Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ জুলাই ২০১৮, ২ শ্রাবণ ১৪২৫, ৩ যিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
শিরোনাম

তালেবান-বিরোধী অভিযানের পরিণতি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্কতা পাকিস্তানের

| প্রকাশের সময় : ১০ জানুয়ারি, ২০১৮, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : পাকিস্তান মার্কিন মধ্যস্থতাকারীদের জানিয়েছে যে, সীমান্ত এলাকার উভয় পাশে তালেবানদের বিরুদ্ধে যদি বড় ধরনের অভিযান চালানো হয়, এবং সে অভিযান যদি ব্যর্থ হয়, তাহলে এ অঞ্চলে তার গুরুতর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। কূটনৈতিক সূত্র ডনকে জানিয়েছে, তারা মনে করে যে যুক্তরাষ্ট্রের নতুন আফগান নীতি হলো তালেবানদের বিরুদ্ধে দ্বিমুখী আক্রমণ চালিয়ে তাদের পরাস্ত করা এবং তাদেরকে কাবুলের শর্ত মেনে সমঝোতায় আসতে বাধ্য করা। আমেরিকান যুক্তির সাথে খুব একটা পার্থক্য নেই পাকিস্তানের। কিন্তু তাদের একটা উদ্বেগ রয়েছে। সেটা হলো, অভিযান ব্যর্থ হলে কি হবে? নতুন কৌশল ব্যাখ্যা করতে গিয়ে মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেমস ম্যাট্টিস বলেছেন, দক্ষিণ এশিয়া নীতি নিয়ে আমরা পাকিস্তানের সঙ্গে কাজ করছি। সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে এভাবেই আমরা কাজ করি। স¤প্রতি তিনি বলেন, এ নীতি পুরো দক্ষিণ এশিয়ার জন্যই প্রযোজ্য। পাকিস্তানী কর্মকর্তা যারা যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তাদের সঙ্গে এ সব বিষয়ে কথা বলেছেন, তারা বলেছেন, তাদেরও যুক্তরাষ্ট্রের মতো একই লক্ষ্য- এ অঞ্চল, বিশেষ করে আফগানিস্তানকে জঙ্গিমুক্ত করা। তারা বলেছেন, পাকিস্তানের মতো আর কোন দেশই জঙ্গিদের কারণে এত ভুক্তভোগী হয়নি। আর অন্য কোন দেশও পাকিস্তানের মতো জঙ্গিবিরোধী অভিযানে এত সাফল্যও পায়নি। এই দুটো বিষয়ের স্বীকৃতি দিলেও ম্যাট্টিস পেন্টাগনে তার ব্রিফিংয়ে আফগান তালেবানদের পরাস্ত করার জন্য মার্কিনীদের সহযোগিতা করার জন্য ইসলামাবাদের প্রতি আহ্বান জানান। সেই সাথে হাক্কানি নেটওয়ার্কের কথা উল্লেখ করে ম্যাট্টিস বলেন, এরা পাকিস্তানে নিরাপদ অবস্থান থেকে সংগঠিত হয়ে আফগানিস্তানে হামলা চালাচ্ছে। তিনি বলেন, ন্যাটোর কোয়ালিশান ফোর্সের সমস্ত সেনাদের তুলনায় পাকিস্তান এককভাবে অনেক বেশি সেনা হারিয়েছে। তবে আমাদের মধ্যে মতভেদ রয়েছে। কিছু বিষয়ে শক্ত মতভেদ রয়েছে। এগুলো কাটিয়ে উঠতে আমরা কাজ করছি। এ যুদ্ধে জেতার জন্য পাকিস্তানের সাথে যুক্তরাষ্ট্র ব্যক্তিগত পর্যায়ে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। হাক্কানি নেটওয়ার্ককে নিরাপদে তৎপরতা চালানোর সুযোগ করে দেয়া হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের এমন অভিযোগ অস্বীকারের পাশাপাশি পাকিস্তান সত্যিকার অর্থে যেটা জানতে চায়, সেটা হলো তালেবানদের কিভাবে পরাস্ত করবে যুক্তরাষ্ট্র। তাদের আশঙ্কা হলো, তালেবানদের সঙ্গে প্রথমে কোন ধরনের আলোচনার চেষ্টা না করে সরাসরি তাদের বিরুদ্ধে সামরিক অভিযানে গেলে হিতে বিপরীত হতে পারে। এ অভিযানেও টিকে যেতে পারে তালেবানরা। পাহাড়ি এলাকায় লুকিয়ে তারা এ যাত্রাতেও পার পেয়ে যেতে পারে, যেভাবে তারা অতীতে টিকে গেছে। ডন নিউজ।



 

Show all comments
  • নাঈম ১০ জানুয়ারি, ২০১৮, ২:২১ এএম says : 0
    এবার যুক্তরাষ্ট্রর এই অঞ্চল থেকে বিতাড়িত হওয়ার সময় এসেছে
    Total Reply(0) Reply
  • alim ১০ জানুয়ারি, ২০১৮, ৩:৫০ এএম says : 0
    “ রাশিয়ার কথা গিয়েছিলে ভুলে, তাইতো এখন চড়বে শূলে,খেয়েছো আজ এমন ধরা, ভিয়েতনামের চেয়েও আফগানী সেরা৷কাজে আসবেনা কোন চুক্তি, মরন ছাড়া নাই মুক্তি ৷”
    Total Reply(0) Reply
  • ১০ জানুয়ারি, ২০১৮, ৫:০৩ পিএম says : 0
    ফাঁটা বাঁশের চিপায় পরছে
    Total Reply(0) Reply
  • মাহফুজ ১২ জানুয়ারি, ২০১৮, ৭:২০ এএম says : 0
    আমেরিকা সরে গেলেই সমস্যার ৮০ ভাগ সমাধান হবে। এটা আমেরিকা সহ সবাই জানে কিন্তু কেহ বলে না।মূলত অনেকে তো সমস্যার সমাধানই চায় না।
    Total Reply(0) Reply
  • lutfur rahman ১৫ জানুয়ারি, ২০১৮, ৮:৪৩ এএম says : 0
    নিজেদের জালেই আটকা পরেছে
    Total Reply(0) Reply
  • lutfur rahman ১৫ জানুয়ারি, ২০১৮, ৮:৫৪ এএম says : 0
    পাপ বাপরে ছাড়ে না
    Total Reply(0) Reply
  • abunoem ১৬ জানুয়ারি, ২০১৮, ৭:২৬ এএম says : 0
    amerekake jaga dewa he kototuku karap ta akin buja jabe
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর