Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ২৫ মে ২০১৮, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ৮ রমজান ১৪৩৯ হিজরী
শিরোনাম

যুক্তরাষ্ট্রের লক্ষ্য অর্থনৈতিক সম্পদ দখল : রাশিয়া

সিরিয়ায় বড় যুদ্ধের আশঙ্কা নাকচ মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রীর

| প্রকাশের সময় : ১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, সিরিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের মূল লক্ষ্য ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বিরুদ্ধে লড়াই নয়, অর্থনৈতিক সম্পদ দখল করা। গত বৃহস্পতিবার রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এই দাবি করে। অপরদিকে বিমান হামলায় আসাদপন্থী শতাধিক সেনা নিহত হওয়ার পর সিরিয়ায় যুদ্ধ বিস্তৃত করার পরিকল্পনা নাকচ করে দিয়েছেন মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেমস ম্যাটিস। মার্কিন কংগ্রেসের সিনেট কমিটিতে সিরিয়ায় যুদ্ধ বিস্তৃতির আশঙ্কা প্রকাশের পর প্রতিরক্ষা দফতর পেন্টাগনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ম্যাটিস বলেছেন, ইউফ্রেতিস নদীর তীরবর্তী অঞ্চলে ওই হামলা ছিল আত্মরক্ষামূলক। মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় আরও জানায়, সিরীয় জঙ্গিদের উপর মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোটের হামলার বিষয়ে রাশিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। বুধবার আসাদপন্থী সেনাদের ওপর হামলার খবর স্বীকার করে যুক্তরাষ্ট্র। বৃহস্পতিবার সিরিয়ার পূর্বাঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্র ও দেশটির সমর্থিত সিরীয় বিদ্রোহীদের এক রাতের হামলায় দেশটির প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদপন্থী শতাধিক সেনা নিহত হয়েছেন জানিয়েছেন এক মার্কিন কর্মকর্তা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কর্মকর্তা জানান, নিহতের এই সংখ্যা প্রমাণ করে হামলাটি অনেক বড় ছিল। প্রায় ৫০০ বিরোধী সেনা আর্টিলারি, ট্যাংক, একাধিক রকেট লঞ্চার ও মর্টার নিয়ে এই হামলা চালায়। হামলাকারীদের পরিচয় সম্পর্কে যুক্তরাষ্ট্র বা মার্কিন সমর্থিত জোটের পক্ষ থেকে বিস্তারিত কিছু জানানো হয়নি। তবে দ্য সিরিয়ান আর্মি নামের সেনাদের সমর্থন দিচ্ছে ইরানি মিলিশিয়া ও রুশ বাহিনী। খবরে বলা হয়, আট বছরেরও বেশি সময় ধরে চলছে সিরিয়ার গৃহযুদ্ধ। আসাদ সরকারের সমর্থনে সেখানে হামলা চালাচ্ছে রাশিয়া আর বিদ্রোহীদের সমর্থন দিচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও তাদের মিত্ররা। এই যুদ্ধে লাখ লাখ মানুষের প্রাণহানির পাশপাশি বাস্তুচ্যুত হয়ে শরণার্থী জীবন বেছে নিতে বাধ্য হয়েছেন ১১ লাখেরও বেশি মানুষ। গত বৃহস্পতিবার মার্কিন সমর্থিত সিরিয়ান ডেমোক্রাটিক ফোর্সের হামলায় তেল সমৃদ্ধ পূর্বাঞ্চলীয় এলাকায় আসাদপন্থী শতাধিক সেনা নিহত হয়। এর জবাবে সিরিয়ার পূর্ব ঘৌটায় প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ অনুগত বাহিনী বিমান হামলা জোরদার করে। ওই হামলায় অন্তত ৫৪ জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। এমন প্রেক্ষাপটে মার্কিন কংগ্রেসের সিনেট কমিটির বৈদেশিক সম্পর্ক ও সামরিক পর্যবেক্ষণ কমিটির সভায় সিনেটর টেম কেইন বলেন, সাম্প্রতিক এই হামলা সিরিয়ায় মার্কিন বাহিনীর দীর্ঘমেয়াদী উপস্থিতির বিষয়ে উদ্বেগ বাড়িয়েছে। তবে পেন্টাগনে সাংবাদিকদের করা এ সংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে ওই হামলাকে আত্মরক্ষামূলক উল্লেখ করে ম্যাটিস বলেন, ‘যদি আমরা বৃহত্তর কোনও সংঘাতে জড়াতাম তাহলে এটা আমাদের দিক থেকে নেওয়া কোনও পদক্ষেপ হতো।’ সিরিয়া ও ইরাকে আইএসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার জন্য ২০১৪ সালে মার্কিন জোট গঠিত গয়। গত বছর ইসলামিক স্টেটের বড় অংশকে পরাজিত করার পর সিরিয়ায় এখনও দুই হাজারের বেশি মার্কিন সেনা রয়েছে। ইন্টারফেক্স, রয়টার্স।

 

 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ