Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৭, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী

গ্রæপ পর্বেই অ্যাটলেটিকোর বিদায়

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ ডিসেম্বর, ২০১৭, ১২:০০ এএম

গ্রæপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোল নিশ্চিত করেছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও রোমা। বায়ার্ন মিউনিখের কাছে প্রতিশোধের তোপে পুড়েও একই মর্জাদা পেয়েছে পিএসজিও। তাদের সঙ্গে নক-আউট পর্বে পা রেখেছে জুভেন্টাস ও বাসেল। তবে গ্রæপ পর্ব থেকেই বিদায় নিতে হয়েছে গত তিন আসরে দুইবার ফাইনালে খেলা অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদকে
স্পোর্টস ডেস্ক
ওল্ড ট্রফোর্ডে ৬৫ সেকেন্ডের ঝড়
গ্রæপ চ্যাম্পিয়ন হতে ঘরের মাঠে ড্র করলেও চলত ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে। কিন্তু লাল সমর্থকদের স্তব্ধ করে প্রথমার্ধের শেষ সময়ে এগিয়ে যায় রাশিয়ান প্রতিপক্ষ সিএসকেএ মস্কো। দ্বিতীয়ার্ধেও দীর্ঘ ২০ মিনিট মুখে হাত দিয়ে বসে থাকতে হয় স্বাগতিক সমর্থকদের। এরপরই সেই রমেলু লুকাকু ও মার্কাস রাশফোর্ডের মাত্র ৬৫ সেকেন্ডের ঝড়। মুহূর্তেই পাল্টে যায় ম্যাচের চিত্র। পিছিয়ে থাকা থেকে উল্টো ২-১ লিড নেয় ইউনাইটেড। যা তাদের ঢেলে দিয়েছে ২০১৩-১৪ মৌসুমের পর প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়ন্স লীগের নকআউট পর্বে। তাও আবার গ্রæপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে। পরাজিত সিএসকেএ খেলবে ইউরোপা লিগে।
সঙ্গে আরো একটি রেকর্ড গড়েছে হোসে মরিনহোর দল। এ নিয়ে টানা ৪০ ম্যাচ ঘরের মাঠে অপরাজিত ইউনাইটেডÑ জয় ২৯টিতে, বাকি ১১ ম্যাচ ড্র। এই রেকর্ড ধরে রাখতে পরের ম্যাচেই কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে তাদের। যে নগর প্রতিদ্ব›দ্বীর কাছে গেল মৌসুমে ২-১ গোলে হেরে শুরু হয়েছিল তাদের অপরাজেয়র যাত্রা, রবিবার পেপ গার্দিওলার সেই ম্যানচেস্টার সিটির সামনে দাঁড়াতে হবে মরিনহোর ইউনাইটেডকে।
একই গ্রæপ ‘এ’ থেকে শেষ ষোলয় ম্যান ইউর সঙ্গী সুইস ক্লাব বাসেল। এদিন তারা বেনফিকাকে তাদেরই মাঠে হারায় ২-০ গোলে।
হেরেও গ্রæপ সেরা পিএসজি
প্যারিসে স্বাগতিক পিএসজির কাছে হারতে হয়েছিল ৩-০ গোলে। অ্যালিয়েঞ্চ অ্যারেনায় এদিন ম্যাচটি ছিল তাই বায়ার্ন মিউনিখের কাছে প্রতিশোধের। এর আড়ালে ছিল গ্রæপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার চাপা উত্তাপও। প্রথমার্ধে রবার্ট লেভান্দোভস্কি ও করেন্তিন তলিসোর গোলে সেই দিকেই হাটছিল বুন্দেসলিগা চ্যাম্পিয়নরা। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে কিলিয়ান এমবাপের মহামূল্যবান অ্যাওয়ে গোল তা হতে দেয়নি। পরে দ্বিতীয়বারের মত স্কোরবোর্ডে নাম লিখিয়ে ব্যবধান ৩-১ করেন ফরাসি মিডফিল্ডার তলিসো।
‘বি’ গ্রæপের অপর ম্যাচে ঘরের মাঠে আন্ডারলেখটের কাছে ১-০ গোলে হেরেও ইউরোপা লিগে খেলার টিকি পেয়েছে সেল্টিক।
অ্যাটলেটিকোর বিদায়
শেষ তিন বছরে দুইবার ফাইনালে খেলা দল অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। আসরে টিকে থাকতে চেলসির মাঠে শুধু জিতলেই হতো না ডিয়েগো সিমিওনের দলকে। গ্রæপের অপর ম্যাচে হারতে হত রোমাকেও। কিন্তু এর কোনটাই হয়নি। প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়নদের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে অ্যাটলেটিকো, ওদিকে ঘরের মাঠে রোমাও কারাবাগকে হারিয়ে নিজেদের কাজটা সেরে রাখে। দুইয়ে মিলে বিদায় ঘটে অ্যাটলেটিকোর। লা লিগার দলকে এখন খেলতে হবে ইউরোপা লিগে।
জয় বঞ্চিত হওয়ায় গ্রæপ চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি অ্যান্তেনিও কোন্তের চেলসি। সমান পয়েন্ট নিয়ে গোল ব্যবধানে পিছিয়ে থেকেও মুখোমুখি লড়াইয়ে এগিয়ে থাকায় ‘সি’ গ্রæপের সেরা দল রোমা।
বার্সার সঙ্গী জুভেন্টাস
ব্যাপারটা একটু বেমানানই বটে। গেলবারের ফাইনালিস্ট দল জুভেন্টাস। তাদেরকেই কিনা পরের পর্বের জন্য অপেক্ষা করতে হলো শেষ ম্যাচ পর্যন্ত। শেষ পর্যন্ত অলিম্পিয়াকোসকে ২-০ গোলে হারিয়ে ‘ডি’ গ্রæপের দ্বিতীয় দল হিসেবে শেষ ষোল নিশ্চিত করেছে সেরি আ চ্যাম্পিয়নরা। দুই অর্ধে গোল দুটি করেন হুয়ান কুয়াড্রাডো ও ফেডেরিকো বার্নারদেশচি।
এই গ্রæপ থেকে চ্যাম্পিয়ন হয়ে আগেই নক-আউট পর্ব নিশ্চিত করে স্প্যানিশ জায়ান্ট বার্সেলোনা। স্পোর্টিং লিসবনকে এদিন ২-০ গোলে হারিয়ে গ্রæপের শীর্ষস্থান অক্ষুন্ন রাখে কাতালান ক্লাবটি। দর্শকে ঠাসা ক্যাম্প ন্যুতে অনুষ্ঠিত ম্যাচে মেসিকে সাইড লাইনে বসিয়েই প্রতিদ্ব›দ্বীতা শুরু করে বার্সা। বলের দখল রাখলেও তাই কোন আক্রমণ ত্রাস ছড়াতে পারছিল না। দ্বিতীয়ার্ধে কিছুটা ফেরে লড়াইয়ের গতি। ৫৯তম মিনিটে দর্শনীয় হেডের সাহায্যে গোল করে স্বাগতিকদের এগিয়ে দেন প্যাসো আলকাসের। এর খানিক পর মাঠে নামেন আর্জেন্টাইন তারকা। ইনজুরি টাইমে জেরেমি মাতেও’র আত্মঘাতী গোলে ২-০ ব্যবধানের জয় নিশ্চিত করে তারা। এই হারে ইউরোপা লিগে নেমে গেছে লিসবন।

 


দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর