Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৯ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

গ্রীস উপকূলে নৌকাডুবি ৮ শিশুসহ ২১ অভিবাসন প্রত্যাশীর মৃত্যু

প্রকাশের সময় : ২৩ জানুয়ারি, ২০১৬, ১২:০০ এএম

২০৩০ সালের মধ্যে দেশ ক্ষুধামুক্ত হবে : পরিকল্পনামন্ত্রী
অর্থনৈতিক রিপোর্টার : পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল বলেছেন, স্বাধীনতা পর খাদ্যের উৎপাদন বেড়েছে তিনগুণ। জনসংখ্যা বেড়েছে দুইগুণ। ২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে ক্ষুধামুক্ত করা হবে।
শুক্রবার দুপুরে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল মিলনায়তনে বাংলাদেশ কৃষি অর্থনীতিবিদ সমিতির ১৫তম জাতীয় সম্মেলন ও সেমিনার উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, দেশ এখনো পুরোপুরি ক্ষুধামুক্ত হয়নি। ২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে ক্ষুধামুক্ত করার লক্ষ্যে কাজ করছে বর্তমান সরকার। এ সময়ের মধ্যে দেশের প্রতিটি মানুষের জন্য তার পরিপূর্ণ খাদ্যচাহিদা নিশ্চিত করা হবে। এছাড়া ২০৫০ সালের মধ্যে দেশের সামগ্রিক অর্থনৈতিক মুক্তি নিশ্চিত করার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।
তিনি জানান, বিশ্বে প্রতি ৯ জনের একজন অভুক্ত অবস্থায় ঘুমাতে যায়। বাংলাদেশে প্রতিদিন ৫ হাজার ২৪৭ জন শিশু জন্ম নিচ্ছে। সেই হিসাবে প্রতি বছর ১৯ লাখ ২৫ হাজার লোক যুক্ত হচ্ছে। তাদের জন্য খাদ্যের ব্যবস্থা করতে হয়। তিনি বলেন, আমরাও তাদেরকে পুষ্টি ও মানসম্মত খাবার দিতে পারি না।
কৃষিকে অর্থনীতির প্রধান চালিকাশক্তি উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, খাদ্য নিরাপত্তার পাশাপাশি পুষ্টি নিরাপত্তার কারণে নানামুখি খাবার সরবরাহ করার চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হচ্ছে। তাই জনগণকে কৃষি সম্পৃক্ত প্রকল্প গড়ে তুলতে হবে। ৪০ বছর আগে এদেশে কৃষি উৎপাদন ছিল ১১ মিলিয়ন মেট্রিক টন। এখন মোট কৃষিজ উৎপাদন ৩৮ মিলিয়ন মেট্রিকটন।
মুস্তফা কামাল বলেন, স্বাধীনতা পর খাদ্যের উৎপাদন বেড়েছে তিনগুণ। জনসংখ্যা বেড়েছে দুইগুণ। ক্রম হ্রাসমান প্রান্তিক প্রতি আয়ের কার্যকারিতার কারণে ৬ষ্ঠ পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় যে প্রবৃদ্ধি ছিল, সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় প্রবৃদ্ধি অপেক্ষাকৃত কম হারে হবে এটাই স্বাভাবিক। তবে এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় জলবায়ু চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা ও কৃষিকে অটোমেশন করার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন তিনি।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সমিতির সভাপতি ও পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য প্রফেসর ড. শামসুল আলম। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অর্থনীতিবিদ ড. উত্তম দেব। বক্তব্য রাখেন সম্মেলন প্রস্তুত কমিটির আহ্বায়ক এএইচএম কায় খসরুল, মহাসচিব আহছানুজ্জামান লিন্টু, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর ড. এ এম সাত্তার মন্ডল প্রমুখ।




বিষয় আছে শিক্ষক নেই হিমশিম অবস্থা শিক্ষকদের!
মহসিন রাজু, বগুড়া থেকে : বিষয় আছে কিন্তু শিক্ষক নেই এভাবেই চলছে বগুড়ার এক হাজারসহ সারা দেশের হাজার হাজার বেসরকারি নিম্ন মাধ্যমিক, মাদ্রাসা ও উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়। শিক্ষা মন্ত্রণালয় তিনটি নতুন বিষয় সংযোজন করলেও ওই সব বিষয়ে শিক্ষক নিয়োগের কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেনি। ফলে পাঠদানে হিমশিম খেতে হচ্ছে শিক্ষকদের। অনভিজ্ঞ শিক্ষকদের দিয়ে কোনোভাবে চালিয়ে নেওয়া হচ্ছে ক্লাস। এই চিত্র শুধু বগুড়ার নয় সারা দেশের।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিগত ৩ বছর যাবৎ সরকার নিম্ন মাধ্যমিক, মাদ্রাসা ও মাধ্যমিক পর্যায়ে চারু ও কারু কলা, কর্ম জীবনমুখি শিক্ষা, শারীরিক শিক্ষা ও কেরিয়ার শিক্ষা নামে চারটি নতুন বিষয় পাঠ্যক্রমে সম্পৃক্ত করেছে। এসব বিষয়গুলো পাঠ্যক্রমে সংযোজন হওয়ার পর একজন শিক্ষককে প্রতিদিন বিরতিহীনভাবে ছুটির আগ পর্যন্ত ক্লাস নিতে হচ্ছে। শুধু তাই নয়, তারা এসব ক্লাস নিলেও বিষয়ভিত্তিক শিক্ষক না হওয়ায় সুচারুভাবে পাঠদান করতে পারছেন না। এছাড়াও একটানা ক্লাস করতে গিয়ে শিক্ষকরা ক্লাসে বেশি মনোযোগী হতে পারছেন না।
রুটিন করতে গিয়ে প্রধান শিক্ষকের সাথে সহকারী শিক্ষকদের বিরোধ পর্যন্ত দেখা গেছে। প্রতিদিন একটানা ৭টি বিষয়ে ক্লাস নেওয়ার পরও অতিরিক্ত বিষয় সংযোজন হওয়ায় অন্যান্য বিষয়গুলো সপ্তাহে ৩ দিন অথবা ৪ দিন করে নেওয়া হচ্ছে। বিপত্তি দেখা গেছে, চারু ও কারু কলা বিষয়ে। গ্রামাঞ্চলের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এসব ক্লাস অনেক সময় ধর্মীয় শিক্ষকদের দিয়ে নেওয়া হচ্ছে। অথচ তারা পাখি, ফল, ফুল পর্যন্ত আঁকতে পারে না। এ কারণে বিষয় চাপিয়ে দিলেও ছাত্র-ছাত্রিরা শুধু পরীক্ষা পাসের জন্য যেটুকু প্রয়োজন তার চেয়ে ওই বিষয়ে অভিজ্ঞ হতে পারছে না। অনেক সময় দেখা গেছে, নতুন অতিরিক্ত ওই চারটি বিষয়ের বোর্ড পরীক্ষায় খাতা দেখছে অন্য বিষয়ের শিক্ষকরা।
বগুড়ার গোশাইবাড়ি কেও বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অতিরিক্ত চারটি বিষয়ে রুটিন করার সময় বিগত দু’বছর যাবৎ শিক্ষকদের সাথে সহকারী শিক্ষকদের মনোমালিন্য হর-হামেশা লেগেই আছে। আশেপাশের স্কুল গুলোতেও একই অবস্থা। একদিকে নিয়োগ বন্ধ, অন্যদিকে নতুন চারটি বিষয়ে শিক্ষক নিয়োগের মন্ত্রণালয় থেকে কোনো পরিপত্র জারি না হওয়া। ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. এনামুল বারি জানান, নতুন বিষয়ে শিক্ষক নিয়োগের বিধান না থাকায় ওইসব বিষয়ে অন্য শিক্ষকদের দিয়ে ক্লাস নেওয়া হচ্ছে। শুধু তাই নয়, শিক্ষকরা অতিরিক্ত বিষয়ে ক্লাস নিতে গিয়ে হিমশিম খেয়ে যাচ্ছে। স্কুলের আর্থিক সমস্যা থাকায় খ-কালীন শিক্ষক নিয়োগও সম্ভব হচ্ছে না। যেহেতু নতুন বিষয় দেওয়া হয়েছে তাই মন্ত্রণালয়ে উচিত ওইসব বিষয়ে শিক্ষক দেওয়া। ওই স্কুলের কম্পিউটার শিক্ষিকা নাসিমা আক্তার জানান, আমি চারু ও কারু কলার কিছুই জানিনা। আমার চেয়ে আমার ছাত্রীরা ছবি আঁকতে ভালো পারে। রুটিনে আমাকে ক্লাস দিয়েছে। তাই বাধ্য হয়েই ক্লাস নিতে হয়। বগুড়া শহরের ফয়জুল্লা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির বগুড়া জেলার সাধারণ সম্পাদক মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, ৩ বছর যাবৎ নতুন চারটি বিষয় সংযোজন হলেও ওইসব বিষয়ে মন্ত্রণালয় থেকে বিষয়ভিত্তিক শিক্ষক নিয়োগের কোনো ব্যবস্থা করা হয়নি। আগে ১০টি বিষয় ছিল। এখন ১৪টি বিষয়ে শিক্ষকদের ক্লাস নিতে হচ্ছে। আগে সপ্তাহে একজন শিক্ষক ২০ থেকে ২৫টি ক্লাস নিতো। এখন ওই শিক্ষকদের ৩০ থেকে ৩২টি ক্লাস নিতে হয়। এই কারণে শিক্ষকরাও মনোযোগের সাথে ক্লাস নিতে পাছেন না। শহরাঞ্চলে খ-কালীন শিক্ষক নিয়োগ করে কোনো রকমে চালানো গেলেও গ্রামাঞ্চলে তা সম্ভব হচ্ছে না। এমনকি বোর্ড পরীক্ষার খাতাও দেখতে হচ্ছে বিষয়ভিত্তিক শিক্ষক ছাড়া। এ অবস্থা শুধু বগুড়ার নয়, সারা দেশের। শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ে দাবি জানানো হলেও তা এখনো বাস্তবায়ন হয়নি। বগুড়া জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. গোপাল চন্দ্র জানান, আমাদের প্রধান শিক্ষকরা অনেক কষ্টে এসব বিষয়গুলো সমন্বয় করছে। কিন্তুু এসব বিষয়ে শিক্ষক না দিলে পড়া লেখার ক্ষেত্রে এটা একটা বড় সমস্যা হয়েই থাকবে যা কারো কাম্য নয়।



মালদ্বীপে ২০ বাংলাদেশি গ্রেফতার
স্টাফ রিপোর্টার : অবৈধ বসবাসের অভিযোগে মালদ্বীপের রাজধানী মালেতে কমপক্ষে ২০ বাংলাদেশি শ্রমিককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার মালের একটি বাজার থেকে তাঁদের গ্রেফতার করা হয়। দ্বীপরাষ্ট্রটির একটি গণমাধ্যম জানিয়েছে, যেসব বাজারে শুধু মালদ্বীপে উৎপাদিত পণ্য বিক্রি করা হয়, সেগুলোতে স্থানীয়দের কাজ করার অনুমতি দেয়া হয়। তবে অনেক দোকানেই অবৈধভাবে প্রবাসী শ্রমিকরা কাজ করে থাকেন।
অভিবাসন বিভাগের এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে গণমাধ্যমটি জানিয়েছে, দেশটিতে বসবাস করা অবৈধ অভিবাসীদের গ্রেফতার অভিযানের অংশ হিসেবে এই বাংলাদেশিদের গ্রেফতার করা হয়েছে। তাঁদের কারো কাছেই মালদ্বীপে বসবাসের বৈধ কাগজপত্র নেই। তবে ঠিক কতজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে, সে সম্পর্কে অভিবাসন বিভাগ সঠিক কোনো তথ্য দেয়নি। অবৈধ এসব শ্রমিককে মালের পাশের দ্বীপ হুলহুমালের একটি বিশেষ কেন্দ্রে রাখা হয়েছে। চলতি মাসের শুরুতে মালদ্বীপের যেসব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হিসাবরক্ষক হিসেবে প্রবাসী শ্রমিকদের নিয়োগ দেয়া হয়েছে, সেগুলোকে জরিমানা করেছে মালদ্বীপ সরকার। এদের ১০ থেকে ১৫ হাজার মালয়েশিয়া মুদ্রা জরিমানা করা হয়। অভিবাসন বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, এখন পর্যন্ত অন্তত ১০৮টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা গুণতে হয়েছে। গত বছরের এপ্রিল মাসে মালদ্বীপের অর্থ মন্ত্রণালয় ঘোষণা দেয় যে কোনো দোকান, রেস্তোরা বা ক্যাফেতে হিসাবরক্ষক হিসেবে প্রবাসী শ্রমিকদের নিয়োগ দিলে তা অবৈধ বলে গণ্য হবে।


শাহজালালে ৩ দিনে ২১ কোটি টাকার সোনা উদ্ধার
স্টাফ রিপোর্টার : হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দুই বিমান থেকে প্রায় ২৫ কেজি ওজনের ২২০টি সোনার বার উদ্ধার করেছে শুল্ক গোয়েন্দা কর্তৃপক্ষ। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সাড়ে এগারোটার দিকে সোনাগুলো জব্দ করা হয়েছে। মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের একটি বিমান থেকে ২৩ কেজি ২০০ গ্রাম এবং মালয়েশিয়াগামী রিজেন্ট এয়ারের একটি বিমান থেকে ২ কেজি ৩০০ গ্রাম ওজনের সোনা জব্দ করা হয় বলে জানান শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের মহাপরিচালক মইনুল খান। বৃহস্পতিবার রাতে উদ্ধারকৃত সোনা নিয়ে গত তিনদিনে প্রায় ২১ কোটি টাকার সোনা উদ্ধার করা হয়েছে হজরত শাহজালাল বিমানবন্দর ।
ড. মইনুল খান বলেন, জব্দ করা সোনার দাম প্রায় সাড়ে ১২ কোটি টাকা। মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের বিমানটি কুয়ালালামপুর থেকে এসেছে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওই বিমানের একটি সিটের নিচ থেকে সোনাগুলো জব্দ করা হয়। কিছুক্ষণ পর মালয়েশিয়াগামী রিজেন্ট এয়ারওয়েজ থেকে আরও প্রায় ২ কেজি সোনা জব্দ হয়। এ ঘটনায় কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি বলে জানান শুল্ক গোয়েন্দারা। তবে যে যাত্রীর সিটের নিচে সোনা পাওয়া গেছে তার ব্যাপারে খোঁজ-খবর নেয়া হচ্ছে বলে জানান তারা।
শুল্ক গোয়েন্দা কর্তৃপক্ষ জানায়, মালয়েশিয়ান এয়ারলাইনসের এমএইচ-১৯৬ এর এক ফ্লাইটের সিটের নিচ থেকে থেকে ২৩ কেজি ২শ’ গ্রাম এবং রিজেন্ট এয়ারের একটি বিমান থেকে দুই কেজি ৩শ’ গ্রাম সোনার বার উদ্ধার করা হয়।




কল্যাণপুরে বস্তি উচ্ছেদে নিষেধাজ্ঞা দেয়ায় আগুন দেয়ার অভিযোগ
স্টাফ রিপোর্টার : উচ্ছেদ অভিযানে নিষেধাজ্ঞা জারি হওয়া রাজধানীর কল্যাণপুর নতুনবাজার এলাকায় পোড়াবস্তিতে আগুন লাগিয়ে দেয়া হয়েছে। এ অভিযোগ করেছেন সেখানের বাসিন্দারা। গতকাল সকালে যে আগুনে পুড়ে গেছে শতাধিক বসতঘর। বস্তিবাসীদের অভিযোগ যাদের নির্দেশে বৃহস্পতিবার বস্তি উচ্ছেদ শুরু হয় এ আগুন তাদের ইন্দনে লাগানো হয়েছে।
বস্তির কমিউনিটি বেসড অর্গানাইজেশনের (সিবিও) সাধারণ সম্পাদক মো. হান্নান আকন্দ  বলেন, সকাল পৌনে ১০টার দিকে কে বা কারা বস্তির ৮ নম্বর অংশে আগুন দেয়। পরিকল্পিত ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এই আগুন লাগানো হয়েছে বলে তাদের সন্দেহ।
ফায়ার সার্ভিস সূত্র জানায়, গতকাল (শুক্রবার) সকাল ১০টার দিকে তারা কল্যাণপুর পোড়া বস্তিতে আগুন লাগার খবর পান। দু’টি ইউনিট ১ ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে চেষ্টা করে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এতে কয়েক ডজন ঘর পুড়ে যায়। কেউ আগুন দিয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।
বস্তির বাসিন্দাদের অভিযোগ, সরকারি দলের লোকদের কারো কারো ইন্দনে এ আগুন লাগানো হয়েছে। পারভীন আক্তার নামে এক বস্তিবাসী বলেন, সকাল ৮টার পর পর বস্তিতে আগুন লাগে। বেশ কয়েক দফা ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয়া হলেও তারা আসতে অনেক দেরি করেছে। ওই বস্তির আরেক বাসিন্দা কামাল হোসেন বলন, সরকারদলীয় লোকজন মিরপুর বাংলা কলেজ ও হাউজিং অ্যান্ড বিল্ডিং রিসার্চ ইনস্টিটিউটের সামনে এবং বস্তিতে ঢোকার মুখে ফায়ার সার্ভিসের গাড়িকে বাধা দিয়েছে। সকালে আগুন লাগার পর বস্তিবাসী ডোবা থেকে পানি এনে আগুন নেভানোর চেষ্টা করছিলেন। ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা দ্রুত ঘটনাস্থলে এলে ক্ষয়ক্ষতি অনেক কম হতো
কল্যাণপুরে হাউজিং অ্যান্ড বিল্ডিং রিসার্চ ইনস্টিটিউটের বেদখল জমি উদ্ধারে বস্তির একটি অংশে বৃহস্পতিবার উচ্ছেদ অভিযান চালায় গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়। সে সময় বস্তিবাসীর সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। বস্তির এক-চতুর্থাংশ উচ্ছেদের পর হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞায় দুপুরে ওই অভিযান বন্ধ হয়ে যায়। এরপর ২৪ ঘণ্টা না পেরোতেই বস্তির অন্য মাথায় বেলতলী মাঠ এলাকার আট নম্বর বস্তিতে এই অগ্নিকা- ঘটে।
হাউজিং অ্যান্ড বিল্ডিং রিসার্চ ইনস্টিটিউটের মালিকানায় থাকা প্রায় ৫০ একর ওই জমির মধ্যে ১৫ একর জায়গা নিয়ে গড়ে উঠেছে এই বস্তি। বেশ কয়েক বছর আগে একবার আগুন লাগায় এর নাম হয় পোড়া বস্তি। সেখানে কয়েক হাজার ঘরে অন্তত ২০ হাজার মানুষ বসবাস করছেন। ২০০৩ সালে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় ওই জমি থেকে বস্তি উচ্ছেদের উদ্যোগ নিলে আদালতের স্থগিতাদেশ আসে। এরপর আরও দুই দফা সেই উদ্যোগ নেয়া হলেও আইন ও সালিশ  কেন্দ্রসহ কয়েকটি বেসরকারি সংগঠনের চেষ্টায় তা আটকে যায়।



কাস্টমসের সার্ভারে ত্রুটি চট্টগ্রাম বন্দর জটের মুখে    
চট্টগ্রাম ব্যুরো : প্রধান সমুদ্র বন্দরভিত্তিক দেশের একক বৃহৎ রাজস্ব আদায়কারী প্রতিষ্ঠান চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের সার্ভারে গুরুতর ত্রুটির কারণে পণ্য আমদানির খালাস কাজ চলছে খুবই ধীরগতিতে। এ অবস্থায় চট্টগ্রাম বন্দর কন্টেইনারসহ কার্গো জটের মুখে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। সার্ভারে সমস্যার কারণে গতকাল (শুক্রবার) ও আজও (শনিবার) কাস্টম হাউস এবং সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের শাখা খোলা রাখা হচ্ছে। তবে সার্ভারে ত্রুটির উন্নতি হয়নি শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত। চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস ছাড়াও দেশের অন্য শুল্ক স্টেশনগুলোতেও এসাইকুডা ওয়ার্ল্ড সার্ভারে ৪/৫ দিন ধরে ত্রুটি দেখা দিয়েছে। এনবিআর সার্ভারের ত্রুটি সারানোর উদ্যোগ নিয়েছে।   
গতকালসহ টানা ৪ দিন ধরে কাস্টমসের সার্ভারে ত্রুটির কারণে কাস্টমসে আমদানি পণ্য খালাস কার্যক্রম চলছে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে। এ অবস্থায় কাস্টমসের সার্বিক শুল্কায়ন কার্যক্রম মুখ থুবড়ে পড়েছে। এতে করে ব্যবসায়ীরা সময়মতো পণ্য খালাস না হওয়ায় ব্যাপক আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন। কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখতে দেশের কাস্টমস স্টেশনগুলোতে গতকাল ও আজ ছুটির দিনেও কাস্টমস, ব্যাংক খোলা রাখার নির্দেশনা দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।
এসাইকুডা ওয়ার্ল্ড সার্ভারে ত্রুটির কারণে গত ৪/৫ দিনের আমদানি কার্যক্রম ব্যাহত হওয়ায় পণ্যের জট বৃদ্ধি পাচ্ছে। সার্ভারে সমস্যা দেখা দেয়ার পর থেকেই দেশের বাণিজ্যিক কর্মকা- সচল রাখতে কাস্টম হাউসসহ স্টেশনগুলোতে অনলাইনের বদলে হাতে কাগজে-কলমে তথা ম্যানুয়ালি কাজ চলছে। কিন্তু এতে কাজের গতি খুবই ধীর হয়ে পড়েছে। আমদানি-রফতানি পণ্যসামগ্রী খালাসের আগে উক্ত পণ্যের এলসির যথার্থতা অর্থাৎ বাণিজ্যিক ব্যাংক ও বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে দেয়া তথ্যের সাথে কাস্টমসের কাছে দেয়া তথ্য যাচাই করা হয় অনলাইনে। শুল্ক আদায় ও তার হিসাবও করা হয় নির্ধারিত সার্ভারের অধীনে। এই সার্ভারে সমস্যা হওয়ায় গত সোমবার থেকে কাস্টমস স্টেশনগুলোতে পণ্য ছাড় অনেকাংশে বন্ধ রয়েছে। তবে কাস্টমস সূত্র জানায়, সার্ভারের ত্রুটি সারাতে অস্ট্রেলিয়া থেকে গত বৃহস্পতিবার বিশেষজ্ঞ এসেছেন। খুব শিগগিরই সার্ভার সচল হবে।






সোমবার আ’লীগ সম্পাদকম-লীর সভা
স্টাফ রিপোর্টার : ক্ষমতাসীন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সম্পাদকম-লীর এক সভা আগামী সোমবার অনুষ্ঠিত হবে। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার ধানমন্ডিস্থ রাজনৈতিক কার্যালয়ে সোমবার বিকেল ৪টায় এ সভা অনুষ্ঠিত হবে।
দলের দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপের স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা যায়।
বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সভায় সংশ্লিষ্টদের যথাসময়ে উপস্থিত থাকার জন্য বিনীত অনুরোধ জানিয়েছেন।



বাংলাদেশী গরু-ছাগল ছিনতাইয়ে বিএসএফ!
কুড়িগ্রাম জেলা সংবাদদাতা : কুড়িগ্রাম জেলার নাগেশ্বরী উপজেলার নুনখাওয়া চৌদ্দকুড়ি সীমান্ত থেকে বাংলাদেশী কৃষকদের ২৩টি গরু ও ৩টি ছাগল ধরে নিয়ে গেছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ। বিজিবির কড়া প্রতিবাদ এবং গবাদি পশু ফেতে চেয়ে দেয়া প্রস্তাবের তিন দিনেও সাড়া দেয়নি বিএসএফ পক্ষ। এ ঘটনায় উদ্বিগ্ন সীমান্তবাসীরা। আর গবাদি পশু ফেরতের আশায় দরিদ্র কৃষকরা প্রতিদিন বিজিবি ক্যাম্পে ধরনা দিচ্ছে।
নুনখাওয়া চৌদ্দকুড়ি সীমান্তবাসীদের সূত্রে জানা যায়, বালারহাট গ্রামের মজিবর রহমানের ৯টি গরু, মনছার আলীর ৪টি গরু, জসিম মিয়ার ৩টি এবং ইউনুছ আলীর ৩টি ছাগলসহ ৬ জন বাংলাদেশীর ২৩টি গরু ও ৩টি ছাগল গত বুধবার সীমান্ত এলাকার নোম্যান্স ল্যান্ডে বেঁধে রাখা ছিল। ঘাস খাওয়া অবস্থায় বিকালের দিকে শিয়ালদহ ক্যাম্পের বিএসএফ জোয়ানরা আকস্মিকভাবে গবাদি পশুগুলো ধরে ভারতে নিয়ে যায়। গ্রামবাসীদের পক্ষ থেকে বিষয়টি বিজিবির চৌদ্দঘুড়ি বিওপি ক্যাম্পে জানানো হয়।
নারায়নপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবু হানিফ গতকাল বিকেলে জানান, ২৬টি গরু-ছাগল বিএসএফ ধরে নিয়ে গেলে স্থানীয় বিওপি ক্যাম্পে জানানো হয়েছে। তিন দিনেও সেগুলো উদ্ধার হয়নি। স্থানীয় বিজিবি জানিয়েছে পত্র প্রেরণের পরও বিএসএফ পক্ষ সাড়া দিচ্ছে না। ফলে সীমান্তবর্তী এলাকার মানুষ গবাদি পশু নিয়ে বিপাকে পড়েছে।
এ ব্যাপারে চৌদ্দকুড়ি বিজিবি ক্যাম্পের কমান্ডার নায়েক সুবেদার নাম প্রকাশ না করে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, সকল তথ্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। এ বিষয়ে তিনি অফিসিয়ালী কথা বলবেন।
এ প্রসঙ্গে কুড়িগ্রামের ৪৫ বিজিবি ব্যাটালিয়নের পরিচালক লে. কর্নেল জাকির হোসেন ঘটনা’র সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ভারতের শিয়ালদহ ক্যাম্পের বিএসএফ গরু ও ছাগল নিয়ে গেছে। বিএসএফ’র পক্ষে থেকে জানানো হয় বাংলাদেশীদের গরু ও ছাগল সন্ধ্যার দিকে ভারতের সীমান্ত কাছাকাছি যাওয়ায় তারা আটক করেছে। খবর পেয়ে আমরা কড়া প্রতিবাদ জানিয়ে গবাদি পশুগুলো ফেরত চেয়েছি পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে। পত্র প্রেরণ করা হলেও বিএসএফ পক্ষ এখন পর্যন্ত সাড়া দেয়নি। আমরা এগুলো ফেরত আনার জন্য চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি।




ইনকিলাব ডেস্ক : গ্রীসের ফারমাকোনিসি ও কালোলিমনোসদ্বীপ উপকূলে গতকাল শেষ রাতে দুটি নৌকাডুবির ঘটনায় কমপক্ষে ২১ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। এদের মধ্যে আট শিশু রয়েছে। এ ঘটনায় এখনো অনেক অভিবাসন-প্রত্যাশী নিখোঁজ রয়েছে। দেশটির কোস্টগার্ড কর্তৃপক্ষ একথা জানায়।
বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে জানানো হয়, সকালে প্রথমে ফারমাকোনিসি উপকূলের কাছে পাথরের সঙ্গে ধাক্কা লেগে একটি নৌকা ডুবে যায়। এ ঘটনায় কোস্টগার্ড ছয় শিশু ও এক নারীর লাশ উদ্ধার করে। এর কয়েক ঘন্টা পর ইজিয়ান সাগরের কালোলিমনোস উপকূলে আরেকটি নৌকা ডুবে যায়। কোস্টগার্ড সদস্যরা দ্বিতীয় এ ঘটনায় ১৪ জনের লাশ উদ্ধার করে। এদের মধ্যে দুই শিশু, নয়জন নারী ও তিনজন পুরুষ রয়েছে। বন্দর পুলিশ জানায়, তুরস্ক থেকে আসা প্রথম নৌকাটি ডুবে যাওয়ার পর ৪৮ জন যাত্রীকে জীবিত উদ্ধার করা হয়।
কালোলিমনোস উপকূলে ডুবে যাওয়া আরেকটি নৌকা থেকে বন্দর পুলিশ ২৬ যাত্রীকে উদ্ধার করে তীরে নিয়ে এসেছে। এ ঘটনায় এখনো অনেকে নিখোঁজ রয়েছে। ফলে সেখানে উদ্ধার অভিযান চলছে। হতাহত যাত্রীদের বেশির ভাগই অভিবাসন-প্রত্যাশী। এর আগে গত বৃহস্পতিবার জলপথে গ্রিসে আসার সময় তুরস্কের একটি উপকূলে নৌকাডুবির ঘটনায় শিশুসহ অন্তত ১২ জন অভিবাসন-প্রত্যাশী মারা যান। Ñসূত্র : এএফপি


ক্ষতিকর বন্দরের তালিকায় চট্টগ্রাম ৭৬তম : নৌ মন্ত্রী
অর্থনৈতিক রিপোর্টার : নৌ পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার আগে বিশ্বের একশত ক্ষতিকর বন্দরের তালিকায় চট্টগ্রাম বন্দরের অবস্থান ছিল ৯৮তম। উন্নয়নের ছোঁয়া লাগায় ২০১৪ সালে বন্দরের অবস্থান ৮৬-তে নেমে এসেছে। এ বছর অবস্থান হচ্ছে ৭৬তম। এই উন্নয়নের পেছনে গাড়ি ব্যবসায়ীসহ সব ব্যবসায়ীদের অবদান রয়েছে বলেও জানান।
গতকাল শুক্রবার রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) বারভিডা কার এক্সপো’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা জানান। বাংলাদেশ রিকন্ডিশন্ড ভেহিক্যালস ইমপোটার অ্যান্ড ডিলার্স অ্যাসোসিয়েশন (বারভিডা) তৃতীয়বারের মতো তিন দিনব্যাপী এক্সপো’র আয়োজন করছে।
মংলা বন্দর সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, যে মংলা বন্দর চারদলীয় জোট সরকারের সময় সাড়ে ১১ কোটি টাকা পর্যন্ত লোকশান গুনেছে সে বন্দর ২০১৪ সালে ৬০ কোটি টাকা লাভ করেছে।
তিনি বলেন, বারভিডার ব্যবসায়ীরা সহযোগিতা না করলে মংলা বন্দর এত দ্রুত লাভজনক অবস্থায় আসত না। বন্দরে আমদানি-রফতানি বাড়তো না। বাংলাদেশ যে নিম্ন মধ্য আয়ের দেশে যে পরিণত হয়েছে তা ঢাকা শহরের দিকে তাকালে বোঝা যায়। বাস চোখে পড়ে না, চোখে পড়ে প্রাইভেটকার আর মাইক্রোবাস।
মন্ত্রী বলেন, গাড়ি আজ বিলাসিতা নয়, প্রয়োজনীয় জিনিস। আগে রাস্তায় বেবিট্যাক্সি, অটোরিকশা দেখা যেত। তা কমে যাচ্ছে। মানুষের ক্রয় ক্ষমতা বৃদ্ধির কারণে রিকন্ডিশন গাড়ির সংখ্যা বাড়ছে।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এফবিসিসিআই-এর প্রথম সহ-সভাপতি মো. সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, নতুন ও হাইব্রিড গাড়িতে শুল্ক বৈষম্য কমিয়ে আনা এবং রিকন্ডিশন হাইব্রিড গাড়ি আমদানিতে অনুমতি ও সরকারি প্রতিষ্ঠানের টেন্ডারে হাইব্রিড গাড়ি কেনার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।
বারভিডার সাবেক সভাপতি হাবিব উল্লাহ ডন বলেন, সরকার প্রতিশ্রুতি দিলেও গত দেড় বছরে জাপানি রিকন্ডিশন হাইব্রিড গাড়ি আমদানির অনুমতি দেয়নি। এ গাড়ি ব্যাটারি ও ডিজেলে চলে ও পরিবেশবান্ধব। চট্টগ্রাম বন্দরের ভাড়া কমিয়ে আনা, রিকন্ডিশন গাড়ি ও নতুন গাড়িতে শুল্ক বৈষম্য দূর করলে আরও সুলভ মূল্যে ক্রেতাকে গাড়ি দেয়া যাবে বলেন তিনি।
অনুষ্ঠানে বারভিডার প্রথম সভাপতি আব্দুল হক, বর্তমান সভাপতি মো. আব্দুল হামিদ শরীফ, সিনিয়র সহ-সভাপতি ও কার এক্সপো বাস্তবায়ন কমিটির চেয়ারম্যান এবিএম আনিসুজ্জামান পিনু, মহাসচিব মাহবুবুল হক চৌধুরী প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।


আর্থিক দুরবস্থা উত্তরণে ইসলামী অর্থ ব্যবস্থার বিকল্প নেই : ইশা ছাত্র আন্দোলন
স্টাফ রিপোর্টার : দেশের বর্তমান দুরবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য ইসলামী অর্থ ব্যবস্থার কোনো বিকল্প নেই। এর জন্য ইশা ছাত্র আন্দোলনকেই ভূমিকা রাখতে হবে। গতকাল শুক্রবার ঢাকার বিএমএ অডিটোরিয়ামে ইশা ছাত্র আন্দোলন ঢাকা মহানগর পূর্ব আয়োজিত নগর সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নায়েবে আমির আল্লামা আবদুল হক আজাদ উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। নগর সম্মেলনে প্রধান বক্তার বক্তব্যে ইশা ছাত্র আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুহা. নূরুল ইসলাম আল আমীন বলেন, ছাত্র রাজনীতি আজ কলুষিত। এই কলুষিত ছাত্র রাজনীতিকে দূরীভূত করতে প্রয়োজন একদল যোগ্য দক্ষ জানবাজ কর্মী-বাহিনীর। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে দৈনিক ইনকিলাবের সহকারী সম্পাদক আল্লামা ওবায়দুর রহমান খান নদভী বলেন, বাংলাদেশ ইসলামের জন্য উর্বর ভূমি। তবে ইসলামের জন্য কাজ করার কিছু নিবেদিত জানবাজ কর্মী-বাহিনীর প্রয়োজন ইশা ছাত্র আন্দোলন সে কাজটিই নিরলসভাবে করছে। উক্ত নগর সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদক মুহা. জহিরুল ইসলামের সঞ্চালনায় এবং সভাপতি এইচ এম কাউসার আহমদের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন মুফতি হেমায়েতুল্লাহ, মাওলানা আরিফুল ইসলাম, শেখ মুহা. নুর-উন-নবী, মুফতি ফখরুদ্দীন রাজী প্রমুখ।
সম্মেলন শেষে ইশা ছাত্র আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুহা. নূরুল ইসলাম আল আমীন বর্তমান কমিটি বিলুপ্তি ঘোষণা করে ২০১৬ সেশনের জন্য নতুন কমিটি ঘোষণা করেন। কমিটিতে সভাপতি মুহা. জহিরুল ইসলাম সহ-সভাপতি মুহা. তাজওয়ার হোসাইন সাধারণ সম্পাদক সাইফ মুহাম্মদ সালমানের নাম ঘোষণা করেন।


এক যুগ পর মোহনগঞ্জ আ’লীগের সম্মেলন আজ
নেত্রকোনা জেলা সংবাদদাতা : এক যুগ পর আজ ২৩ জানুয়ারি মোহনগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। সম্মেলনকে ঘিরে দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে ফিরে এসেছে ব্যাপক প্রাণচাঞ্চল্য। বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ।
মোহনগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সর্বশেষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় ২০০৩ সালে। সম্মেলনে আব্দুল কদ্দুছ আজাদ সভাপতি ও শহীদ ইকবাল সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন। আব্দুল কদ্দুছ আজাদ মৃত্যুবরণ করার পর আলহাজ্ব মজিবুর রহমান (কাঁচা মিয়া) দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছেন।
দলের সাধারণ সম্পাদক শহীদ ইকবাল জানান, ইতিমধ্যেই সম্মেলনের যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। সম্মেলনে প্রধান অতিথি উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের উপ-প্রচার সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, পাট ও বস্ত্র প্রতিমন্ত্রী মীর্জা আজম, যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়, রেবেকা মমিন এমপি, ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল এমপি, ছবি বিশ্বাস এমপি, ইফতেখার উদ্দিন তালুকদার পিন্টু এমপি, বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগের সম্পাদক অধ্যাপিকা অপু উকিল। সম্মেলন উদ্বোধন করবেন জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জেলা পরিষদ প্রশাসক আলহাজ মতিয়র রহমান খান।




 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: গ্রীস উপকূলে নৌকাডুবি ৮ শিশুসহ ২১ অভিবাসন প্রত্যাশীর মৃত্যু
আরও পড়ুন