Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৮, ৪ কার্তিক ১৪২৫, ০৮ সফর ১৪৪০ হিজরী

তিন বছরে বিদ্যুতে বিনিয়োগ ১৫ বিলিয়ন ডলার

ইপিআরসি ও বিবিএসের জরিপের প্রতিবেদশ প্রকাশ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৩ জানুয়ারি, ২০১৮, ১:৩০ এএম

আগামী তিন বছরে নতুন নতুন বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনে ১৫ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করা হয়েছে। গত ৯ বছরে বিদ্যুৎ উৎপাদনে ৮ দশমিক ৯ বিলিয়ন ডলারের যে বিনিয়োগ হয়েছে, তা সরকারি বেসরকারি উভয় খাত থেকেই হয়েছে। নতুন নতুন বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোতেও তাই হবে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব ড. আহমদ কায়কাউস।
গতকাল সোমবার বিকালে বিদ্যুৎভবনে আয়োজিত বাংলাদেশ জ্বালানি ও বিদ্যুৎ গবেষণা কাউন্সিল (ইপিআরসি) এর সহযোগিতায় বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) পরিচালিত বিদ্যুৎ সরবরাহ বিষয়ক জনমত জরিপের প্রতিবেদন প্রকাশকালে এতথ্য তুলে ধরেন বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব ড. আহমদ কায়কাউস। সচিব জানান,ভিশন ২০২১ অর্জনের জন্য বিদ্যুৎ বিভাগকে ২৪ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের যে লক্ষ্য দেওয়া হয়েছিল, তার চেয়ে আরো দুই হাজার মেগাওয়াট বেশি উৎপাদনের লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার। তিনি বলেন, এইসব প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে ২০২১ সালের মধ্যে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়ার ব্যাপারে সরকারের করা ওয়াদা পূরণ হবে। বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব বলেন, ২০১৮-১৯ সালের মধ্যে জাতীয় গ্রিডে আরো চার হাজার ৪২৭ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ যুক্ত হবে। নতুন ২০টি বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে এই বাড়তি বিদ্যুৎ আসবে। গত ৯ বছরে বিদ্যুৎ উৎপাদনে ৮ দশমিক ৯ বিলিয়ন ডলারের যে বিনিয়োগ হয়েছে, তা সরকারি বেসরকারি উভয় খাত থেকেই হয়েছে। নতুন নতুন বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোতেও তাই হবে। সচিব বলেন, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের জন্মলগ্নে দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতা ছিলো ৫৫০ মেগাওয়াট। সেখানে উৎপাদন হতো মাত্র ২২৯ মেগাওয়াট। ২০০৯ সালে বর্তমান সরকার ক্ষমতা গ্রহণের আগ পর্যন্ত দেশের বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোর উৎপাদন সক্ষমতা ছিলো মাত্র চার হাজার ১৩০ মেগাওয়াট। বর্তমানে ক্যাপটিভসহ দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদনের মোট সক্ষমতা ৬ হাজার ৪৬ মেগাওয়াট। যা থেকে সর্বোচ্চ উৎপাদন হয়েছে ৯ হাজার ৫০৭ মেগাওয়াট। কেবল পল্লীবিদ্যুতের গ্রাহক সংখ্যাই দুই কোটি ছাড়িয়ে গেছে। দেশের প্রায় ৯০ ভাগ মানুষই এখন বিদ্যুৎসেবার আওতায় এসেগেছে। জরিপের প্রতিবেদনে বলা হয়. দেশে সামগ্রিক ১১ দশমিক ২ ভাগ মানুষ বিদ্যুৎ সরবরাহের ব্যাপারে খুবই সন্তুষ্ট। ৪৫ দশমিক ৮ ভাগ মানুষ সন্তুষ্ট। ২৯ দশমিক ৯ ভাগ মানুষ মোটামুটি সন্তুষ্ট। আর ১৩ দশমিক ১ ভাগ মানুষ মোটেও সন্তুষ্ট নয়।
###

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ