Inqilab Logo

সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯, ০৪ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

হুতি হামলায় ইয়েমেনের সাবেক প্রেসিডেন্ট আলী আবদুল্লাহ সালেহ নিহত

মিডল ইস্ট মনিটর | প্রকাশের সময় : ৪ ডিসেম্বর, ২০১৭, ৮:৫৩ পিএম

শিয়া হুতি বিদ্রোহীদের হামলায় ইয়েমেনের সাবেক প্রেসিডেন্ট আলী আবদুল্লাহ সালেহ নিহত হয়েছেন। হুতি বাহিনীর হামলায় তিনি নিহত হন। হুতি মিডিয়া তার নিহত হওয়ার খবর নিশ্চিত করেছে। সালেহর নেতৃত্বাধীন জেনারেল পিপলস কংগ্রেসও (জিপিসি) তার নিহত হওয়ার কথা স্বীকার করেছে।
হুতি মিডিয়ার খবরে বলা হয়, সালেহকে বহনকারী গাড়ির উপর হুতি যোদ্ধারা রকেট চালিত গ্রেনেড ছুঁড়লে তিনি নিহত হন।
মিডল ইস্ট মনিটরের সংবাদদাতা জানান, একটি লাশের ছবি দেখানো হয়েছে যার চেহারা সাবেক প্রেসিডেন্ট সালেহর মত। তার মাথায় একটি বিরাট ক্ষত দেখা গেছে।
গতকাল হুতিরা রাজধানী সানায় সালেহ অনুগত বাহিনীর সাথে লড়াইয়ে পূর্ণ বিজয় লাভের কথা জানায়।্ তারা বলে, রাজধানী থেকে সালেহ অনুগত যোদ্ধাদের নির্মূল করা হয়েছে।
বিশ্লেষকদের মতে, তিনি হুতিদের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করার প্রতিশোধ হিসেবে হুতিরা তাকে হত্যা করেছে।
সালেহ ৩৩ বছর ইয়েমেন শাসন করেন। গণ অভ্যুত্থানের প্রেক্ষিতে ২০১১ সালে তিনি ক্ষমতাচ্যুত হন। তা সত্তে¡ও তিনি ব্যাপক প্রভাবশালী ছিলেন। ২০১৫ সালে সউদী নেতৃত্বাধীন জোট ইয়েমেনে হুতিদের বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান শুরু করলে সালেহ হুতিদের সাথে জোট বাঁধেন ও সউদী জোটের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে লিপ্ত হন। কিন্তু সম্প্রতি বিরোধ দেখা দেয়ার কারণে গত বুধবার থেকে হুতিদের সাথে তার লড়াই শুরু হয়। শনিবার সালেহ সউদী জোটের সাথে আলোচনার ইচ্ছা প্রকাশ করেন। এ প্রেক্ষিতে শিয়া হুতি বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে রবিবার থেকে সাবেক প্রেসিডেন্ট আলী আবদুল্লাহ সালেহর সমর্থনে এগিয়ে আসে সউদী নেতৃত্বাধীন জোট।
খবরে বলা হয়, জোটের জঙ্গি বিমানগুলো রাজধানী সানায় গতকাল সোমবার দ্বিতীয় দিনের মত হুতি যোদ্ধাদের উপর বোমাবর্ষণ করে।
এর আগের খবরে বরা হয়, ইয়েমেনের প্রেসিডেন্ট হুতি যোদ্ধাদের সাথে সম্পর্ক ছিন্নকারী সালেহ অনুগত বাহিনীর যোদ্ধাদের সকলের প্রতি ক্ষমা ঘোষণা করবেন। ইয়েমেনের প্রধানমন্ত্রী আহমদ ওবায়েদ বিন দাঘর সোমবার বলেন, প্রেসিডেন্ট আবদরাব্বু মনসুর হাদি খুব শিগগিরই সাম্প্রতিক মাসগুলোতে হুতিদের সহায়তাকারী ও বর্তমানে তাদের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করার পর তাদের বিরুদ্ধে লড়াইরত সালেহ অনুগত বাহিনীর যোদ্ধাদের সকালে প্রতি ক্ষমা ঘোষণা করবেন।
প্রত্যক্ষদর্শীরা রাজধানী সানায় রবিবার ও সোমবার হুতি যোদ্ধা ও সালেহ বাহিনীর মধ্যে প্রচন্ড লড়াইয়ের কথা জানান। গতকাল সকালে সাবেক প্রেসিডেন্ট সালেহর বাড়ির কাছে আল সিয়াসি এলাকায় ভোরবেলায় লড়াই শুরু হয়। এ সময় সউদী জোটের জঙ্গি বিমানগুলো হুতি যোদ্ধাদের অবস্থানগুলোতে কয়েকবার বোমাবর্ষণ করে। শহরবাসীরা জানান, দু’পক্ষই ভারি স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র ব্যবহারসহ গোলা বিনিময় করছে। হুতিরা সালেহ ও তার পরিবারের শক্তঘাঁটি বলে পরিচিত সানার কেন্দ্রস্থলে রাজনৈতিক এলাকার দিকে অগ্রসর হচ্ছে। রাজধানীর বাইরে অবস্থিত সালেহর নিজ গ্রামে তার সুরক্ষিত প্রাসাদের দিকেও হুতিরা এগিয়ে যাচ্ছে।
যুদ্ধক্ষেত্র এলাকার একজন অধিবাসী বলেন, আমরা আতংকের মধ্যে বসবাস করছি। হুতিদের ট্যাংক ও কামানের গোলা আমাদের এলাকায় এসে পড়ছে। লড়াই এমন ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে যে আমরা যে কোনো মুহূর্তে মারা যেতে পারি। সাহায্যদাতা গ্রæপগুলো জানায়, রাস্তায় রাস্তায় লড়াই চলছে। লোকজন ঘরের মধ্যে আটকা পড়েছে। লড়াইয়ে কয়েক ডজন লোক নিহত হয়েছে। রাজধানী সানা পরিণত হয়েছে একটি ভুতুরে শহরে।
এদিকে জাতিসংঘ মহাসচিব অবিলম্বে ইয়েমেনে যুদ্ধবন্ধের আহবান জানিয়েছেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: হুতি


আরও
আরও পড়ুন