Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ০৫ ভাদ্র ১৪২৬, ১৮ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

মুমিনুলের ব্যাটে রাজশাহীর প্রথম

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১২ নভেম্বর, ২০১৭, ১২:০০ এএম

চন্ডিকা হাথুরুসিংহের কাছ থেকে তিনি পেয়েছিলেন ‘টেস্ট স্পেশালিস্ট’ খেতাব। কিন্তু পকেট ডিনামাইট খ্যাত মুমিনুল হক কি শুধু সাদা পোষাকেই সিমাবদ্ধ থাকতে চেয়েছেন? ঘরোয়া একদিনের ক্রিকেট এমনকি বিপিএল আসরে এর জবাব বার বার দিয়েছেন তিনি। জবাব দিলেন আবারো। গতকাল তার হার না মানা ৬৩ রানের ইনিংসের উপর ভর করে রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে ৮ উইকেটে জিতেছে রাজশাহী কিংস। আসরে যা তাদের প্রথম জয়।
মুমিনুলের আগে রাজশাহীর বোলাররা অবশ্য কাজের কাজটি করে রেখেছিল। মুমিনুলদের সামনে লক্ষ্য ছিল মাত্র ১৩৬ রানের। মুমিনুল-সিমন্স উদ্বোধনী জুটিই তুলে ফেলে ১২২ রান। ৫০ বলে ৫৩ রান করে রান আউটের ভাগ্যে কাটা পড়েন সিমন্স। ৫ রানের ব্যবধানে থিসারা পেরেরার বলে ক্লিন বোল্ড হয়ে ফেরেন ম্যালকম ওয়ালার। তবে শেষ পর্যন্ত ক্রিজে মুমিনুল ছিলেন অবিচল। টি-টোয়েন্টিতেও যে মনমুগ্ধকর ক্ল্যাসিক শটে দর্শক মাতানো যায় সেটা তিনি দেখালেন আরো একবার। তার ৪৪ বলের ইনিংসটিতে ছিল ৪টি বাউন্ডারি ও ৩টি দর্শনীয় ছক্কার মার।
নিজে ম্যাচসেরা হলেও জয়ের পুরো কৃতিত্ব বোলারদের দিলেন মুমিনুল, ‘প্রথম ইনিংসটাই ছিল টার্নিং পয়েন্ট। অবশ্য দ্বিতীয় ইনিংসেও আমরা দারুণ করেছি। তবে প্রথম ইনিংসে প্রতিপক্ষকে ১৩৫ রানে বেধে ফেলায় বোলারদের ধন্যবাদ প্রাপ্য।’ নিজের অসাধারণ ইনিংস সম্পর্কে বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান বলেন, ‘ আমি শুধুমাত্র ক্রিজে নজর রেখে খেলতে চেয়েছি এবং বাজে বলগুলোতে চড়াও হয়েছি।’
এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নামা রংপুরকে রানের জন্য রীতিমত যুদ্ধ করতে হয়েছে ২২ গজে। শুরু থেকেই মাশরাফির দলকে চেপে ধরে মুশফিকুর রহিমের দল। ঠিকই পড়ছেন, রংপুরকে এদিন নেতৃত্ব দেন মুশফিক। ড্যারেন স্যামি একাদশে ছিলেন না। প্রথম ওভারে মেহেদী হাসান মিরাজের হাতে বল তুলে দেন মুশফিক। তৃতীয় বলে ভয়ঙ্কর জনসন চার্লকে লেগ সাইডে ফ্রাঙ্কলিনের ক্যাচে পরিণত করে এর প্রতিদান দেন তরুণ স্পিনার। ২৯ রানের জুটিতে সেই ধাক্কা সামাল না দিতেই চতুর্থ ওভারে ফরহাদ রেজার জোড়া আঘাত। রবি বোপারা এবং শাহরিয়ার নাফিসের ৫১ রানের জুটিতে বাকি সময়ে উইকেট রক্ষা হলেও রানের গতি ছিল বলতে গেলে স্থির। এজন্য মোহাম্মাদ সামি-মিরাজদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংকে ধন্যবাদ দিতেই হয়। ৫ উইকেট হাতে থাকলেও তাই নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৩৫ রানেই আটকে যায় রংপুরের ইনিংস। ৩১ বলে ২৩ রান আসে নাফিসের ব্যাট থেকে। বোপারা অপরাজিত থকেন ৫১ বলে ৫৪ রান করে। ৪ ওভারে মাত্র ১৯ রান করে দেন সামি ও মিরাজ। ফরহাদ রেজা নেন ২৮ রানে ২ উইকেট।
তৃতীয় ম্যাচে এসে জয়ের দেখা পেলো রাজশাহী। অপর পক্ষে প্রথম ম্যাচে জয়ের পর টানা দুই ম্যাচ হারল রংপুর।
রংপুর রাইডার্স : ২০ ওভারে ১৩৪/৫ (চার্লস ২, লিথ ৪, মিঠুন ১৮, বোপারা ৫৪*, শাহরিয়ার ২৩, থিসারা ৪, জিয়া ১১*; মিরাজ ১/১৯, সামি ০/১৯, রেজা ২/২৮, উইলিয়ামস ১/৩৪, ফ্র্যাঙ্কলিন ১/১৪, নিহাদ ০/৯)।
রাজশাহী কিংস : ১৬.৪ ওভারে ১৩৮/২ (সিমন্স ৫৩, মুমিনুল ৬৩*, ওয়ালার ৪, রনি ১০*; মাশরাফি ০/২৭, মালিঙ্গা ০/৩০, রাজ্জাক ০/৩৪, নাজমুল ০/১০, বোপারা ০/১৭, থি সারা ১/১২, জিয়া ০/৭)।
ফল : রাজশাহী কিংস ৮ উইকেটে জয়ী
ম্যাচ সেরা : মুমিনুল হক।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মুমিনুল

২৩ নভেম্বর, ২০১৮
২২ নভেম্বর, ২০১৮
২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮

আরও
আরও পড়ুন