Inqilab Logo

বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১৫ আষাঢ় ১৪২৯, ২৮ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ)’র বাস্তব আদর্শের প্রতিফলন কাগতিয়া দরবার শরীফে

মুনিরীয়া যুব তবলীগের মাহফিলে অধ্যক্ষ ছৈয়্যদ মুহাম্মদ মুনির উল্লাহ

| প্রকাশের সময় : ২ ডিসেম্বর, ২০১৭, ১২:০০ এএম

প্রেস বিজ্ঞপ্তি : ‘প্রিয় নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামা যে আদর্শ নিয়ে পৃথিবীতে তাশরীফ এনেছেন সে আদর্শ বাস্তবায়িত হচ্ছে কাগতিয়া আলীয়া দরবার শরীফে। গারে হেরার ধ্যান, ফয়েজে কোরআন, তাওয়াজ্জুহ’র মাধ্যমে আত্মশুদ্ধি, নূরে বাতেন আদান-প্রদান, তাহাজ্জুদের অনুশীলন, সুন্নাতে নববী (সাঃ) পালন ও হুব্বে মোস্তফা (সাঃ) অন্তরে লালনের আধ্যাত্মিক ব্যবস্থাপনার প্রাণকেন্দ্র হয়ে উঠেছে এ দরবার।’ কাগতিয়া আলীয়া দরবার শরীফের মহান মোর্শেদ হযরতুলহাজ্ব আল্লামা প্রিন্সিপাল শায়খ ছৈয়্যদ মুহাম্মদ মুনির উল্ল­াহ্ আহমদী মাদ্দাজিল্লুহুল আলী পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) মাহফিলে এ কথা বলেন।
তিনি গতকাল জুমাবার রাউজান কাগতিয়া আলীয়া দরবার শরীফে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের সহ-সভাপতি প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আবুল মনছুরের সভাপতিত্বে ৬৪তম পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) শীর্ষক সেমিনার ও মিলাদ মাহফিলে উপস্থিত হাজার হাজার ধর্মপ্রাণ মুসলমানের উদ্দেশ্যে প্রধান অতিথির গুরুত্বপূর্ণ তকরির রাখছিলেন।
মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটি বাংলাদেশের উদ্যোগে আয়োজিত এ মাহফিলে প্রধান অতিথি আরও বলেন, বর্তমানের মত মুসলিম জাতির ক্রান্তিকালে কাগতিয়ার রাদ্বিয়াল্লাহু আন্হু যুব সমাজকে নবীজির আদর্শে আদর্শবান করে তোলার জন্য মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটি বাংলাদেশ গঠন করেন। যার ছায়াতলে এসে হাজার হাজার যুবক নবীজির নূরে বাতেনে নিজেদের ক্বলবকে আলোকিত করছে। যার ফলে গভীর রজনীতে উঠে যুবকরা তাহাজ্জুদ নামাজ পড়ে ‘আল্লাহু-আল্লাহু’, ‘লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু’ জিকিরে মাশগুল হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এ তরিক্বতে দীক্ষিত হাজার হাজার মুসলিম যুবক-যুবতি ইসলামের অনুশীলন বিশেষ করে পর্দা অবলম্বন করে দৈনন্দিন জীবন চালিয়ে যাচ্ছেন। তথ্য-প্রযুক্তির অপব্যবহারে মুসলিম যুবক-যুবতির কলুষিত অন্তরে তাওয়াজ্জুহ প্রদান করে তাজকিয়া করা এ দরবারের অন্যতম বৈশিষ্ট্য।
সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আবুল মনছুর বলেন, মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির উদ্যোগে আগামী ২৫ ডিসেম্বর সোমবার চট্টগ্রামের লালদীঘি ময়দানে অনুষ্ঠিতব্য কনফারেন্সে মুসলমান যুবকরা পাবে ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ)’র বাস্তব শিক্ষা, প্রিয় রাসূলের আদর্শে জীবন গঠনের প্রকৃত দিক-নির্দেশনা এবং তরিক্বতের মাধ্যমে হেদায়াতপ্রাপ্তির শ্রেষ্ঠ উপায়।
মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটি বাংলাদেশ এর উদ্যোগে গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে ছিল বাদে জোহর খতমে কোরআন, পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) শীর্ষক সেমিনার ও আলোচনা, বাদে আছর তরিক্বতের বিশেষ পদ্ধতিতে ফয়েজে কোরআনের মাধ্যমে নূরে কোরআন প্রদান, তাওয়াজ্জুহ্র মাধ্যমে রাসুল (সাঃ) এর বাতেনী নূর প্রদান, তাবাররুক বিতরণ এবং বাদে এশা মোর্শেদে আজম হুজুর ক্বেবলা মাদ্দাজিল্লুহুল আলীর তকরির, মিলাদ-কিয়াম ও আখেরী মুনাজাত।
মাহফিলে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মুহাদ্দিস আল্লামা মুহাম্মদ ইব্রাহিম হানফী, মুফতি কাজী আনোয়ারুল আলম ছিদ্দিকি, আল্ল­ামা মোহাম্মদ আশেকুর রহমান, আল্লামা সেকান্দর আলী ও মাওলানা মুহাম্মদ ফোরকান।
মিলাদ ও কিয়াম শেষে হুজুর ক্বেবলা দেশ, জাতি ও বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি, অসহায় নির্যাতিত মুসলমানদের হেফাজত এবং দরবারের প্রতিষ্ঠাতা রাদ্বিয়াল্লাহু আন্হুর ফুয়ুজাত কামনা করে বিশেষ মুনাজাত পরিচালনা করেন।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ)


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ