Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭, ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী

শত্রু তালিকায় কামাল ও এরদোগানের নাম তুরস্কের কাছে ন্যাটো প্রধানের ক্ষমাপ্রার্থনা

ডি ডব্লিউ : | প্রকাশের সময় : ১৯ নভেম্বর, ২০১৭, ১২:০০ এএম

ন্যাটোর এক সামরিক মহড়ায় শত্রু তালিকায় তুরস্কের জাতির পিতা ও প্রেসিডেন্টের নাম অন্তর্ভুক্ত করার ঘটনায় ন্যাটো প্রধান তুরস্কের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন। এ ঘটনার প্রেক্ষিতে তুরস্ক সামরিক মহড়া থেকে তার সৈন্যদের প্রত্যাহার করেছে।
নরওয়ের দক্ষিণাঞ্চলে স্ট্যাভানজারে ন্যাটোর এক সামরিক কম্পিউটার প্রশিক্ষণ মহড়ায় এ ঘটনা ঘটে। তাতে ন্যাটোর শত্রুদের যে তালিকা করা হয় তাতে তুর্কিদের প্রিয় নেতা ও আধুনিক তুরস্কের প্রতিষ্ঠাতা মোস্তফা কামাল আতাতুর্ক ও তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগানকেও অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এরদোগান শুক্রবার তার ক্ষমতাসীন দল জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টির (একেপি) সদস্যদের ন্যাটোর শত্রু তালিকায় মোস্তফা কামাল পাশা ও তার নাম রাখার কথা জানান। তিনি বলেন, এর প্রতিবাদে তিনি মহড়ায় অংশগ্রহণকারী ৪০ জন তুর্কি সৈন্যকে প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নেন। তিনি বলেন, তাদের নাম যদি শত্রু তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়, তবুও। তিনি ন্যাটো সম্পর্কে বলেন, তাদের সাথে কোনো চুক্তি নয়, কোনো জোট নয়।
স্ট্যাভানজারের ট্রাইডেন্ট জ্যাভেলিন মহড়া নামে আয়োজিত এ সামরিক মহড়া হচ্ছে ভ‚মিতে কোনো সৈন্য ছাড়া কম্পিউটার সাহায্যকৃত মহড়া যার লক্ষ্য বৃহৎ সামরিক অভিযানের কমান্ড কাঠামোর উন্নয়ন। মাল্টিন্যাশনাল জয়েন্ট ওয়ারফেয়ার সেন্টার হচ্ছে ন্যাটোর একটি বহুজাতিক ইউনিট। নরওয়ের রাজধানী অসলো থেকে ১৮৬ মাইল দক্ষিণপশ্চিমে এটি অবস্থিত। সেন্টারের প্রধান পোলিশ মেজর জেনারেল আন্দ্রেজ রিউদোইচ স¤প্রতি এ মহড়ার আয়োজন করেন।
ন্যাটোর মহাসচিব নরওয়ের সাবেক প্রধানমন্ত্রী জেনস স্টলটেনবার্গ শুক্রবার বলেন, সংঘটিত অপরাধের জন্য আমি ক্ষমা প্রার্থনা করছি। এ ঘটনার জন্য একজন ব্যক্তি দায়ী, এটা ন্যাটোর দৃষ্টিভঙ্গিকে প্রতিফলিত করে না। অপরাধী সন্দেহভাজনকে সেন্টার তৎক্ষণাৎ মহড়া থেকে সরিয়ে দিয়েছে। তিনি বলেন, তুরস্ক আমাদের মূল্যবান মিত্র, জোটের নিরাপত্তায় তাদের গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা রয়েছে।
দি ইন্ডিপেন্ডেন্ট জানায়, স্টলটেনবার্গ এ ঘটনার জন্য নরওয়ের অনুমোদিত একজন বেসামরিক ঠিকাদারকে দায়ী করেছেন। তিনি বলেন, অপরাধীর শাস্তি দেয়া নরওয়ের দায়িত্ব। ন্যাটো এ ব্যাপারে নরওয়ে কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ রাখছে।
মার্চে নরওয়ে ৫ জন তুর্কি কর্মকর্তাকে রাজনৈতিক আশ্রয় দেয়ার পর অসলো ও আঙ্কারার মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। উক্ত তুর্কি কর্মকর্তাদের ২০১৬ সালের জুলাইতে তুরস্কে ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থানের পর দেশে ডেকে পাঠানো হয়। কিন্তু তাদের গ্রেফতার করে নির্যাতন চালানো হবে আশঙ্কায় তারা দেশে ফিরতে অস্বীকার করেন ও রাজনৈতিক আশ্রয় চান।
তুরস্কের সেনাবাহিনী ন্যাটোর দ্বিতীয় বৃহত্তম। সিরিয়া, ইরাক ও ইরানের সাথে স্থল সীমান্ত থাকার কারণে ন্যাটো জোটের কাছে দেশটির ব্যাপক কৌশলগত গুরুত্ব রয়েছে। কিন্তু স¤প্রতি আঙ্কারা ন্যাটো ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাছ থেকে দূরে সরে যেতে শুরু করেছে যে কারণে তাদের মধ্যে সম্পর্কে তিক্ততা সৃষ্টি হয়েছে।

 


Show all comments
  • Mainul Islam ১৯ নভেম্বর, ২০১৭, ৩:১১ এএম says : 0
    Turkey should be leave NATTO.
    Total Reply(0) Reply
  • আবু রুফাইদাহ রফিক ১৯ নভেম্বর, ২০১৭, ৩:১২ এএম says : 0
    সাবাস বীর
    Total Reply(0) Reply
  • Mahmud Hasan ১৯ নভেম্বর, ২০১৭, ৩:১২ এএম says : 0
    সাবাস, বাঘের বাচ্চা এগিয়ে যাও।
    Total Reply(0) Reply
  • Sadid Imrul ১৯ নভেম্বর, ২০১৭, ৩:১৩ এএম says : 0
    aita kai bole dash pream
    Total Reply(0) Reply
  • Abul Hasnat Mukta ১৯ নভেম্বর, ২০১৭, ৩:১৩ এএম says : 0
    salute leader
    Total Reply(0) Reply
  • Shakib Mahmud ১৯ নভেম্বর, ২০১৭, ৩:২০ পিএম says : 0
    এটাকেই বলে নেতা
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর