Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫, ১৫ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

ধা রা বা হি ক মসনবী শরীফ

| প্রকাশের সময় : ২৬ জানুয়ারি, ২০১৮, ১২:০০ এএম

মাওলানা জালাল উদ্দীন রূমী রহ.
কাব্যানুবাদ : রূহুল আমীন খান
৪২৯. বাদশা তখন উদ্দেশে তার দক্ষ দু’জন দূত পাঠান
যারা সুজন সুবিজ্ঞ ও আস্থাভাজন নিষ্ঠাবান।

৪৩০. পৌঁছল সমরখন্দে তারা স্বর্ণকারের বসতঘর
জানিয়ে দিল নিকটে তার রাজকীয় সে খোশ্্খবর।

৪৩১. বলল, তুমি এমন গুণী দক্ষ নিপুণ স্বর্ণকার
ছড়িয়েগেছে দেশ-বিদেশে খ্যাতি ও সুনাম তোমার।

৪৩২. তোমার যশঃকীর্তি শুনে মোদের দেশের শাহানশার
জেগেছে এই ইচ্ছে মনে দিবেন তোমায় পুরষ্কার।

৪৩৩. এখন তুমি গ্রহণ করো রজত কনক খেলাত আর
রাজ-সমীপে পৌঁছলে হবে খাস সভাষদ রাজসভার।

৪৩৪. পেয়ে বিপুল বিত্ত, লোভে অন্ধ হলো দৃষ্টি তার
চলল সেথা, চলল ছেড়ে বন্ধু স্বজন নিজ শহর।

৪৩৫. চলল ধেয়ে দূতের সনে চিত্তে খুশীর বইছে বান
জানে না সে, বাদশা শেষে করবে হরণ তার যে জান।

৪৩৬. আরবী তাজী অশ্বে চেপে হচ্ছে বেগে রাস্তা পার
জানে না সে, মৃত্যুকেই ভাবছে খেলাত পুরষ্কার।

৪৩৭. ভাবছে, পাবো রাজসভাতে উচ্চ আসন গৌরবের
কন আজ্রাইল, যাও এগিয়ে, ফল পাবেই এই লোভের।

৪৩৮. সফর শেষে পৌঁছল গিয়ে রাজধানীতে স্বর্ণকার
উচ্ছ¡াসিত হৃদ-মাঝে তার স্বপন নাচে উচ্চাশার।

৪৩৯. বিজ্ঞ হাকিম নিয়ে গেলেন সামনে তাকে স¤্রাটের
জ্বালাতে ওই পতঙ্গকে দীপ্ত শিখায় প্রদীপের।

৪৪০. বাদশা তাকে দিলেন অনেক মর্যাদা ও সম্মান, আর
শাহান্শাহী স্বর্ণাগারও দিলেন সপে হস্তে তার।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।