Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ১৬ আশ্বিন ১৪২৭, ১৩ সফর ১৪৪২ হিজরী

হদিস মিলছে না নিখোঁজদের অপেক্ষায় স্বজনরা

সাখাওয়াত হোসেন : | প্রকাশের সময় : ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৭, ১২:০০ এএম

কারা জড়িত বা কেন নিখোঁজ হচ্ছে এর কোনো তথ্য নেই তদন্তকারীদের কাছে
দিন দিন নিখোঁজের সংখ্যা বাড়লেও তদন্তকারী কর্মকর্তারা অন্ধকারে। অপহরণ বা তুলে নেয়ার সাথে কারা জড়িত বা কেন নিখোঁজ হচ্ছেন মানুষ, এর কোন তথ্য নেই তদন্তকারীদের কাছে। অথচ অধির আগ্রহে অপেক্ষা করছেন নিখোঁজ ব্যক্তিদের পরিবারের সদস্যরা। তাদের বিশ্বাস, যে কোন সময় ফিরে আসবেন তারা। সম্প্রতি সময়ে বিমানবন্দর যাওয়ার পথে নিখোঁজ হন সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামান। বাসা থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের তরুণ শিক্ষক মোবাশ্বার হাসান এবং কর্মস্থল থেকে বেরিয়ে নিখোঁজ হন সাংবাদিক উৎপল দাস। এসব মামলার কোন অগ্রগতি নেই বলে জানিয়েছেন তদন্তের সাথে জড়িত কর্মকর্তারা। তদন্ত কর্মকর্তারা অনেকটাই অন্ধকারে রয়েছে। গত কয়েক মাস ধরে তদন্ত এসব মামলায় কোন ক্লু খুঁজে পাচ্ছে না তদন্তের সাথে সংশ্লিস্ট্ররা। সাবেক রাষ্ট্রদূত এম মারুফ জামান নিখোঁজ হওয়ার ব্যাপারে সাবেক কূটনীতিকদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ফর্মার অ্যাম্বাসেডরস (এওফা) গভীর উদ্বেগ জানিয়েছে। সাবেক কূটনীতিকেরা তাঁদের সহকর্মীকে দ্রæত ফিরিয়ে আনার বিষয়ে যথাযথ কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা চেয়েছেন। গত শনিবার এওফার বার্ষিক সাধারণ সভায় মারুফ জামানের বিষয়ে গৃহীত এক প্রস্তাবে এই আশাবাদ ব্যক্ত করা হয়। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, এভাবে ধরে বা তুলে নিয়ে যাওয়ার ঘটনার কারনে সাধারন মানুষ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর আস্থা কমে যাচ্ছে। দেশে একটা ভয়ের পরিবেশ তৈরি হচ্ছে। জড়িতরা ধরা না পড়ায় রহস্যও দেখা দিয়েছে এ নিয়ে। আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী সূত্রে জানা গেছে, গত ২২ আগস্ট থেকে এ পর্যন্ত গত সাড়ে তিন মাসে ১৫ জন নিখোঁজ হন। এখনো নিখোঁজ আছেন ৬জন। তাঁরা হলেন কল্যাণ পার্টির মহাসচিব আমিনুর রহমান, সাংবাদিক উৎপল দাস, ব্যবসায়ী ও বিএনপির নেতা সৈয়দ সাদাত আহমেদ, কানাডার ম্যাকগিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ইশরাক আহম্মেদ, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মোবাশ্বার হাসান ও সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামান। পুলিশ ও পারিবারিক সূত্র জানায়, গত ৪ ডিসেম্বর বিকেল ৫টায় ধানমন্ডির ৯-এ রোডের ৮৯ নম্বর বাড়ির ২-এ নম্বর ফ্ল্যাট থেকে মারুফ জামান বিমানবন্দরের উদ্দেশে বের হন। তার মেয়ে সামিহা জামান বিদেশ থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় বিমানবন্দরে পৌঁছানোর কথা। যথাসময়ে বিমানবন্দরে সামিহা জামান পৌঁছলেও তার বাবা তাকে রিসিভ করার জন্য সেখানে যাননি। পরে সামিহা নিজেই বিমানবন্দর থেকে বাসায় চলে আসেন। বাসায় ফিরে তিনি জানতে পারেন তার বাবা তাকে রিসিভ করার জন্য বিমানবন্দর গিয়েছিলেন। এরপর পরিবারের সদস্যরা সম্ভাব্য সব জায়গায় সাবেক এই রাষ্ট্রদূতের খোঁজ করেন। অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তার কোনো অবস্থান নিশ্চিত না করতে পেরে পরদিন সকালে থানায় জিডি করা হয় পরিবারের পক্ষ থেকে। ওই দিন রাতে মারুফ জামান তার বাসায় ফোন করে তার রুমে থাকা ল্যাপটপ ও কম্পিউটারের হার্ড ডিস্ক অজ্ঞাত এক ব্যক্তির কাছে দিয়ে দেয়ার কথা বলেন। রাতে তিন ব্যক্তি তার বাসায় গিয়ে ল্যাপটপ ও কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক নিয়ে যায়। ওই লোকগুলো তাদের পরিচয় সম্পর্কে কিছুই বলেনি মারুফ জামানের পরিবারের কাছে। এ মামলাটি তদন্ত করছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের জয়েন্ট কমিশনার আবদুল বাতেন দৈনিক ইনকিলাবকে বলেন, সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামানের নিখোঁজ হওয়ার মামলা গুরুত্বের সাথে তদন্ত করা হচ্ছে। কে বা কারা তাকে নিয়ে গেছে এ বিষয়টি জোর দিয়ে দেখা হচ্ছে। ডিবির কর্মকর্তারা কাজ করছে। তবে এখন পর্যন্ত তেমন কোন অগ্রগতি নেই। আমরা চেষ্টা করছি তাকে উদ্ধার ও জড়িতদের শনাক্ত করে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য। মারুফ জামানের মেয়ে সামিহা জামান সাংবাদিকদের বলেন, গত রোববার একজন পুলিশ কর্মকর্তা তাঁর বাবার টুইটার অ্যাকাউন্ট আছে কি না, জানতে চেয়েছেন। তবে তিনি কোথায় কীভাবে আছেন, সে সম্পর্কে কিছু জানাতে পারেননি। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, রাজধানীর নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির শিক্ষক মোবাশ্বের হাসান সিজার নিখোঁজের ঘটনায় কূলকিনারা করতে পারছে না আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। গত ৭ নভেম্বর নিখোঁজ হন মোবাশ্বের হাসান সিজার। এই ঘটনায় তার বাবা মোতাহার হোসেন খিলগাঁও থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। কিন্তু সিজারকে উদ্ধার অভিযানে কোনো বলার মতো অগ্রগতি নেই। জানতে চাইলে খিলগাঁও থানার ওসি মশিউর রহমান গতকাল দৈনিক ইনকিলাবকে বলেন, আমরা জোর দিয়ে নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির শিক্ষক মোবাশ্বের হাসান সিজার নিখোঁজের ঘটনা তদন্ত করছি। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোন অগ্রগতি নেই। তদন্তের ক্ষেত্রে কোন কমতি নেই উল্লেখ করে তিনি বলেন, নানা বিষয়কে সামনে রেখে পুলিশ তদন্ত করছে। আমরা পরিবারের সাথে যোগাযোগ রেখে তদন্ত করে যাচ্ছি। এর আগে গত ১০ অক্টোবর নিখোঁজ হন পূর্বপশ্চিমবিডি ডট নিউজের রিপোর্টার উৎপল দাস। তার নিখোঁজের ঘটনায় মতিঝিল থানায় দুটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হলেও গতকাল পর্যন্ত তার কোন সন্ধ্যান দিতে পারেনি আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী। মামলার সাথে জড়িত একজন পুলিশ কর্মকর্তা জানান, সব বিষয় মাথায় রেখেই তদন্ত করা হচ্ছে। উৎপল দাসের বাবা চিত্তরঞ্জন দাস সাংবাদিকদের বলেন, দুই মাস পাড় হয়ে গেলেও আমার ছেলের কোনো সন্ধান পাইনি। আমরা তার অপেক্ষায় আছি। হংকংভিত্তিক এশিয়ান হিউম্যান রাইটস কমিশন (এএইচআরসি) ও দেশীয় মানবাধিকার সংস্থা অধিকারের হিসাব অনুযায়ী, ২০০৯ সালের জানুয়ারি থেকে চলতি বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৮ বছর ৯ মাসে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ৩৯৫ জন নিখোঁজ হয়েছেন। পরবর্তী সময়ে তাঁদের মধ্য থেকে ৫২ জনের লাশ পাওয়া গেছে। ফিরে এসেছেন ১৯৫ জন। এখনও নিখোঁজ রয়েছে ১৪৮জন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: হদিস মিলছে না নিখোঁজদের অপেক্ষায় স্বজনরা
আরও পড়ুন