Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭, ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী

সতর্কাবস্থায় শ্রীলঙ্কার সেনাবাহিনী

সা¤প্রদায়িক সংঘর্ষে সম্পৃক্ততার অভিযোগে গ্রেফতার ১৯

ইনকিলাব ডেস্ক: | প্রকাশের সময় : ২০ নভেম্বর, ২০১৭, ১২:০০ এএম

শ্রীলঙ্কার একটি উপকূলীয় শহরে সিংহলী ও মুসলমানদের মধ্যে সংঘর্ষে প্রায় ৯০টি বাড়িঘর ক্ষতিগ্রস্ত ও গাড়িতে অগ্নিসংযোগের পর গতকাল রোববার সৈন্যরা সেখানে টহল দেয়া শুরু করেছে। পুলিশ জানায়, সপ্তাহান্তে এই দাঙ্গার সঙ্গে সম্পৃক্ততার অভিযোগে এখন পর্যন্ত ১৯ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। কর্তৃপক্ষ আরো সন্দেহভাজন দাঙ্গাকারীদের সন্ধানে তল্লাশী চালিয়ে যাচ্ছে। রাজধানী কলম্বো থেকে প্রায় ১১০ কিলোমিটার (৬৮ মাইল) দক্ষিণে অবস্থিত গিন্টোটা শহরে গত বৃহস্পতিবার একটি সড়ক দুর্ঘটনাকে কেন্দ্র করে সংখ্যাগুরু সিংহলী ও সংখ্যালঘু মুসলমানদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। পরিস্থিতি সামাল দিতে স্থানীয় পুলিশের সঙ্গে সেনা ও নৌবাহিনীর সদস্যদের মোতায়েন করা হয়েছে। সপ্তাহান্তে উভয়পক্ষের মধ্যে দাঙ্গায় গুরুতর আহত অবস্থায় অন্তত পাঁচ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়াও এতে ৯০টির মতো বাড়িঘর ও স্থাপনা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। গত শনিবার সন্ধ্যায় ওই এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছিল। পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কায় প্রশাসন কাউফিউ জারি করে। তবে পরদিন ভোরে কারফিউ তুলে নেয়া হয়। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বাজিরা আবেইওয়ার্দেনা সাংবাদিকদের বলেন, আমরা এই ক্ষতি ও আহতদের ব্যাপারে বিস্তারিত প্রতিবেদন পাঠাতে বলেছি। এই ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তদের রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এবং যে কোন অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা এড়াতে পুলিশের পাশাপাশি সেনা ও নৌবাহিনীর সদস্যদের মোতায়েন করে আইনশৃঙ্খলা সদস্য সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। বাজিরা আরো বলেন, ওই এলাকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য ও পুলিশ মোতায়েন থাকবে। শ্রীলঙ্কার মুসলিম জনসংখ্যা শতকরা প্রায় ১০ ভাগ। ২ কোটি ১০ লাখ জনসংখ্যার দেশটিতে জনসংখ্যার দিক দিয়ে তামিলদের পরই মুসলিমদের স্থান। ২০১৪ সালের জুন মাসে শ্রীলঙ্কায় সংখ্যাগুরু বৌদ্ধদের সঙ্গে সংখ্যালঘু মুসলমানদের দাঙ্গায় চার জন প্রাণ হারায় ও বহু লোক আহত হয়। বৌদ্ধ চরমপন্থী একটি গ্রুপ ওই সহিংসতার সূত্রপাত ঘটায়। সা¤প্রদায়িতক দাঙ্গা ও সহিংসতা ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে দলটির নেতাদের বিচার চলছে। শুক্রবার রাতে গালেতে মুসলিম ও বৌদ্ধদের মধ্যে সংঘর্ষের পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ২ শতাধিক পুলিশ কর্মকর্তা এবং ১শ’ স্পেশাল টাস্ক ফোর্স সদস্য মোতায়েন করা হয়। গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, একটি সামান্য ঘটনাকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষের মধ্যে প্রথমে ঝগড়া এবং পরবর্তীতে তা সহিংস সংঘর্ষে রূপ নেয়। খবর এএফপি, রয়টার্স।

 


Show all comments
  • আলী আজম মিয়া ২০ নভেম্বর, ২০১৭, ৪:২১ পিএম says : 0
    মুসলমান আজ জায়গায়ই নিষ্পেষিত।আমাদের দোয়া করা ছাড়া আর করার কিইবা আছে?
    Total Reply(0) Reply
  • মোঃ আঃ ওয়াহাব ২০ নভেম্বর, ২০১৭, ১২:৪৯ পিএম says : 0
    আমি আশাকরি উভয় পক্ষগণ প্রশাসনের উপর আস্থা রেখে সমস্যার সমাধান করা । হিংসা,বিদ্বেষ,রাগ সবেই ধ্বংসের দিকে ঠেলে দেয়।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর