Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩ আশ্বিন ১৪২৬, ১৮ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

ঢাকা উত্তর সিটির মেয়র পদ শূন্য ঘোষণা

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৫ ডিসেম্বর, ২০১৭, ১২:০০ এএম

ভোটাররা সতর্ক হলে যোগ্য মানুষ মেয়র হবেন : স্থানীয় সরকার মন্ত্রী
ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র পদ শূন্য ঘোষণা করেছে সরকার। গতকাল সোমবার স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।
স্থানীয় সরকার মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, গতকাল ফাইলে সই করেছি, কালকের তারিখেই বোধহয় গেজেট হয়ে যাবে। ওই গেজেট প্রকাশের পর ৯০ দিনের মধ্যে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে উপনির্বাচন দিতে হবে নির্বাচন কমিশনকে। এরই মধ্যে সেই প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে ইসি। স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, উনার (মেয়র) মৃত্যুতে আমরা দুঃখিত, আমরা একজন যোগ্য ব্যক্তিকে হারালাম। উনার মৃত্যুর খবর অপ্রত্যাশিত, উনি খুব প্রাণবন্ত লোক ছিলেন। মন্ত্রী বলেন, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের স্বপ্ন বাস্তবায়ন বাধার মুখে পড়লে তা বাস্তবায়নে সরকার সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। তার কাজগুলো ব্যক্তিগত হলেও কর্মসূচিগুলো সিটি করপোরেশনের। আমরা আশা করি, সিটি করপোরেশন সেই কাজগুলো শেষ করবে। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুর কারণে ডিএনসিসির মেয়র পদটি শূন্য হয়। স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন অনুযায়ী পদ শূন্য হওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন হওয়ার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন ২০০৯-এর ১৬ ধারায় বলা হয়েছে, মেয়র বা কাউন্সিলের মেয়াদ শেষ হওয়ার ১৮০ দিনের আগে যদি কোনো পদ শূন্য হয়, তবে ৯০ দিনের মধ্যে সেখানে উপনির্বাচন হবে। উপনির্বাচনের বিজয়ী বাকি মেয়াদে মেয়র বা কাউন্সিলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।
গতকাল রোববার নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ আগারগাঁওয়ে কমিশন কার্যালয়ে সাংবাদিকের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, মেয়র পদ শূন্য ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশের ৯০ দিনের মধ্যে ডিএনসিসির নির্বাচন হবে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় গেজেট প্রকাশের পর কমিশন নির্বাচনী কাজ শুরু করবে। ২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল ডিএনসিসি নির্বাচন হয়। এতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আনিসুল হক বিজয়ী হন। এর মাত্র আড়াই বছরের মাথায় গত ৩০ নভেম্বর আনিসুল হক লন্ডনের একটি হাসপাতালে মারা যান। গত শনিবার বনানী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হন তিনি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন