Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৮, ৯ কার্তিক ১৪২৫, ১৩ সফর ১৪৪০ হিজরী
শিরোনাম

মাশরাফির ভাবনাতেও কেবলই শিরোপা

| প্রকাশের সময় : ৩ জানুয়ারি, ২০১৮, ১২:০০ এএম

মাঠের বাইরের কাজগুলো ঠিকঠাক করাও আমাদের দায়ীত্ব-সাব্বির প্রশ্নে মাশরাফি
স্পোর্টস রিপোর্টার : শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবুয়েকে নিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজকে সামনে রেখে বাংলাদেশ দলের প্রস্তুতি ক্যাম্প শুরু হয়েছে কয়েকদিন আগে। কিন্তু অনুশীলন শিবিরের কোথায় যেন এক ধরণের শূন্যতা খেলে যাচ্ছিল। সেই দলে যে এতদিন ছিলেন না মাশরাফি-বিন মর্তুজা। কালই সাকিব-মুশফিকদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন টাইগার ওয়ানডে দলপতি। এতদিনে ক্যাম্পটাও যেন পূর্ণতা পেল।
স্ত্রী-কন্যার চিকিৎসার প্রয়োজনে থাইল্যান্ডে ছিলেন মাশরাফি। পরশু দেশে ফিরতেই ডাক পড়ে বিসিবি অফিসে। তার সঙ্গে ডাক পড়ে টেস্ট অধিনায়ক সাকিব আল হাসানেরও। সংবাদ সম্মেলনে বোর্ড প্রধান নাজমুল হাসান সেদিনই জানিয়ে দেন আসছে সিরিজে কোচ রিচার্ড হ্যালসন ও টেকনিক্যাল ডিরেক্টর খালেদ মাসুদ হলেও আসল ‘কোচ’ হলেন মাশরাফি ও সাকিব।
মাশরাফি অনুশীলনে থাকা মানেই সবকিছুই যে আরো চাঙ্গা আরো প্রাণবন্ত এর আঁচ পাওয়া গেল কাল প্রথম দিনেই। সতীর্থরা দলনায়ককে অনুশীলনে স্বাগত জানালেন। মজা করে অনেকে খোঁজ-খবরও নিলেন নতুন ‘কোচ’এর। অনেকে আবার তাকে জিজ্ঞেস করেছেন, ‘আপনি কি ব্যাটিং কোচ, নাকি বোলিং?’ মাশরাফিও সেই সম্বোধন ফিরিয়ে দেন স্বভাবসূলভ মজা করেই।
তবে ‘কোচ’ বলতে বিসিবি সভাপতি মাশরাফিকে যে কি বোঝাতে চেয়েছেন তা কিন্তু ঠিকই বুঝেঝেন ম্যাশ। যার অর্থ হলো নিজের দায়ীত্বের পরিধি আরো বাড়িয়ে নেয়া। এমনিতেই মাশরাফির দায়ীত্ব নিয়ে কারো কোন প্রশ্ন নেই। সব সময় নিজের সর্বোচ্চচা দিয়েই দলকে নেতৃত্ব নিয়ে আসছেন ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’। সাংবাদিকেদের তাই বলেন, ‘আমার মনে হয় না, আলাদা কিছু করতে হবে। উনি যেটা বুঝিয়েছেন, সেটা হলো সিনিয়র খেলোয়াড়দের দায়িত্বের বিষয়টা। যেটা সব সময়ই থাকে। আলাদা কিছু করতে গেলে আরো সমস্যার উদ্ভব হতে পারে। আমার কাছে মনে হয় যেভাবে চলছিল, সেটাই ঠিক আছে।’ সর্বশেষ দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের দুঃসহ স্মৃতি তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘দক্ষিণ আফ্রিকা সফর আমাদের ভালো যায়নি। বাজে সময় আসতেই পারে। এখন আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ সেটা মাথায় না রেখে খেলা। সেদিকেই মন দেওয়া উচিত আমাদের।’
আসছে ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টে আগের দিন নিজেদেরকেই ফেবারিট হিসেবে উল্লেখ করেন তামিম ইকবাল। মাশরাফি সরাসরি সেই কথা না বললেও সুরটা তেমনি। জানিয়ে দিয়েছেন সিরিজে বাংলাদেশের লক্ষ্য, ‘অবশ্যই জেতার পরিকল্পনা থাকবে। ত্রিদেশীয় সিরিজটি গুরুত্বপূর্ণ। দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে ফেরার পর সবাই হতাশ। আমরা যদি এটা জিততে পারি, তাহলে পরিস্থিতির মোড় ঘুরে যেতে পারে।’
দক্ষিণ আফ্রিকার স্মৃতি সামনে আনলে কেবল হতাশার স্মৃতিই ভেসে উঠবে। কি বোলিং কি ব্যাটিং। এমনকি ফিল্ডিংয়েও নিজেদের স্বাভাবীক খেলা খেলতে ব্যর্থ হয় বাংলাদেশ। যে কারণে ওই সফরের পারফরম্যান্সের সঙ্গে ঘরের মাঠের বাংলাদেশকে মেলাতে চান না অধিনায়ক। বিশেষ করে ওয়ানডে সিরিজে তো নয়-ই, ‘আমার মনে হয় না কঠিন কিছু হবে। বিশেষ করে ওয়ানডেতে। একটা সিরিজ দিয়ে সব কিছু বিবেচনা করা যায় না। আমাদের মূল কাজ হবে ঠিকঠাক কাজগুলো করা। দেশে ও বাইরের সিরিজের মধ্যে আকাশপাতাল ব্যবধান থাকে। ঘরের মাঠের সিরিজ আমরা জিততে চাই।’
স্বাভাবীকভাবেই সাব্বিরকে নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নে মুখে পড়তে হয় মাশরাফিকে। হাজার হোক দেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে আলোচিত বিষয় তো এটাই। এজন্য মাঠের বাইরে প্রত্যেক খেলোয়াড়ের দায়ীত্ব ও কর্তব্যকে মনে করিয়ে দিয়ে মাশরাফি বলেন, ‘প্রথম কথা হচ্ছে যে, বিসিবির অধীনে আমরা সবাই। এটা মেনে নেয়াটাও দায়িত্ব। একই সাথে আমাদেরকে সবাই অনুসরণ করে। তরুণরা যারা উঠে আসছে, অনূর্ধ্ব-১৫, অনূর্ধ্ব-১৬, অনূর্ধ্ব-১৯; তারাও আমাদের অনুসরণ করে। সুতরাং মাঠের বাইরের সব কিছু ঠিক রাখা আমাদের দায়িত্ব।’
জাতীয় লিগ চলাকালীন সময় খেলা বন্ধ রেখে এক কিশোরকে মারধর ও ম্যাচ অফিসিয়ালদের সঙ্গে বাজে আচরণের কারণে সাব্বিরকে ২০ লক্ষ টাকা জরিমানা ও আগামী ছয় মাস সব ধরণের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ করার সুপারিশ করেছে ডিসিপ্লিনি কমিটি। একই সঙ্গে কেন্দ্রিয় চুক্তি থেকে বাদ দেয়ারও ঘোষণা আসে। এই শাস্তি কমার লক্ষণ তো নেই-ই এমনকি বাড়তে পারে বলেও ইঙ্গিত দিয়েছেন বিসিবি প্রধান। অপরাধের তুলনায় শাস্তিটা বেশি হয়ে গেল কিনা এমন প্রশ্নে মাশরাফি বলেন, ‘যেটা হয়েছে, সেটা মেনে নেয়া ছাড়া উপায় নেই। সামনে যেন আমরা কোনো ভুল না করি। সাব্বিরের সাথে হয়েছে; কিন্তু আর কারো সঙ্গে যেন না হয়। এমন কি আমার সাথেও। আমাদের কাজ হলো ভালো পারফর্ম করা। আর সবাই যেহেতু আমাদের অনুসরণ করে, সুতরাং আমাদের নিশ্চিত করতে হবে যে, মাঠের বাইরে আমরা যাতে আমাদের কাজগুলো ঠিক করি।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর