Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৬ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৪ জামাদিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

প্রতিরক্ষা মন্ত্রীদের সম্মেলনে তারিক আহমেদের যোগদান

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৯ নভেম্বর, ২০১৭, ১২:০০ এএম

প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা বিষয়ক উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব.) তারিক আহমেদ সিদ্দিকের নেতৃত্বে ৬সদস্যের প্রতিনিধি দল ১৪ ও ১৫ নভেম্বর কানাডার ভ্যাঙ্কুভারে অনুষ্ঠিত ইউনাইটেড ন্যাশন্স পিসকিপিং ডিফেন্স মিনিস্টারিয়াল (ইউএনপিকেডিএম) কনফারেন্সে যোগদান করেন। প্রতিরক্ষা মন্ত্রীদের সম্মেলন ইউএনপিকেডিএম, যেখানে জাতিসংঘের সদস্য রাষ্ট্রসমূহের অবদান, নিরাপত্তা বিষয়ে সুনির্দিষ্ট প্রতিশ্রুতি এবং বিশ্বব্যাপী জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের বর্তমান ও ভবিষ্যত নিয়ে পর্যালোচনা করা হয়। আইএসপিআরের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, এ বছর পাঁচটি আন্তর্জাতিক সংস্থাসহ ৭৭টি দেশ ভ্যাঙ্কুভারে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রমকে নতুন উদ্ভাবনীর মাধ্যমে কার্যকরী ব্যবহার নিশ্চিত করবে। বাংলাদেশ উক্ত সম্মেলনের ১০টি আয়োজক দেশের মধ্যে একটি এবং ভ্যাঙ্কুভারে অনুষ্ঠিত এ সম্মেলনের পূর্বে গত অক্টোবরে ঢাকায় এর প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ সম্মেলনে বলা হয় কনফারেন্সকালীন বাংলাদেশ, যুক্তরাজ্যে এবং কানাডার উদ্যোগের ওপর একটি আয়োজনের উদ্বোধন করা হয়। আয়োজনে ইউনাইটেড সিকিউরিটি কাউন্সিল রেজুলেশান ১৩২৫ যথাযথ বাস্তবায়নের জন্য করা হয়। যা জাতীয় সশস্ত্র বাহিনী এবং আন্তর্জাতিক বাহিনী মোতায়েনের ক্ষেত্রে লিঙ্গ সমতাকরণের বিষয়টিকে গুরুত্বারোপ করে। সম্মেলনের পাশাপাশি নিরাপত্তা বিষয়ক উপদেষ্টা যুক্তরাজ্যের ডিফেন্স সেক্রেটারি আর্ল হাউই পিসি, কানাডার ন্যাশনাল ডিফেন্সের উপ-মন্ত্রী জডি থমাস, জাপানের স্টেট মিনিস্টার ফর ডিফেন্স তোমোহিরো ইয়ামামতো জাতিসংঘের ফিল্ড সাপোর্ট ডিপার্টমেন্টের আন্ডার সেক্রেটারি অতুল খের এবং জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রম ডিপার্টমেন্টের আন্ডার সেক্রেটারি জিয়ান পাইরি ল্যাকরসি দ্বি-পাক্ষিক আলোচনায় অংশ নেন। আলোচনায় জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বর্তমান ও ভবিষ্যত প্রয়োজন, লিঙ্গ সমতাকরণ, মিয়ানমারের নাগরিকদের জোড়পূর্বক উচ্ছেদকরন, বাংলাদেশের সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং অন্যান্য পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আলোচনা করা হয়। জাতিসংঘের ফিল্ড সাপোর্ট ডিপার্টমেন্টের আন্ডার সেক্রেটারি অতুল খের জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা ও শান্তিপ্রতিষ্ঠা কার্যক্রমে বাংলাদেশের ভূমিকার প্রশংসা করেন। যুক্তরাজ্যে ও জাপানের প্রতিরক্ষামন্ত্রীদ্বয় মায়ানমার কর্র্তৃক জোড়পূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশ কর্তৃক আশ্রয় ও মানবিক সাহায্য দেয়ারও প্রসংসা করেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন