Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০৭ কার্তিক ১৪২৬, ২৩ সফর ১৪৪১ হিজরী

ছয়বার সময় নিয়েও প্রতিবেদন দিতে পারেনি পিবিআই

রফিকুল ইসলাম সেলিম | প্রকাশের সময় : ৭ নভেম্বর, ২০১৭, ১২:০০ এএম

চট্টগ্রামে মির্জা ফখরুলের উপর হামলা
চট্টগ্রামের রাঙ্গুনীয়ায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের গাড়ি বহরে হামলার মামলা তদন্তে গতি নেই। আদালতের কাছ থেকে ৬ দফা সময় নিয়েও তদন্ত প্রতিবেদন দিতে পারেনি তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন-পিবিআই। এই সন্ত্রাসী হামলার প্রায় চার মাস পরেও মামলার আসামী হামলাকারীদের কাউকে গ্রেফতার করেনি পুলিশ। আলোচিত এই হামলার ঘটনার সঠিক তদন্ত হবে কি না-তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন মামলার বাদি।
তিনি বলেন, একজন জাতীয় নেতার উপর সন্ত্রাসী হামলার এই ঘটনার সাথে জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিত করতে সরকারের কোন আগ্রহ দেখা যাচ্ছে না। পাহাড় ধসে বিধ্বস্ত রাঙামাটিতে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করতে যাওয়ার সময় গত ১৮ জুন রাঙ্গুনীয়া উপজেলার ইছাখালী গোচরা বাজারে বিএনপির মহাসচিবের গাড়ি বহরে হামলা করে স্থানীয় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কর্মীরা।
এ হামলায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীসহ কেন্দ্রীয় ৬ নেতা আহত হন। ভাঙচুর করা হয় মির্জা ফখরুলকে বহনকারী গাড়িসহ তিনটি গাড়ি। রক্তাক্ত জখম হন মির্জা ফখরুল ও আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। হামলার পর পর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ সিনিয়র নেতাদের অনেকে এই হামলার নিন্দা জানান এবং হামলাকারীদের গ্রেফতারের নির্দেশ দেন। পুলিশের মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হকও হামলাকারীদের গ্রেফতারের স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দিয়েছিলেন। তবে এসব নির্দেশনার বাস্তব কোন প্রতিফলন দেখা যায়নি বলে জানান মামলার বাদি জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এনামুল হক।
এ হামলার ঘটনায় গত ২১জুন তিনি বাদি হয়ে আদালতে দ্রুত বিচার আইনে মামলা দায়ের করেন। মামলায় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের ২৬ জনের নাম উল্লেখ করে আরও ২৫ জনকে অজ্ঞাতনামা হিসাবে আসামী করা হয়। আদালত পিবিআইকে মামলাটি তদন্ত করে ১৭ জুলাইয়ের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করার নির্দেশ দিয়েছিলেন। বাদি জানান এ পর্যন্ত আদালত ছয়বার সময় দেওয়ার পরও পিবিআই তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে পারেনি। প্রতি ধার্য তারিখে তারা শুধু সময়ের আবেদন করছেন কিন্তু তদন্তের কোন অগ্রগতি হয়েছে কিনা তা জানাতে পারছেন না। আগামী ১৩ নভেম্বর মামলার প্রতিবেদন দাখিলের পরবর্তি দিন ধার্য আছে বলে জানান বাদী অ্যাডভোকেট এনামুল হক।
আলোচিত এ মামলাটি তদন্ত করছেন পিবিআই চট্টগ্রাম জেলার পরিদর্শক শেখ মোঃ এতেশামুল ইসলাম। তিনি গতকাল সোমবার ইনকিলাবকে বলেন তদন্ত এখনও শেষ হয়নি, আমরা আদালতের কাছে আরও সময় চাইব। মামলার তদন্ত চলছে জানিয়ে তিনি বলেন, ইতোমধ্যে ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী হিসাবে বেশ কয়েকজনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়েছে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ওই সময় আশপাশে যারা ছিলেন তাদেরও বক্তব্য রেকর্ড করা হয়েছে। হামলারকারীদের সম্পর্কেও ধারণা পাওয়া গেছে। তিনি আশা করেন তদন্ত শেষে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করা যাবে। গত শনিবার ওই হামলার ঘটনায় আহত বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর বক্তব্য রের্কড করেন মামলার আইও। একই দিন অপর প্রত্যক্ষদর্শী বিএনপি নেতা এম এ আজিজের জবানবন্দিও গ্রহণ করা হয়। হামলার ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করতে বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রকাশিত ভিডিও ফুটেজ ও ছবি সংগ্রহ করেছে পিবিআই।
জানা যায় হামলার ঘটনার ১৫ দিন পরে মামলার তদন্তকারী সংস্থা পিবিআই’র একটি টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। আশপাশের লোকজন ঘটনার বর্ণনা দিলেও হামলার সাথে জড়িতদের নাম বলতে সাহস পায়নি। প্রকাশ্যে দিনের আলোতে হামলা হয়েছে। হামলাকারীরা মিছিল নিয়ে গাড়ি বহরে হামলা করে নেতাদের মারধর ও তাদের গাড়ি ভাঙচুর করে। সেখানে রাঙ্গুনীয়া থানার অনেক পুলিশ সদস্যও তখন উপস্থিত ছিলেন। জানা গেছে মামলায় আসামী হিসাবে যাদের নাম দেওয়া হয়েছে তাদের প্রায় সবাই হামলায় জড়িত। তবে রাজনৈতিক চাপের কারণে মামলার তদন্তে গতি আসছেনা বলে জানান মামলা তদন্ত তদারকির দায়িত্বপ্রাপ্ত এক কর্মকর্তা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কর্মকর্তা বলেন, উপরের সবুজ সংকেত না পাওয়ায় মামলা তদন্তেও গতি আসছে না।
এদিকে মামলার তদন্তে কোন অগ্রগতি না হওয়ায় অসন্তোষ প্রকাশ করেন মামলার বাদী অ্যাডভোকেট এনামুল হক। গতকাল তিনি ইনকিলাবকে বলেন, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুলের মতো একজন পরিচ্ছন্ন রাজনৈতিক নেতার উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা তদন্তে সরকারের কোন সদিচ্ছা দেখা যাচ্ছে না। সরকার আন্তরিক হলে হামলাকারীরা ধরা পড়ত এবং মামলা তদন্তেও গতি আসত। আইন সবার জন্য সমান বলা হলেও এক্ষেত্রে তার প্রমাণ মিলছে না। তিনি বলেন হামলা পর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকসহ একাধিক মন্ত্রী ঘটনার নিন্দা করে হামলাকারীদের সাজা নিশ্চিত করার যে আশ্বাস দিয়েছিলেন তার কোন প্রতিফলন আমরা দেখছি না। হামলাকারীরা চিহ্নিত উল্লেখ করে তিনি বলেন, তারা এলাকায় ঘুরছে, অথচ কাউকে গ্রেফতার করা হচ্ছে না।
মির্জা ফখরুলের উপর হামলার ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর বলেন, ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কর্মীরা প্রকাশ্যে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ সিনিয়র নেতাদের উপর হামলা করেছে। অথচ তাদের কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি। হামলাকারীদের ছবি বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রচার হয়েছে। হামলার পর তারা নিজেরাও হামলার ছবি নিজেদের ফেইসবুকে পোস্ট দিয়েছে। অথচ কাউকে পুলিশ ধরছে না। তিনি বলেন হামলাকারীদের অবশ্যই সাজা পেতে হবে কারণ অপরাধ কখনো তামাদি হয়না। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে তিনি নিজেও একজন সাক্ষী উল্লেখ করে বলেন, এখনও আমার সাক্ষ্য নেওয়া হয়নি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ