Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৮, ১ কার্তিক ১৪২৫, ০৫ সফর ১৪৪০ হিজরী

দৈনন্দিন জীবনে ইসলাম

| প্রকাশের সময় : ৮ ডিসেম্বর, ২০১৭, ১২:০০ এএম

প্র:- যদি কোন নামাযের শেষে মুক্তাদীগণ বলেন, তিন রাকাত; আর ইমাম বলেন, চার রাকাত হয়েছে, তবে কার কথা গ্রহণযোগ্য হবে?
উ:- এমতাবস্থায় ইমাম যদি নিশ্চিতভাবে বলতে পারেন যে, চার রাকাতই হয়েছে, তবে তার কথাই গৃহীত হবে। আর যদি তার মধ্যে কিছুটা সন্দেহ-সংশয় থাকে যে, চার না তিন, তাহলে মুক্তাদীগণের মতামতের ভিত্তিতে পুনরায় চার রাকাত নামায জামাআতের সাথে আদায় করে ফেলতে হবে।
প্র:- এক্ষেত্রে মুক্তাদীগণ যদি বিভক্ত হয়ে যান। কিছুসংখ্যক বলেনÑচার রাকাত আবার কিছুসংখ্যক বলেন, তিন রাকাত হয়েছে; তাহলে কী করতে হবে?
উ:- এমতাবস্থায় যাদের সংগে ইমাম একমত হবেন, তাদের মতামতকে প্রাধান্য দেয়া হবে। চাই সেভাগে একজনই হোক না কেন। (আলমগীরী)
প্র:- এক মুক্তাদীর যদি পূর্ণ একীন হয় যে, ইমাম তিন রাকাত পড়েছেন, আর সকল লোক এবং ইমামের মনে সন্দেহ হয় যে, তিন নাকি চার রাকাত, তাহলে কী করা হবে?
উ:- এই অবস্থাতে ঐ এক মুক্তাদীর একীনের কারণে এবং পরস্পর বিরোধীতা থেকে বাঁচার জন্যে পুনরায় নামায আদায় করে ফেলাই উত্তম।
প্র:- চার রাকাত বিশিষ্ট নামাযের দ্বিতীয় রাকাআতে ভুলবশতঃ বৈঠক না করে সোজা হয়ে দাঁড়িয়ে গেলে কী করতে হবে?
উ:- দাঁড়িয়ে যাওয়ার পর আর বসা যাবে না; যথারীতি বাকী দুই রাকাআত সমাপ্ত করে সাহু সিজদাহ দিতে হবে। তবে শেষ রাকাআতে এরকম হলে তৎক্ষণাত বসে যেতে হবে এবং সাহু সিজদাহ করে নামায সমাপ্ত করতে হবে।
-মুফতী ওয়ালীয়ুর রহমান খান



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।