Inqilab Logo

সোমবার, ১৫ আগস্ট ২০২২, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৬ মুহাররম ১৪৪৪

৫ জানুয়ারি বিএনপির রাজনৈতিক আত্মহত্যার দিন -ওবায়দুল কাদের

গণতন্ত্র রক্ষা দিবসে রাজধানীতে আ’লীগের ব্যাপক শো-ডাউন

| প্রকাশের সময় : ৬ জানুয়ারি, ২০১৮, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ী হবে জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বিএনপিকে উদ্দেশ করে বলেছেন, নির্বাচন ঠেকানোর সাধ্য থাকলে দেখান, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জনগণ আপনাদের প্রতিহত করবে। তিনি বলেন, আজকে বিএনপির রাজনৈতিক আত্মহত্যা দিবস। একদিকে জনগণের গণতন্ত্রের বিজয় দিবস, অন্যদিকে সা¤প্রদায়িক শক্তির আত্মহত্যা দিবস। আগামী নির্বাচনে অংশ না নিলে আরেকবার আত্মহত্যা দিবস পালন করতে হবে।
গতকাল শুক্রবার বিকালে রাজধানীতে পৃথক পৃথক জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র রক্ষা দিবস উপলক্ষে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগ বনানী খেলার মাঠে ও ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে এ জনসভার আয়োজন করে।
ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন বিএনপিকে ছাড়া নির্বাচন করতে দেয়া হবে না। অপেক্ষা করেন, সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে, নির্বাচনে আসুন।
নির্বাচন ঠেকাতে চাইলে বাংলার জনগণ সেটা প্রতিহত করবে বলেও জানান আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, সময়, স্রোত কারো জন্য অপেক্ষা করে না। নির্বাচন বিএনপি বা কারো জন্য বসে থাকবে না। সংবিধান অনুযায়ী যথাসময়ে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আপনাদের (বিএনপি) ঠেকানোর সাধ্য থাকলে দেখান। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জনগণ আপনাদের প্রতিহত করবে।
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, বহুরূপী ব্যারিস্টার সাহেব, আপনাদের সকলে চেনে। দেশে একটু ঝড়ঝঞ্জা দেখলে বিদেশে গিয়ে পালিয়ে থাকেন। ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে বাড়ি দখল করতে গিয়ে আদালতে ধরা খেয়ে রাস্তায় কান্না করেছেন। এই লোক যদি দেশের আইনমন্ত্রী হয়, দেশের বারোটা বেজে যাবে।
কাদের বলেন, আজ সংবিধান সুরক্ষা দিবস, আজ ঢাকা শহর মিছিলের নগরী। সব রাস্তায় মিছিল আর মিছিল। গণতন্ত্র রক্ষা দিবসে আজ আমাদের শপথ-অঙ্গীকার বাংলাদেশে গণতন্ত্রকে বাঁচাতে হলে, আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে। মুক্তিযুদ্ধকে বাঁচাতে হলে, স্বাধীনতার চেতনাকে বাঁচাতে হলে আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে। গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে হলে, আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী করতে হবে। দেশে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে হলে, শেখ হাসিনাকে আরেকবার ক্ষমতায় আনতে হবে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সা¤প্রদায়িক অপশক্তিকে পরাজিত করে মুক্তিযুদ্ধের ধারায় নৌকা বিজয়ী হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন কাদের।
আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান বলেন, আগামী নির্বাচনে ভরাডুবি হবে বুঝতে পেরে বিএনপি ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। আগামীতে কেউ যাতে নির্বাচন বানচাল করতে না পারে সে দিকে নেতাকর্মীদের সতর্ক থাকতে হবে।
বিএনপি গণতন্ত্র হত্যা দিবস পালনের নামে সারা দেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করছে অভিযোগ করে দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, ঢাকাবাসী তথাকথিত বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করতে দেবে না। কর্মসূচি পালনের নামে নৈরাজ্য সৃষ্টি করলে ঢাকাবাসী উচিত শিক্ষা দেবে।
মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি একে এম রহমতুল্লাহর সভাপতিত্বে বনানী মাঠের জনসভায় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমÐলীর সদস্য সাহারা খাতুন, ফারুক খান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, সম্পাদকমÐলীর সদস্য হাবিবুর রহমান সিরাজ, উত্তরের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান।
এদিকে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় ওবায়দুল কাদের দাবি করেন, বিক্ষোভের কর্মসূচি দিয়ে বিএনপি নেতাকর্মীরা ঘরে বসে হিন্দি সিরিয়াল দেখে। তাহলে তাদের বিক্ষোভের কর্মসূচি সফল করবে কে?
বিএনপির আন্দোলনের কথা তুলে ধরে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির কর্মীদের ক্ষোভ কর্মসূচি দিয়ে নেতারা মাঠে নামে না, আবার নেতাদের ক্ষোভ কর্মীরা মাঠে নামে না। ৯ বছরে আন্দোলনের কর্মসূচি দিয়ে ঘরে বসে বিএনপি নেতাকর্মীরা হিন্দি ছবির সিরিয়াল দেখে, ঘরে বসে খবর নেয় পুলিশের অবস্থান নরম না গরম। মরা গাঙ্গে জোয়ার আসে না। দেখতে দেখতে ৯ বছর; আন্দোলন হবে কোন বছর?
আগামী নির্বাচনে বিএনপি অংশ না নিলে তাদের অবস্থা বিরল প্রজাতির প্রাণীর মতো হয়ে যাবে বলে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করে বিএনপি রাজনৈতিকভাবে আত্মহত্যা করেছে। আগামী নির্বাচনে বিএনপি অংশ না নিলে তাদের অবস্থা বিরল প্রজাতির প্রাণীর মতো হয়ে যাবে। নির্বাচনে বিএনপিকে আসতেই হবে, না আসলে বিএনপি মুসলিম লীগের মতো সঙ্কুচিত হয়ে যাবে।
পদ্মা সেতু নিয়ে খালেদা জিয়ার বিরূপ মন্তব্যের সমালোচনায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, পদ্মা সেতু নাকি জোড়াতালি দিয়ে বানানো হচ্ছে। উনি সেটাতে উঠবেন না। উনি না উঠলে ফেরির ব্যবস্থা করে দেবো। মামলার হাজিরা দিতে দিতে খালেদা জিয়ার মাথা নষ্ট হয়ে গেছে বলেও মন্তব্য করেন কাদের।
আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচন না হলে জিয়াউর রহমান ও এইচ এম এরশাদ যেভাবে স্বৈরাচারী কায়দায় দেশ চালিয়েছিল, বাংলাদেশ আবার সেই জায়গায় চলে যেত। এই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ ধ্বংসাত্মক পরিস্থিতির হাত থেকে রক্ষা পেয়েছে। আগামী নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ী অবাধ ও সুষ্ঠু হবে। বিএনপি নির্বাচনে না এলে মুসলিম লীগের চেয়েও খারাপ পরিণতি হবে। তাদের জন্য অন্য কোনো পথ খোলা নেই।
সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম বলেন, ৫ জানুয়ারি ভোট হয়েছিল বলেই সাংবিধানিক ও গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা বজায় রয়েছে। দেশ আজকে উন্নয়নের মহাসড়কে। সেদিন ভোট বর্জনের ডাক দিয়ে খালেদা জিয়া পরাজিত হয়েছেন। বারবার আন্দোলনের ডাক দিয়ে পরাজিত হয়েছেন। যারা আন্দোলনে পরাজিত হয়, তারা নির্বাচনেও পরাজিত হবে।
ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসনাতের সভাপতিত্বে এতে আরো বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আবদুর রাজ্জাক, সাংগঠনকি সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাছিম, এনামুল হক শামীম, দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, বন ও পরিবেশ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, উপ প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, ঢাকা দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুন-অর রশিদ প্রমুখ।
চট্টগ্রাম ব্যুরো জানায়, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে গণতন্ত্র ও সংবিধান রক্ষার নির্বাচন উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের নেতারা বলেছেন, আগামী নির্বাচন নিয়েও চক্রান্ত চলছে, ঐক্যবদ্ধভাবে তা মোকাবেলা করা হবে। গণতন্ত্র ও সংবিধান রক্ষা দিবসের এ আনন্দ সম্মিলন সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী। নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সমাবেশে নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বানচাল করতে একটি রাজনৈতিক দল সক্রিয় ছিল। ওই দলটি বন্দুকের নলের মাধ্যমে রাতের অন্ধকারে ক্ষমতা দখল করে ক্ষমতাকে কুক্ষিগত করেছিল। দলটি কখনো গণতান্ত্রিক দল হিসেবে দাবি করতে পারে না। তিনি বলেন, ঐক্যবদ্ধ হয়ে আগামী নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনের মাধ্যমে সরকার গঠন করতে হবে। সরকারের ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে হবে। এতে বক্তব্য রাখেন নগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন, মুক্তিযোদ্ধা নঈমুদ্দিন চৌধুরী, সুনীল কুমার সরকার ও অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল প্রমুখ। পরে শহীদ মিনার থেকে শোভাযাত্রা শুরু হয়ে দারুল ফজল মার্কেট, নিউ মার্কেট, পুরোনো রেলস্টেশন ঘুরে আবার দারুল ফজল মার্কেটে এসে শেষ হয়। শোভাযাত্রায় বিপুলসংখ্যক নেতা-কর্মী অংশ নেন। চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগও নগরীর দোস্ত বিল্ডিং চত্বরে সমাবেশে করে। জেলা সভাপতি সাবেক রাষ্ট্রদূত নুরুল আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে সমাবেশে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এম এ সালাম প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সহ-সভাপতি অধ্যাপক মো: মঈনুদ্দিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো: আবুল কালাম আজাদ, সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো: গিয়াস উদ্দিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো: জসিম উদ্দিন, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এটিএম পেয়ারুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক ও পৌর মেয়র দেবাশীষ পালিত প্রমুখ।
রাজশাহী ব্যুরো জানায়, গণতন্ত্র রক্ষা দিবস উপলক্ষে রাজশাহীতে র‌্যালি ও সমাবেশ করেছে আওয়ামী লীগ জেলা ও মহানগরর। লক্ষীপুর মোড়ে মিছিল ও সমাবেশ করে জেলা আওয়ামী লীগ। অন্যদিকে কুমারপাড়াস্থ দলীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করে মাহনগর আওয়ামী লীগ। এখানে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় নেতা ও সাবেক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, সেক্রেটারী ডাবলু সরকার, অধ্যাপক শফিকুর রহমান প্রমুখ। বক্তারা বলেন দেশের মানুষ বিএনপি জামায়াতকে জালাও পোড়াও রাজনীতি প্রত্যাখান করে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় বসিয়েছে। এদিন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গণতন্ত্র রক্ষা পেয়েছে। দেশ এগিয়ে চলেছে। এর ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে হলে আগামীতেও আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আনতে হবে।
ধামরাই(ঢাকা) উপজেলা সংবাদদতা জানান, ধামরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে গতকাল শুক্রবার বিকেলে গণতন্ত্রের বিজয় দিবস পালিত হয়েছে। আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের মিছিলে ও শ্লোগানে শ্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠে পৌরশহর।
পৌর শহরের ঐতিহ্যবাহী যাত্রাবাড়ি মাঠে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় আওয়ামী লীগ নেতা সাবেক যুগ্ম সচিব দেওয়ান আফছার উদ্দিন জিন্নাহর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন স্থানীয় এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ এম এ মালেক। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগ নেতা শফির আনোয়ার গুলশান, আরো বক্তব্য রাখেন, মহিলা লীগের যুগ্নসাধারণ সম্পাদক লায়ন মিনা মালেক, ,ঢাকা জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আবু সাইদ, কৃষকলীগের সভাপতি আহমদ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল গণি, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক খায়রুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য মৃদুল আল মামুন জয়, স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্নসাধারণ সম্পাদক ডা: জিয়া সিকদার, পৌর যুবলীগের সভাপতি আমিনুর ইসলাম, ধামরাই সরকারী কলেজের ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি হাবিবুর রহমান,ও ছাত্রলীগ নেতা উজ্জ্বল প্রমুখ।
ফরিদপুর জেলা সংবাদদাতা জানান, ফরিদপুরে গণতন্ত্রের বিজয় দিবস উপলক্ষে আনন্দ র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়েছে। ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগ ও সকল সহযোগী সংগঠনের আয়োজনে শুক্রবার সকাল ১১টায় শহরের থানা রোড় আওয়ামী লীগ অফিসের সামনে থেকে একটি আনন্দ র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে ফরিদপুর প্রেসক্লাব চত্বরে এসে শেষ হয়। পরে প্রেসক্লাব এর সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সদর উপজেলার চেয়ারম্যান খন্দকার মোহতেশাম হোসেন বাবর, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাড. সুবল চন্দ্র সাহা।
আনন্দ র‌্যালিতে আওয়ামী লীগ ও সকল সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মরা উপস্থিত ছিলেন।
ঘাটাইল (টাঙ্গাইল) উপজেলা সংবাদদাতা জানান, গতকাল শুক্রবার বিকালে ঘাটাইলে আওয়ামী লীগের দুই গ্রæপের পাল্টাপাল্টি গণতন্ত্র রক্ষা দিবস পালন করেছে। এ উপলক্ষ্যে কারা অন্তরিণ এমপি আমানুর রহমান খান রানা এবং শহিদুল ইসলাম লেবুর অনুসারিরা মাত্র ৫ শত গজ দুরত্বের মধ্যে আলাদা আলাদা ভাবে এ কর্মসূচি পালন করে। টাঙ্গাইল জেলা পুলিশ লাইনের অতিরিক্ত পুলিশ প্রহরার মধ্যে দু’পক্ষের এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা) উপজেলা সংবাদদাতা জানান, গণতন্ত্রের বিজয় দিবস উপলক্ষে গাইবান্ধা-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রিন্সিপাল আবুল কালাম আজাদের নেতৃত্বে শুক্রবার সন্ধ্যা সোয়া ৬টায় উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে একটি র‌্যালী বেড় হয়ে পৌর শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।
গোমস্তাপুর (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) উপজেলা সংবাদদাতা জানান, চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে গণতন্ত্র রক্ষা দিবস পালন করেছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ। এ উপলক্ষে গতকাল শুক্রবার শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। রহনপুর এ বি সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ থেকে বের হওয়া বিশাল শোভাযাত্রা উপজেলা সদর রহনপুর পৌর শহর প্রদক্ষিণ করে। এতে নেতৃত্ব দেন বর্তমান সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফা বিশ্বাস ও সাবেক সংসদ সদস্য জিয়াউর রহমানসহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠণের নেতৃবৃন্দ।
নওগাঁ জেলা সংবাদদাতা জানান, জাতীয় ও দলীয় পতাকা উওোলন, বর্ন্যাঢ্য র‌্যালীর ও আলোচনা সভা মধ্যে দিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে নওগাঁয় গণতন্ত্রের বিজয় দিবস পালিত হয়েছে। শুক্রবার সকালে জেলা আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে একটি বর্ন্যাঢ্য র‌্যালী বের হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিন শেষে পুনরায় সেখানে গিয়ে শেষ হয়। পরে সেখানে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
নেত্রকোনা জেলা সংবাদদাতা জানান, গণতন্ত্র রক্ষা দিবস উপলক্ষ্যে নেত্রকোনায় গণমিছিল করেছে জেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। গতকাল শুক্রবার বেলা ১২টার দিকে জেলা শহরের ছোটবাজারস্থ দলীয় কার্যালয় থেকে একটি গণমিছিল জেলা শহরে বের হয়। মিছিলটি জেলা শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় দলীয় কার্যালয়ে এসে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয় এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ মতিয়র রহমান খান, সাঃ সম্পাদক সাবেক এমপি মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ আলী খান খসরু, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক পৌর মেয়র নজরুল ইসলাম খান, যুগ্ম সম্পাদক নুর খান মিটু, সাংগঠনিক সম্পাদক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রশান্ত কুমার রায় জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক জেলা কমান্ডার নূরুল আমিন ও জেলা কৃষকলীগের সভাপতি কেশব রঞ্জন সরকারসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
উল্লাপাড়া (সিরাজগঞ্জ) উপজেলা সংবাদদাতা জানান, উল্লাপাড়ায় গণতন্ত্র রক্ষা দিবস পালিত হয়েছে। দিবসে পালন উপলক্ষে উল্লাপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগ দিন ব্যাপি নানা কর্মসূচির পালন করে। সকালে স্থানীয় সংসদ সদস্য তানভীর ইমামের নেতৃত্বে পৌর শহরে বনার্ঢ্য আনন্দ র‌্যালি বের হয়। র‌্যালি শেষে পৌর শহেরর পুরাতন বাসষ্ট্যান্ড চত্ত¡রে উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক মীর শহিদুল ইসলাম পুন্নুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সিরাজগঞ্জ-৪ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য তানভীর ইমাম প্রমুখ।

 



 

Show all comments
  • Nurul islam ৬ জানুয়ারি, ২০১৮, ৯:১০ এএম says : 0
    Desher rasta gater atto hoitta kobe bole din na =kuno gonok takur .pazaru o pajor venggejasse .এখানে আপনি আপনার মন্তব্য করতে পারেন
    Total Reply(0) Reply
  • শুকুর আলী ৬ জানুয়ারি, ২০১৮, ১১:১০ এএম says : 0
    বিএনপির কর্মীদের ক্ষোভ কর্মসূচি দিয়ে নেতারা মাঠে নামে না, আবার নেতাদের ক্ষোভ কর্মীরা মাঠে নামে না। ৯ বছরে আন্দোলনের কর্মসূচি দিয়ে ঘরে বসে বিএনপি নেতাকর্মীরা হিন্দি ছবির সিরিয়াল দেখে, ঘরে বসে খবর নেয় পুলিশের অবস্থান নরম না গরম। মরা গাঙ্গে জোয়ার আসে না। দেখতে দেখতে ৯ বছর; আন্দোলন হবে কোন বছর?----------------- ভাল ও সঠিক কথা বলেছেন ওবায়দুল কাদের সাহেব।
    Total Reply(0) Reply
  • রণি ৬ জানুয়ারি, ২০১৮, ১১:১১ এএম says : 0
    আপনারা যদি এতো নিশ্চিতই হন তাহলে নিরপেক্ষ নির্বাচন দিন।
    Total Reply(0) Reply
  • নাসির ৬ জানুয়ারি, ২০১৮, ১১:১২ এএম says : 0
    বিএনপিকে রাস্তায় দাড়াতে দেয়া হচ্ছে না। ঘরোয়া বৈঠকেও যেতে দেয়া হচ্ছে না তাহলে বিএনপি কিভাবে আন্দোলন করবে?
    Total Reply(0) Reply
  • েআমিন ৬ জানুয়ারি, ২০১৮, ১১:১২ এএম says : 0
    বিএনপি নেতারা যাদি ঘরে বসে থাকে তাহলে সমাবেশের পরমিশন দিলেন না কেন?
    Total Reply(0) Reply
  • সবনম ৬ জানুয়ারি, ২০১৮, ১১:১৩ এএম says : 0
    পুলিশকে গুলি করতে নিষেধ করুন তারপর দেখুন বিএনপি কি করতে পারে?
    Total Reply(0) Reply
  • সৌরভ ৬ জানুয়ারি, ২০১৮, ১১:১৫ এএম says : 0
    অন্যায়ভাবে খালেদা জিয়াকে জেলে ঢোকানো চেষ্টা হচ্ছে।
    Total Reply(0) Reply
  • কামাল ৬ জানুয়ারি, ২০১৮, ১১:১৬ এএম says : 0
    এতো কথা বলার আগে দেশে গণমন্ত্র মুক্ত করে দিন।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ