Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫, ১৩ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌
শিরোনাম

চাকরিবান্ধব করতে উত্তরপ্রদেশের মাদরাসায় সরকারি সিলেবাস

আবশ্যিক হবে ইংরেজি, বিজ্ঞান

ইনকিলাব ডেস্ক: | প্রকাশের সময় : ৩১ অক্টোবর, ২০১৭, ১২:০০ এএম

মাদরাসা শিক্ষা ব্যবস্থাকে চাঙ্গা করার প্রক্রিয়া শুরু করেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশ সরকার। রাজ্যের ইসলামি শিক্ষাকেন্দ্রগুলির সিলেবাসে এনসিইআরটি-র বইপত্র পড়ানোর তোড়জোড় করছে উত্তরপ্রদেশ মাদরাসা বোর্ড। কাজের বাজারের চাহিদার সঙ্গে তাল রেখে সিলেবাসে অদলবদল করা হচ্ছে। সেভাবেই তৈরি করা হয়েছে বইপত্র। মাদরাসার শিক্ষার্থীদের চাকরির বাজারে লড়াইয়ে নামার যোগ্য করে তোলার জন্যই এই উদ্যোগ। মাদরাসাগুলোতে ইংরেজি, বিজ্ঞান পড়া বাধ্যতামূলক করা হবে।
উত্তরপ্রদেশ মাদরাসা শিক্ষা পরিষদের রেজিস্ট্রার রাহুল গুপ্তা বলেছেন, আমরা সিলেবাসের একটি নির্দিষ্ট মান বেঁধে দিতে চাইছি, বিশেষত বিজ্ঞান, অঙ্ক, ইংরেজির মতো বিষয়ে। এসব বিষয়ের ওপর এনসিইআরটি-র বই পড়ানোর কথা ভাবা হচ্ছে।
এখনও পর্যন্ত মাদরাসা থেকে পড়াশোনা করে বেরিয়ে আলিম বা মৌলবী হতে পারে শিক্ষার্থীরা। তবে এই পেশায় বেতন কম। অধিকাংশ মাদরাসায় ধর্মীয় শিক্ষা দেওয়া হয়ে থাকে, যদিও কয়েকটি বড় মাদরাসায় গত কয়েক বছরে আধুনিক বিষয়গুলি পড়ানো চালু হয়েছে।
শিক্ষা বিভাগের ডিরেক্টর জানান, প্রস্তাবটি এখনও ভাবনাচিন্তার স্তরে রয়েছে। অফিসাররা কী করে তা কার্যকর করা হবে, তা খতিয়ে দেখছেন। বোর্ড ধর্মীয় শিক্ষার ওপর কোনও হস্তক্ষেপ করবে না, মাদরাসায় সেটা স্বাভাবিক ব্যাপার। শুধু আনুষ্ঠানিক দিকটা বদলানো হবে।
উত্তরপ্রদেশে মাদরাসার সংখ্যা ১৬ হাজারের বেশি। ৫৬০টি সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত, সাড়ে চার হাজার মাদরাসা আংশিক সরকারি সাহায্য পায়। সিলেবাসে বদল হবে সব মাদরাসাতেই।
ঈদগাহ ইমাম রশিদ ফিরাঙ্গি মাহলি, যিনি লাক্ষেèৗতে সবচেয়ে পুরানো মাদরাসাগুলির একটি চালান, এনসিইআরটি-র বই পড়ানোর উদ্যোগে আপত্তির কিছু দেখছেন না। যদিও পরিকল্পনা কার্যকর করার আগে মাদরাসার কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করা হলে সরকারি উদ্যোগকে প্রশংসনীয় বলা যেত, জানিয়েছেন তিনি। তার বক্তব্য, আধুনিক শিক্ষার বিরোধী নই আমরা। বস্তুত অনেক বেসরকারি মাদরাসাতেই এইসব বিষয় পড়ানো হচ্ছে।
স¤প্রতি মাদরাসাগুলোকে তাদের ক্লাসরুমের ছবি বা সেখানকার পুরো এলাকার ছবি আপলোড করতে বলা হয় বোর্ডের ওয়েবসাইটে। কতজন শিক্ষক পড়ান, তাদের আধার নম্বর, ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের বিস্তারিত তথ্যও পেশ করতে বলা হয়। বলা হয়, মাদরাসাগুলোর কাজকর্মে স্বচ্ছতা আনা, গুণগত মান বাড়াতেই এই পদক্ষেপ।
গত আগস্টে উত্তরপ্রদেশ সরকার মাদরাসাগুলিতে স্বাধীনতা দিবস পালন বাধ্যতামূলক বলে জানিয়ে নির্দেশ পাঠায়। এতে প্রবল অসন্তোষ তৈরি হয়। বলা হয়, এহেন নির্দেশে মাদরাসাগুলোর পরিচালকবর্গ ও তাদের শিক্ষার্থীদের দেশপ্রেম নিয়ে সংশয় ফুটে উঠেছে। সূত্র : এবিপি আনন্দ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ