Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৪ জানুয়ারি ২০১৮, ১১ মাঘ ১৪২৪, ৬ জমাদিউস আউয়াল ১৪৩৯ হিজরী

সরকারি ফান্ড দেখাতে জাল নথি তৈরি

মামলার যুক্তিতর্ক খালেদা জিয়ার আইনজীবী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৪ জানুয়ারি, ২০১৮, ১২:০০ এএম

কুয়েতের আমিরের দেয়া ব্যক্তিগত ফান্ডকে সরকারি ফান্ড বানানোর জন্য জাল নথি তৈরি করা হয়েছে বলে আদালতে দাবি করেছেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী। গতকাল বুধবার ষষ্ঠ দিনে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের সময় আদালতে তিনি এ কথা বলেন। আগামীকালও খালেদা জিয়ার পক্ষে এ জে মোহাম্মদ আলী যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করবেন। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে পুরান ঢাকার বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালতে হাজির হন খালেদা জিয়া। ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫-এর বিচারক আখতারুজ্জামান বেলা তিনটার দিকে কাল পর্যন্ত শুনানি মুলতবি করেন।
সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী বলেন, জাল দলিল তৈরি করেছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হারুন-অর-রশিদ। আর এই জাল নথির সপক্ষে আদালতে মিথ্যা সাক্ষ্য দিয়েছেন হারুন-অর-রশিদসহ পাঁচজন সাক্ষী। মামলার এজাহারের তারিখ, অনুসন্ধানের তারিখ ও অভিযোগপত্র দেয়ার সময় উল্লেখ করে মোহাম্মদ আলী বলেন, আইনের বিধান অনুযায়ী ৪৫ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্তকাজ শেষ করার কথা। অথচ ৩৯৫ কার্যদিবস সময় নেওয়া হয়েছে, এই সময়ের মধ্যে জাল দলিল তৈরি করা হয়।
এ ছাড়া রুলস অব বিজনেস, সচিবালয় নির্দেশমালা ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কার্যবিবরণীর বিভিন্ন ধারা তুলে ধরে সাবেক এই অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী বলেন, আইনের বিধান অনুযায়ী যেভাবে অতিরিক্ত নথি তৈরির কথা, তা সেভাবে করা হয়নি। নথির গতিবিধি-সংক্রান্ত বিধানও অনুসরণ করা হয়নি। এই মামলার গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষী সাবেক মুখ্য সচিব কামালউদ্দিন সিদ্দিকীর ব্যক্তিগত সচিব সৈয়দ জগলুল পাশার এতিম তহবিলসংক্রান্ত নথি দেখার কোনো এখতিয়ারই ছিল না।
প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নথি জব্দ করতে হলে ক্ষমতাপ্রাপ্ত কর্মকর্তার অনুমতি নিতে হয় আদালতকে জানান মোহাম্মদ আলী। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নথি জব্দের সময় সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার অনুমতি নেয়া হয়নি। এর কারণ জাল নথি তৈরি করা হয়েছে। তদন্ত কর্মকর্তাসহ কয়েকজন সাক্ষী মিলে জাল নথি তৈরি করেছেন। সাদা কাগজের ওপর হাতে লেখা এসব নথি কেন আদালতে উপস্থাপন করা হয়েছে, তিনি প্রশ্ন রাখেন আদালতের কাছে।
এর আগে এ মামলায় খালেদা জিয়ার দুজন আইনজীবী তাঁদের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেছেন। তৃতীয় আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী যুক্তিতর্ক উপস্থাপন অব্যাহত রেখেছেন।
২০ ও ২১ ডিসেম্বর খালেদা জিয়ার পক্ষে আবদুর রেজাক খান যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন। শেষ না হওয়ায় আদালত আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের জন্য ২৬, ২৭ ও ২৮ ডিসেম্বর দিন ধার্য করেন। ২৬ ও ২৭ ডিসেম্বর খালেদা জিয়ার পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন তাঁর আইনজীবী আবদুর রেজাক খান।

 


দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর