Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ জুলাই ২০১৮, ২ শ্রাবণ ১৪২৫, ৩ যিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
শিরোনাম

অনশনে ইবতেদায়ি মাদরাসার ১০৬ জন শিক্ষক অসুস্থ

| প্রকাশের সময় : ১৩ জানুয়ারি, ২০১৮, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : চাকরি জাতীয়করণের দাবিতে ঢাকার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে শুক্রবার চতুর্থ দিনের মতো অনশন করছেন ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষকরা। অনশনের চার দিনে ১০৬ জন শিক্ষক অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বলে দাবি স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষক সমিতির।
গতকাল শুক্রবার সংগঠনটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, বর্তমানে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে সাতজন শিক্ষক চিকিৎসাধীন আছেন। অনশনস্থলে অসুস্থ হয়ে পড়ায় স্যালাইন দেয়া আছে ১৮ জনকে। এর বাইরে সুস্থ হওয়ায় ঢামেক থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে তিনজনকে। বাকিরা অসুস্থতার কারণে চিকিৎসা নিচ্ছেন।
গত ৯ জানুয়ারি দুপুর ১২টা থেকে চাকরি জাতীয়করণের দাবিতে অনশন শুরু করেন ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষকরা। এখন পর্যন্ত সরকারের পক্ষ থেকে কোনো আশ্বাস পাননি তারা। স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষক সমিতির সভাপতি কাজী রুহুল আমিন সাংবাদিকদের জানান, চাকরি জাতীয়করণের ঘোষণা না আসা পর্যন্ত অনশন চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা। তিনি বলেন, ৩৪ বছর বিনাবেতনে চাকরি করে যাচ্ছি। আমাদেরও পরিবার আর ছেলেমেয়ে আছে। এখন আর পারছি না। আমরা যে মানবেতর জীবনযাপন করছি, সরকার কি সেই খোঁজ নিয়েছে? সরকারকে আমাদের চাকরি জাতীয়করণ করতে হবে, না হয় মেরে ফেলতে হবে। অনশনরত শিক্ষকরা বলছেন, ইবতেদায়ি মাদরাসার সব কার্যক্রম প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মতো হলেও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা বেতন-ভাতা পেলেও ইবতেদায়ি মাদরাসার শিক্ষকরা তেমন কিছুই পান না। দিন দিন বাসা বাড়া থেকে শুরু করে নিত্যপণ্যসহ সবকিছুর দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাহলে আমরা কীভাবে বাঁচব?’ সংগঠনের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ১৯৯৪ সাল থেকে একই পরিপত্রে নিবন্ধিত বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসার শিক্ষকদের বেতন ৫০০ টাকা করা হয়। এরপর বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধি পায় ধাপে ধাপে। ২০১৩ সালে ৯ জানুয়ারি মহাজোট সরকার ২৬ হাজার ১৯৩টি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ করে। কিন্তু স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসার শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধি কিংবা জাতীয়করণ কোনোটিই হয়নি।



 

Show all comments
  • মোঃ আব্দুল গাফফার ১৩ জানুয়ারি, ২০১৮, ১১:০১ এএম says : 0
    ইবতেদায়ী শিক্ষকদের ন্যায্য দাবীর একটা ফয়সালা বর্তমান সরকারই করতে পারেন্ এবং তার পুরস্কারও তারা আশা করতে পারেন আগামীর নির্বাচনে। যা ইতিপূর্বেকার 4 দলীয় জোট সরকার করতে ব্যর্থ্ হয়েছে।
    Total Reply(0) Reply
  • Md Mahfuz ১৩ জানুয়ারি, ২০১৮, ৪:২৬ পিএম says : 0
    সরকার কি এদেরকে কি দেখেনা
    Total Reply(0) Reply
  • MD Mizanur Rahman ১৩ জানুয়ারি, ২০১৮, ১:১২ পিএম says : 0
    দাবী মেনে নেওয়া হোক।
    Total Reply(0) Reply
  • Nesar Ahmed ১৩ জানুয়ারি, ২০১৮, ৪:২২ পিএম says : 0
    মাদ্রাসা বলে কথা...! বাংলাদেশে সবচেয়ে অবহেলিত, উপেক্ষিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হচ্ছে মাদ্রাসা...।
    Total Reply(0) Reply
  • Jamal ১৩ জানুয়ারি, ২০১৮, ৪:২৩ পিএম says : 0
    ইয়া আল্লাহ তুমি এই শিক্ষকদের প্রতি রহম করো।
    Total Reply(0) Reply
  • Md Belal Hossain ১৩ জানুয়ারি, ২০১৮, ৪:২৩ পিএম says : 0
    তাদের দাবী সরকারের মেনে নেওয়া উচিত।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ