Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯, ০৮ ভাদ্র ১৪২৬, ২১ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

ব্রাসেলস বিমানবন্দর ও মেট্রো রেলে বিস্ফোরণ : নিহত ৩৪

প্রকাশের সময় : ২৩ মার্চ, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : ব্রাসেলসের বিমানবন্দর ও পাতাল রেলে মঙ্গলবার ভোরে বেশ কয়েকটি বিস্ফোরণে এখনও পর্যন্ত অন্তত ৩৪ জন নিহত হয়েছে। এর মধ্যে বিমান বন্দরে ১৪ জন এবং মেট্রো রেলে ২০ জন নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে স্থানীয় প্রচারমাধ্যম ভিআরটি। তবে সরকারী ভাবে স্থানীয় মেট্রো রেলে ১৫ এবং বিমানবন্দরে ১১ জনের প্রাণহানির খবর জানানো হয়েছে। আর আহত হয়েছে অন্তত ১৩০ জন।
জাভেনতেম বিমানবন্দরের বহির্গমন এলাকায় মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকাল আটটার কিছু পরে প্রথম বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। তার ঠিক এক ঘণ্টা পরেই আরো একটি বিস্ফোরণ হয় মালবেক মেট্রো স্টেশনে। এই স্টেশনটি ইউরোপীয় ইউনিয়নের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের খুব কাছেই। বিস্ফোরণের পরপরই বিমানবন্দর ও পাতাল রেল নেটওয়ার্ক পুরোপুরি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।
প্যারিস হামলায় জড়িত প্রধান এক সন্দেহভাজন সালাহ আব্দুস সালামকে আটকের চারদিন পর ব্রাসেলসে একের পর এক এই বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটলো। আব্দুস সালামকে আটকের পর বেলজিয়ান পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছিলেন, নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযানে অস্ত্রশস্ত্র উদ্ধারের পর মনে হচ্ছে, আব্দুস সালামের সহযোগীরা যেকোনো সময়ে আরো হামলা চালাতে প্রস্তুত।
ফরাসী পুলিশ বলেছে, প্যারিসে যে হামলা হয়েছে মূলত তার পরিকল্পনা হয়েছে ব্রাসেলসে। ওই হামলায় ১৩০ জন নিহত হয়। বিস্ফোরণের কারণ সম্পর্কেও এখনও কিছু জানা যায়নি। তবে সরকার সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করেছে।
বেলজিয়ান টিভি ভিআরটি বলছে, বিমানবন্দরে ১৪ এবং মেট্রো রেলে ২০ জন নিহত হওয়া ছাড়াও আরো অন্তত ১৩০ জন গুরুতর জখম হয়েছে। বেলগা বার্তা সংস্থা বলছে, বিস্ফোরণের আগে গুলির শব্দ এবং আরবি ভাষাতেও কাউকে চিৎকার করতে শোনা গেছে।
কোনো কোনো খবরে এই বিস্ফোরণকে আত্মঘাতী হামলা বলে উল্লেখ করা হচ্ছে।
হামলার পরেই শহরের লোকজনের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। লোকজনকে যে যেখানে আছে তাকে সেখানেই অবস্থান করতে বলা হচ্ছে। বাতিল করা হয়েছে সকল ফ্লাইট। ব্রাসেলস থেকে এবং ব্রাসেলস অভিমুখী ইউরোস্টারের সব ট্রেন বাতিল করা হয়েছে।
বেলজিয়াম হামলা ‘অন্ধ, উগ্র ও কাপুরুষোচিত’ : প্রধানমন্ত্রী
বেলজিয়ামের প্রধানমন্ত্রী মিচেল বলেছেন, মঙ্গলবার সকালে বেলজিয়াম দু’টি ‘অন্ধ, উগ্র ও কাপুরুষোচিত’ হামলার শিকার হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী মিচেল জাতীয় টেলিভিশনে ঘোষণা করেন, ‘আজ সকালে জাভেনটাস বিমান বন্দর ও মালবিক মেট্রো স্টেশনে দু’টি ‘অন্ধ, উগ্র ও কাপুরুষোচিত’ হামলা ঘটেছে। তিনি বলেন, হামলায় অনেকে হতাহত হয়েছে। অনেকের আঘাত মারাত্মক।
ইউরোপের বিভিন্ন শহরে নিরাপত্তা
ব্রাসেলসে একাধিক বিস্ফোরণের পর ইউরোপজুড়ে অন্যান্য দেশগুলোও তাদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে। ফরাসী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, ফ্রান্সের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অতিরিক্ত ১,৬০০ পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তিনি বলেন, এই হামলা থেকে এটা বোঝা যাচ্ছে সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলায় ইউরোপের বিভিন্ন দেশের মধ্যে সমন্বয় বাড়ানো কতোটা জরুরি। জার্মানি এবং হল্যান্ড তাদের সীমান্তে নিরাপত্তা তল্লাশি জোরদার করেছে।
ব্রিটেনে সন্ত্রাসবাদ-বিরোধী পুলিশ বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, সতর্কতা হিসেবে বিভিন্ন এলাকায় টহল বাড়ানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন নিরাপত্তা পরিস্থিতি পর্যালোচনা করতে কোবরা কমিটির বৈঠক আহ্ববান করেন।
ব্রাসেলসে হামলার পরপরই ফরাসী প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ওলাঁদ তার মন্ত্রীদের সাথে জরুরি বৈঠক করেছেন।
ইউরোপিয়ান কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টাস্ক বলেছেন, সন্ত্রাসীরা আবারও তাদের ঘৃণা আর সহিংসতা দেখিয়েছে।
আর ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক প্রধান ফেডেরিকা মোঘেরিনি বলেছেন, ইউরোপের জন্যে আজ অত্যন্ত দুঃখের একটি দিন। সূত্র : রয়টার্স, এএফপি ও বিবিসি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ