Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২১ এপ্রিল ২০১৮, ৮ বৈশাখ ১৪২৫, ০৪ শাবান ১৪৩৯ হিজরী

দ্বিতীয় মেয়াদে চীনের প্রেসিডেন্ট হলেন শি জিন পিং

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৮ মার্চ, ২০১৮, ১২:০০ এএম

 দ্বিতীয় মেয়াদে চীনের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলেন শি জিনপিং। গতকাল দেশটির ন্যাশনাল পিপলস কংগ্রেস (এনপিসি)-এর ভোটাভুটিতে আগামী পাঁচ বছরের জন্য তাকে নির্বাচিত করা হয়। একইসঙ্গে শি জিনপিং-এর ঘনিষ্ঠ মিত্র ওয়াং কিশানকে ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করা হয়েছে। বেইজিংয়ের গ্রেট হল অব দ্য পিপলসে এ ভোটাভুটি অনুষ্ঠিত হয়। মাও সে তুং-এর পর চীনের সবচেয়ে ক্ষমতাধর নেতা শি জিনপিং-এর জন্য এই ভোটাভুটি ছিল শুধু আনুষ্ঠানিকতা মাত্র। কেননা তার ক্ষমতাকে চিরস্থায়ী করতে বা আমৃত্যু ক্ষমতায় থাকার পথ প্রশস্ত করতে গত ১১ মার্চ সংবিধান সংশোধন করে সর্বোচ্চ দুই মেয়াদ প্রেসিডেন্ট থাকার বিধান তুলে দেয় ন্যাশনাল পিপলস কংগ্রেস। গতকাল শনিবার কংগ্রেসের তিন হাজার সদস্যের মধ্যে দুই হাজার ৯৭০ জন ভোটাভুটিতে অংশ নেন। এদের কেউই শি জিনপিং-এর বিরুদ্ধে ভোট দেননি। তবে একটি ভোট কম পেয়েছেন ওয়াং কিশান। এর আগে ২০১৭ সালের অক্টোবরে চীনের ক্ষমতাসীন দল পিপলস পার্টি শি জিনপিংয়ের চিন্তাধারাকে দলীয় গঠনতন্ত্রে স্থান দেওয়ার মধ্য দিয়ে তাকে মাও সে তুংয়ের সমান মর্যাদায় আসীন করে।
২০১২ সালে প্রথম দফায় চীনের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন শি জিনপিং। তিনি দেশটির কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক।
আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে, সাধারণ সম্পাদক হওয়ার পর থেকেই শি দেশটির ইতিহাসে ধারাবাহিকভাবে আত্মপ্রত্যয়ী ও নিরঙ্কুশ কর্তৃত্ববাদী একটি যুগের সূচনা করেন।
পরাক্রমশালী দেশ হিসেবে বিশ্বের কাছে চীনের অবস্থান পাকাপোক্ত করতে তিনি সামনে থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে সফলতার পাশাপাশি ভিন্নমতাবলম্বীদের বিরুদ্ধে ব্যাপক ধরপাকড়ের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।
বিবিসির চীন প্রতিবেদক স্টিফেন ম্যাকডোনেল মনে করেন, দেশটিতে শি জিনপিংকে চ্যালেঞ্জ জানানো এখন প্রায় দুঃসাধ্য। তার ভাষায়, ‘একটি শান্তিপূর্ণ রদবদলের সংস্কৃতি মেনে প্রতি ১০ বছর পর পর নিজস্ব অভিমতের পক্ষের মানুষকে নিয়ে ক্ষমতায় নিয়ে আসাটা জরুরি। সেই প্রক্রিয়ার অবসান হলো।
দুই মেয়াদের বেশি ক্ষমতায় না থাকার সাংবিধানিক ধারা বদলে শি জিনপিং’কে নিরঙ্কুশ ক্ষমতা দেওয়া হলো। এ নিয়ে কোনও জাতীয় বিতর্কের সুযোগ নেই।’ সূত্র : বিবিসি।


কাউকে বাদ দিয়ে নির্বাচন করতে চাই না -নাসিম
স্টাফ রিপোর্টার : সংবিধান অনুযায়ি আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে জানিয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, আমরা কোনো দলকে বাদ দিয়ে নির্বাচন করতে চাই না। তবে কোনো দল যদি নির্বাচনে না আসে তাহলে আমাদের কি করার আছে? দেশের জনগণকে সাথে নিয়ে আমরা আগামী নির্বাচন করবো। নির্বাচন পরিচালনা করবে নির্বাচন কমিশন।
গতকাল শনিবার আজিমপুর এতিম খানায় দুস্থ ও এতিমদের মাঝে খাবার বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। বঙ্গবন্ধুর জš§দিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ উপ-কমিটি এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এসময় দলের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আক্তার হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
নাসিম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধিনেই আগামী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আমরা সংবিধানের বাইরে যাব না। সংবিধানের বাইরে যাবার সুযোগ নেই। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সংবিধান মেনে নির্বাচন হয়, বাংলাদেশেও ঠিক একইভাবে নির্বাচন হবে।
এদিকে একই দিন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জš§দিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল শাখা ছাত্রলীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় মোহাম্মদ নাসিম বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে বিজয়ী করতে ছাত্রলীগকে ভ্যানগার্ডের দায়িত্ব পালন করতে হবে। পাড়া-মহল­ার বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে জনগণের কাছে ভোট চাইতে হবে। জনগণকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের কথা বলতে হবে। বঙ্গবন্ধু হল শাখার সভাপতি রকিবুল ইসলামের সভাপতিত্বে এসময় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মফিজুর রহমান, ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ, সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
এছাড়াও বঙ্গবন্ধুর জš§দিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে রাজধানীর উইলিস্ লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল এন্ড কলেজ আয়োজিত আলোচনা সভায় অংশ নেন মোহাম্মদ নাসিম। স্কুল পরিচালনা পরিষদেও সভাপতি আরিফুর রহমান টিটুর সভাপতিত্বে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দিলীপ রায়, স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি মোল্লা আবু কাওছার, সাধারণ সম্পাদক পংকজ দেবনাথ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

 


দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর