Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮, ০৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

নিখোঁজ বাবা-মেয়েকে ঘিরে স্বজনদের উদ্বেগ বেড়েই চলছে

বিধ্বস্ত বিমানে থাকা শ্রীপুরের ৫

| প্রকাশের সময় : ১৪ মার্চ, ২০১৮, ১২:০০ এএম

শ্রীপুর (গাজীপুর) উপজেলা সংবাদদাতা : নেপালে ত্রিভুবন বিমান বন্দরে গত সোমবার দুপুরে বিধ্বস্ত হওয়া ইউএস-বাংলার বিমানে ছিলেন গাজীপুরের শ্রীপুরের নগর হাওলা গ্রামের ফারুক হোসেন প্রিয়ক ও মেহেদী হাসান দম্পতির পাঁচ সদস্য। সবশেষ তথ্যমতে তিনজনের বেঁচে থাকার কথা নিশ্চিত হলেও ফারুক হোসেন ও তাঁর তিন বছর বয়সী কন্যা প্রিয়ংময়ী তামাররা’র এখন পর্যন্ত কোন খোঁজ মেলেনি। কি ঘটেছে তাদের ভাগ্যে, এখনও তা জানতে পারেননি পরিবারের একমাত্র বেঁচে থাকা সদস্য ফারুকের মা ফিরোজা বেগম। বুকের একমাত্র ধন হারানো আশংকায় বার বার মুর্ছা যাচ্ছেন তিনি। ফারুক ও তাঁর ছোট্ট কন্যার খোঁজ নিতে তাঁর স্বজন ও প্রতিবেশীরা গতকাল থেকেই ভিড় করছেন তাঁর বাড়ীতে। কেউ এসে তাকে দিচ্ছেন শান্তনা, আবার কেউ শুনাচ্ছেন আশার বাণী “ফিরে আসবে তাঁর ছেলে ও নাতনী”।
এদিকে নিখোঁজ ও আহতদের খোঁজ নিতে স্বজনরা মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টায় নেপালের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন বলে জানা গেছে। স্বজনদের মধ্যে মেহেদী হাসানের শ্বাশুড়ি সালমা বেগম, ফারুক হোসেনে বন্ধু সোহানুর রহমান সোহাগ ও মাহবুবুর রহমান রয়েছেন।
শ্রীপুর উপজেলার জৈনাবাজার এলাকার ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক লাগোয়া গুলশান স্পিনিং মিল সংলগ্ন ফারুকের দৃষ্টি নন্দন ডুপ্লেক্স বাড়ি। ফারুকের বাবা শরাফত আলী মারা গেছেন প্রায় ৫বছর হলো। শরাফত-ফিরোজা পরিবারের একমাত্র সন্তান ফারুক হোসেন। বাবা মারা যাওয়ার পর মা ফিরোজা, তাঁর স্ত্রী আলমুন নাহার এ্যানি, তাদের এক মাত্র সন্তান প্রিয়ংময়ী তামাররা নিয়েই তাদের সাজানো একটি সংসার।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ