Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৬, ১৬ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

৪৬টি অভিযুক্ত হজ এজেন্সির হজযাত্রীর অনিশ্চয়তা কাটেনি

১৪ জানুয়ারি সউদী-বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিক হজ চুক্তি

শামসুল ইসলাম | প্রকাশের সময় : ১০ জানুয়ারি, ২০১৮, ১২:০০ এএম

সউদী মুয়াসসাসাহ’র শো’কজ প্রাপ্ত ৪৬ টি বৈধ হজ এজেন্সি’র নিবন্ধিত হজযাত্রীদের চলতি বছর হজে যাওয়ার অনিশ্চয়তার বিষয়টি এখনো কাটেনি।
আগামী ১৪ জানুয়ারী জেদ্দায় সউদ-বাংলাদেশ দ্বি-পাক্ষিক হজ চুক্তি (১৪৩৯ হিযরী) সম্পাদিত হবে। দ্বি-পাক্ষিক হজ চুক্তিতে স্বাক্ষর করার জন্য ধর্ম মন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমানের নেতৃত্বে ৬ সদস্য প্রতিনিধি দল আগামী ১২ জানুয়ারী সউদী আরবের উদ্দেশ্যে ঢাকাত্যাগ করবেন। বাংলাদেশী হজযাত্রীগণ যাতে অত্যান্ত সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে আগামী হজ পালন করতে পারেন দ্বি-পাক্ষিক হজ চুক্তিতে এ বিষয়টি প্রাধান্য পাবে। ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব মো: আনিছুর রহমান এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। প্রতিনিধি দলের অন্যান্য সদস্যরা হচ্ছে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব মো: আনিছুর রহমান, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব গোলাম ফারুক, ধর্ম মন্ত্রণালয়ের যুগ্ন-সচিব (হজ) মো: হাফিজ উদ্দিন, হাবের মহাসচিব মো: শাহাদাত হোসাইন তসলিম ও ধর্ম মন্ত্রী’র ব্যক্তিগত কর্মকর্তা আবু সাঈদ। সউদী আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ ও জেদ্দাস্থ কনসাল জেনারেলও হজ চুক্তি প্রতিনিধি দলে অর্ন্তভূক্ত হবেন।
২০১৭ সালের হজে উল্লেখিত হজ এজেন্সিগুলোর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগের দরুণ শো’কজ নোটিশ জারি করে মুয়াসসাসাহ কর্তৃপক্ষ। শো’কজ প্রাপ্ত হজ এজেন্সিগুলো এক মাস আগেই এসব খুঁটি-নাটি বিষয়ে অভিযোগের জবাব পাঠিয়েছে সউদী মুয়াসসাসাহ’র কাছে। কিন্ত অদ্যাবধি শো’কজ প্রাপ্ত হজ এজেন্সিগুলো মুয়াসসাসাহ থেকে অবমুক্ত না হওয়ায় এসব হজ এজেন্সিগুলোর হজযাত্রীগণ চলতি বছর হজে যেতে পারবেন কি না তা’এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। নিবন্ধিত এসব হজযাত্রীগণ চরম উৎকন্ঠায় দিন কাটাচ্ছেন। ধর্ম মন্ত্রণালয়ের যুগ্ন-সচিব (হজ) মো: হাফিজ উদ্দিন গতকাল তার দপ্তরে ইনকিলাবকে বলেন, সউদী মুয়াসসাসাহ থেকে শো’কজ প্রাপ্ত হজ এজেন্সিগুলো যে পর্যন্ত অবমুক্ত না হবে ততক্ষণ পর্যন্ত তারা হজের কার্যক্রমে অংশ নিতে পারবে না। এছাড়া ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে প্রকাশিত বৈধ হজ এজেন্সি’র তালিকায়ও আপাতত তাদের নাম থাকবে না। সউদী মুয়াসসাসাহ থেকে ক্লিয়ারেন্স পাওয়া গেলেই এসব হজ এজেন্সিগুলো চলতি বছর হজের কার্যক্রমে অংশ নিতে পারবে। হাবের মহাসচিব মো: শাহাদাত হোসাইন তসলিম মুয়াসসাসাহ থেকে শো’কজ প্রাপ্ত হজ এজেন্সিগুলো সর্ম্পকে বলেন, উল্লেখিত হজ এজেন্সিগুলো’র বিরুদ্ধে গুরুতর কোনো অভিযোগ নেই। ছোট-খাঁটো বিষয়ে তাদেরকে শো’কজ করা হয়েছে। এসব শো’কজের জবাবও হজ এজেন্সিগুলো দিয়েছে। কিন্ত মুয়াসসাসাহ এখনো তাদের সর্ম্পকে কোনো সিদ্ধান্ত জানায়নি। তিনি বলেন, আগামী ১৪ জানুয়ারী দ্বি-পাক্ষিক হজ চুক্তির’ প্রতিনিধি দলের সদস্য হিসেবে আমি সউদী আরবে যাবো। ঐ সময়ে সউদী মুয়াসসাসাহ কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে এসব হজ এজেন্সি’র অবমুক্তির বিষয়ে অনুরোধ জানাবো। এক প্রশ্নের জবাবে হাব মহাসচিব তসলিম বলেন, আসন্ন দ্বি-পাক্ষিক হজ চুক্তির প্রাক্কালে আমরা হজযাত্রীর কোটা দেড় লাখ চাইবো। গত বছরের ন্যায় সউদী মুয়াল্লেমগুলো যাতে বাংলাদেশী হাজীদের বাস, খাবার, তাবুসহ অন্যান্য সুযোগ সুবিধা দেয়ার ক্ষেত্রে আর কষ্ট না দেয় সে বিষয়টি জোড়ালোভাবে তুলে ধরা হবে। হাব মহাসচিব বলেন, আগামী হজ মৌসুমে যাতে বিমানের হজ ফ্লাইটের শ্লট বাতিল করতে না হয় সেভাবে শ্লট বরাদ্দের বিষয়টিও সউদী কর্তৃপক্ষের কাছে উত্থাপন করা হবে। সম্প্রতি ঢাকাস্থ সউদী দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত একটি টিভি চ্যানেলে বাংলাদেশের হজযাত্রী কোটা ১০% বৃদ্ধি করা হবে বলে আভাস দিয়েছেন। ধর্ম মন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিকনির্দেশনায় সুষ্ঠু ও সুন্দর হজ ব্যবস্থাপনার কার্যক্রম এগিয়ে চলছে। ধর্ম মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটি’র সভাপতি ও সউদী-বাংলাদেশ সংসদীয় মৈত্রী গ্রæপের চেয়ারম্যান বজলুল হক হারুন এমপি রাতে ইনকিলাবকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে চলছে। হজযাত্রীর সংখ্যা প্রতি বছরই বাড়ছে। তিনি বলেন, চলতি বছর বাংলাদেশী হজযাত্রীর কোটা বাড়বে ইনশাআল্লাহ। আল্লাহর মেহমান হজযাত্রীদের জেদ্দা বিমান বন্দরে ইমিগ্রেশন কার্যক্রম শেষ করতে ৫/৬ ঘন্টা কষ্ট করতে হয়। এ বছর ঢাকা থেকেই হজযাত্রীদের ইমিগ্রেশন সর্ম্পন্ন করার জন্য সউদী কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা হয়েছে। তিনি বলেন আমরা আশাবাদী হজযাত্রীদের ইমিগ্রেশন কার্যক্রম ঢাকা থেকেই সম্পন্ন করতে পারলে হজযাত্রীদের ভোগান্তি লাঘব হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: হজ

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ