা বসে যশোরে। দিনভর ব্যতিক্রম অনুষ্ঠানটি ছিল জমজমাট। অনুষ্ঠানের বক্তারা ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয় জমিয়াতুল মোদার্রেছীন সভাপতি দৈনিক ইনকিলাব সম্পাদক এ এম এম বাহাউদ্দীনের অবদান বলে উল্লেখ করেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর আব্দুল মান্নান। তিনি বলেছেন, সরকার ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করে মাদরাসা শিক্ষাকে যুগপোযোগী করেছে। যেটি করতে ৪৫ বছর সময় লেগেছে। এর আগের সরকারগুলো মাদরাসা শিক্ষার প্রতি গুরুত্ব দেয়নি বলে এত সময় পার করতে হয়েছে। তিনি বলেন, শিক্ষা ব্যবস্থায় বাংলাদেশ এখন বিশ্বে রোলমডেল। বর্তমান সরকারের আন্তরিক প্রচেষ্টায় এটি সম্ভব হয়েছে। যার স্বীকৃতি ইউনেসকো ইতোমধ্যে দিয়েছে।
ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক যশোর জিলা স্কুল অডিটোরিয়ামে আয়োজিত ‘আরবি ভাষা ও ইসলামি জ্ঞান’ বিষয়ক জাতীয় প্রতিযোগিতায় খুলনা বিভাগের বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তিনি আরো বলেন, বর্তমান সময়ে কিছু বিপথগামী লোকের কারণে মুসলিমদের সন্ত্রাসী আখ্যা দেয়া হচ্ছে। অথচ পৃথিবীতে বড় বড় সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের সাথে মুসলমানদের কোনো যোগসূত্র খুঁজে পাওয়া যায় না। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যন প্রফেসর এ.কে.এম ছায়েফ উল্যা বলেন, মাদরাসা শিক্ষার মানোন্নয়নে বেশি বেশি প্রতিযোগিতার আয়োজন করা দরকার। তাহলে মাদরাসা শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন ক্ষেত্রে টিকতে পারবে।
আরবি ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আহসান উল্লাহর সভাপতিত্বে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠানের পরিচালক, যশোর আমিনিয়া কামিল মাদরাসার উপাধ্যক্ষ মাওলানা মুহাম্মদ নূরুল ইসলাম। খুলনা বিভাগের প্রতিযোগিতায় ২৩ জন প্রতিযোগীর মধ্যে আট জন জাতীয় পর্যায়ে সুযোগ পেয়েছে। এরা হচ্ছে, সাতক্ষীরা আলিয়া কামিল মাদরাসার মুস্তাফিজুর রহমান, যশোরের ঝিকরগাছা দারুল উলুম মাদরাসার বেলাল হুসাইন, যশোর আমিনিয়া কামিল মাদরাসার মাসুদুর রহমান, মাগুরা সিদ্দিকীয়া কামিল মাদরাসার আল-ক্বামা, সাতক্ষীরার হযরত আবু বকর সিদ্দিক (রা.) কামিল মাদরাসার মুহাম্মদ বিন হাবিব, ঝিনাইদহ কামিল মাদরাসার মোহাম্মদ ফয়জুল্লাহ, যশোরের পুরাতন কসবা দারুল উলুম মাদরাসার মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ ও বাগেরহাটের আমতলী ইসলামিয়া কামিল মাদরাসার আসলাম হুসাইন। উল্লেখ্য, আগামী ২৭ অক্টোবর ঢাকায় জাতীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে।



 

Show all comments
  • md showaib ২২ অক্টোবর, ২০১৭, ৯:৫৭ পিএম says : 0
    ইসলামি আরবী বিশ্ববিদ্যালয় নামটি সাম্প্রদায়িক মনে হচ্ছে । নামটি যদি মুসলিম বা ইসলামি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় হতো কতই না মজা লাগতো । সবাইকে খুশি করতে হলে মনে হয় এমনটি করতে হয় । হয়তো এভাবে ইসলামি বাংলা / ইংরেজি বিশ্ববিদ্যালয় ও হবে । তাকিয়ে থাকলাম ।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন