Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ৫ রবিউস সানী ১৪৪০ হিজরী

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

| প্রকাশের সময় : ২ মার্চ, ২০১৮, ১২:০০ এএম

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর মহাসচিব অধ্যক্ষ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ বলেছেন, দেশে প্রতিহিংসার রাজনীতি চলছে। হিংসা-বিদ্বেষের রাজনীতি পরিহার করে সকলকে ইসলামে ফিরে আসতে হবে। প্রতিহিংসার রাজনীতি দিন দিন অশান্তি সৃষ্টি করে। পক্ষান্তরে ইসলামী রাজনীতি সবসময় শান্তির পক্ষে। ইসলামী নেতৃত্বকে কখনো অশান্তি গ্রাস করতে পারে না। ইসলাম সকল ধর্ম, গোষ্ঠী, জাতি দলমত নির্বিশেষে মানুষের কল্যাণে নিবেদিত। ইসলামী আন্দোলন রাজনীতি করে ইবাদত হিসেবে। এখানে নিজের স্বার্থের চেয়ে মানবতার কল্যাণ সর্বাগ্রে। তিনি বলেন, দুর্নীতিবাজ, চরিত্রহীন লুটেরা নেতানেত্রীদের আনুগত্য পরিহার করে ফিরে আসতে হবে আল­াহর রাসূল সা.এর তরিকায়; আপোসহীন আদর্শিক ধারায়।
আজ বিকেলে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ দাওয়াতী মাস পর্যালোচনা এক সভায় সভাপতির বক্তব্যে একথা বলেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের রাজনৈতিক উপদেষ্টা অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন, যুগ্ম মহাসচিব অধ্যাপক মাওলানা এটিএম হেমায়েত উদ্দিন, প্রকৌশলী আশরাফুল আলম, মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, মাওলানা লোকমান হোসাইন জাফরী, শায়খুল হাদীষ মাওলানা মকবুল হোসাইন, আলহাজ্ব হারুন অর রশিদ, মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন।
তিনি বলেন, প্রচলিত শাসন ব্যবস্থার অসারতা এবং ইসলামী শাসনের অনিবার্যতা তুলে ধরে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর দাওয়াত সারাদেশের প্রতিটি ঘরে প্রতিটি মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে এ কর্মসুচি গ্রহণ করা হয়েছে।
নেতৃবৃন্দ বলেন, ইসলামের সুমহান আদর্শকে বাদ দিয়ে সমাজ ও রাষ্ট্র জীবনে পুঁজিবাদী গণতন্ত্র, নাস্তিক্যবাদী সমাজতন্ত্র এবং অসার ধর্মনিরপেক্ষতাবাদী আদর্শ গ্রহণ করায় সর্বত্র অশান্তিও আগুন জ্বলছে। এ সব মতাদর্শ দ্বারা মানবতার কল্যাণ সম্ভব নয়। ইসলাম একটি পর্ণাঙ্গ জীবন আদর্শ। ইসলাম ছাড়া মানবতার শান্তি ও মুক্তি সম্ভব নয়। দেশের সর্বস্তরের জনতাকে ইসলামের সুমহান আদর্শে ফিরে আসার আহ্বান জানান। এদিকে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ কুমিল্লা বাঙ্গরা বাজার থানার ৭নং পশ্চিম বাঙ্গরা ইউনিয়ন শাখার এক দাওয়াতী সভা গতকাল সকালে আলহাজ্ব মনির হোসেন মোল্লার সভাপতিত্বে স্থানীয় একটি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন কুমিল্লা-৩ নির্বাচনী এলাকার পীর সাহেব চরমোনাই মনোনীত প্রার্থী মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ছাত্রনেতা শরীফুল ইসলাম ও হাফেজ ফয়সাল আহমদ প্রমুখ।
-প্রেস বিজ্ঞপ্তি।



 

Show all comments
  • গণতন্ত্র ২ মার্চ, ২০১৮, ৪:০৫ এএম says : 0
    " পৃথিবীর দুয়ারে " চাকায় পিষ্টে,খুন-হত্যা, মিথ্যে বানোয়াট বন্ধুক যুদ্বে রক্ষিত নিরাপদ আশ্রয়ে নিঃশংস ভাবে মরছে কোন অপরাধে; ফাঁসিতে ঝুলছে,আগুনে জ্বলছে,ন্যায়ের দাবিতে বুলেট খিলছে মিডিয়ার তুলিতে অঙ্কিত মিথ্যে, আজ বিশ্বাস নিয়েছে কেড়ে, কামনায় আসন, মানুষ হনন, হৃদয়ে হলির উৎসব পালন করে।। কিয়ামত কি এসে গেছে পৃথিবীর দুয়ারে ? একেতে চার, যাবার পালা আমাদের আসে বার বার অতীতের আভাষবানী, ফলিত হচ্ছে চুপি চুপি অজ্ঞাতসারে; রংঙিন শাড়ীর চাহিদায় কেন, পড়ে গেছে এত ধ্স সাদা কাপড়ের অভাব মিটছেনা, শহড়-বন্দর, বাজারে, নাই হুশ, সব বেহুশ সম্পদের পাহাড় বানানোর তরে।। কিয়ামত কি এসে গেছে পৃথিবীর দুয়ারে ? পৌঁছতে গিয়ে সভ্যতা নামিয় পর্বত শৃঙ্গে ছিটকে কি পড়ে যাইনি, লুত সম্প্রদায় আবার; রাজ পথে সাজ-সজ্জায় সমকামিতার আনন্দ মিশিল সর্ব পর্যায়ের মানুষের ঢল, আনন্দের স্রোতে ভেসে যায়, হায়রে সভ্যতা!বর্বরতা সাথে তোমার অমিল রহিল কোথায়রে।। কিয়ামত কি এসে গেছে পৃথিবীর দুয়ারে ? বাবা-মা হারিয়ে কেউ নিরবে-নিভৃতে ফেলে অশ্রু জল কেউ আবার সম্পদ আত্মসাদে বাঁধে নূতন-নূতন দল; সাড়ে তিন হাত মাটির নীচে চাপা দিয়ে এসেছো কি সবর পশুর মত ব্যবহারে মোদ্দারের কাঁন্নায় কবর কাঁপে থর্ থর, নাই কবর জিয়ারত,মরা পশু কি ফেলে এসিছি শুকুনের তরে।। কিয়ামত কি এসে গেছে পৃথিবীর দুয়ারে ? আগে ত আকাশকে এমন রুপ ধারন করতে কখনও দেখিনি প্রায়ই কাঁকের পালকের রংঙে রঙিয়ে যায় কেন আকাশটায়; ঘন ঘন বিদ্যু চমকানো, সিংহের ন্যায় করে উঠে গর্জন-তর্জন চাহিলে বেহেস্ত, না হতে সময় শেষ, করো সব খারাপ বর্জন, ধনীরা কি নেয় সোনার পালঙ্ক,গরীব কি যায় বিনা কাপড় কবরে।। কিয়ামত কি এসে গেছে পৃথিবীর দুয়ারে ? সোনামী নামীয় মহা-প্লাবনে সব কিছু সাগরের মুখে দিয়েছ তুলি মালোয়েশিয়া,ইন্দোনেশিয়া,ফিলিপিনের অনেক ভূ-খন্ড নিয়েছো গিলি; পুড়িয়ে দিয়েছো লাখো হেক্টর,প্লাবিত শষ্য ভূমি হাতেতে ভিক্ষের ঝুলি মানুষ-পশুর মর দেহের মিশ্রনে বানিয়ছো প্রাণীর কাবাব হাইতি এবং চিলি, লাখো লাখো শিশু হয়েছে এতিম,কে লালন-পালন করিবে তাহাদেরে।। কিয়ামত কি এসে গেছে পৃথিবীর দুয়ারে ? মানুষ মারার অস্র আবিষ্কারে, বাজেট অফুরন্ত ডলার এতে আপত্বি করার এ সময় আছে বলো কার; জিনিসের কেমনে থাকবে স্হিতি,স্বজনপ্রীতি,ভোগ-বিলাস অভিপ্রায় যার ক্যান্সার,ডায়োবেটিক,হৃদরোগে,বিনা-চিকিৎসায় শ্বাস আমাদের হচ্ছে বার, স্মরন করাচ্ছি নেতা-নেত্রী সবারে,সারা-জীবন কি থাকিবেন মাটির উপরে।। কিয়ামত কি এসে গেছে পৃথিবীর দুয়ারে ? পুড়াচ্ছি গ্যাস প্রয়োজনীয় চাহিদার কারনে,কাঁটছি গাছ কারনে-অকারনে বাড়ছে পৃথিবীর তাপমাত্রা,তাই ভুগছি প্রাকৃতিক দুর্যোগে জানে বলো ক’জনে; সাগর হচ্ছে প্রশস্ত,বরফের পাহাড় গলে হয়ে পানি আয়তনে কমছে ভূমি,ভূ-পৃষ্টে খাবারের টানা-টানি,চলছে খুন-খারাবি,রাহাজানি, ডুবছে লঞ্চ,সৃষ্ট হচ্ছে হাট-বাজার,গঞ্জ-ভারসাম্যতার চেয়ে, মানুষ গিয়েছে বেড়ে।। কিয়ামত কি এসে গেছে পৃথিবীর দুয়ারে ?
    Total Reply(1) Reply
    • Masud ৮ মার্চ, ২০১৮, ১১:১৮ এএম says : 0
      Matters are to be think...........Allah Hefazot Karun........Amen

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর