Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ০৩ ভাদ্র ১৪২৬, ১৬ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

বিদায় সিজারে মালদিনি

প্রকাশের সময় : ৪ এপ্রিল, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্পোর্টস ডেস্ক : ‘বিদায় সিজারে। বিশ্ব এক মহান মানুষকে হারাল। একই সঙ্গে হারিয়ে গেল আমাদের ইতিহাসের একটি পাতাও। আপনার অভাব পূরণ হবে না।’ এই কয়েকটি বাক্যেই যেন সিজারে মালদিনির জীবনের পুরো গল্পটি বলে দেওয়া হলো। গতকাল দুপুরে চিরবিদায় বলে দিয়েছেন এই মিলান কিংবদন্তি।
বার্ধক্যজনিত কারণে ৮৪ বছর বয়েসে চলে গেলেন সিজারে। তাঁর বিদায়ে শোকাহত ইতালির ফুটবল। ইতালিয়ান ফুটবলের পরাশক্তি এসি মিলানই তাঁর অভাব বোধ করবে সবচেয়ে বেশি। তাদের টুইটার পেজেই লেখা হয়েছে এই কথাগুলো। মাত্র তিনটি বাক্যই কিন্তু সিজারে মালদিনির সবকিছু বলা হয়ে গেছে। সিজারে যে শুধু একজন মানুষ, ফুটবলার কিংবা কোচ ছিলেন না। তিনি ছিলেন এসি মিলানেরই অংশ। কিছুদিন আগেই ফুটবল বিদায় বলেছে ইয়োহান ক্রুইফকে। এবার চলে গেলেন ফুটবলের আরেক কিংবদন্তি। ক্রুইফ যতটা বার্সেলোনার সমার্থক হয়ে উঠেছিলেন, সিজারে-মিলানের সম্পর্কটা যে তার চেয়েও বেশি গভীর।
ইতালি দলে খেলেছেন, কোচ হিসেবে ইতালিকে ১৯৯৮ বিশ্বকাপেও নিয়ে গেছেন। ২০০২ বিশ্বকাপে ছিলেন প্যারাগুয়ের কোচ। কিন্তু সিজারে মালদিনির কথা বললে ইতালি নয়, সবার মাথায় আসে মিলানের নাম। নিজে এই ক্লাবের হয়ে খেলেছেন। সিরি ‘আ’ জিতেছেন ৪ বার। ইউরোপিয়ান কাপও জিতেছেন। ক্যারিয়ার শেষ করে এই দলের কোচের দায়িত্বও নিয়েছেন তিনি। শুধু এখানেই থামেননি। নিজের ছেলে পাওলো মালদিনিকেও এই ক্লাবেই খেলিয়েছেন। মিলানে সৃষ্টি করেছিলেন ‘মালদিনি-ডাইনেস্টি’র। সেই ডাইনেস্টির প্রথম প্রজন্মের অবসান হলো। ভালো থাকুন সিজারে!
১৯৬০ সালে ইতালির জাতীয় দলে অভিষেক হওয়া মালদিনির। দুই বছর পর তিনি বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পান। ১৯৬৭ সালে তুরিনোর খেলোয়াড় হিসেবে অবসরে যান এই তারকা। ১৯৭২ সালে মিলানের কোচ হিসেবে ক্লাবটি ফিরে আসেন। তার অধীনে ইউরোপিয়ান কাপ ও কোপা ইতালিয়ায় চ্যাম্পিয়ন হয় মিলান। ১৯৮০-৮৬ সাল পর্যন্ত ইতালির জাতীয় দলের সহকারী কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। ১৯৯৬ সালে ইতালির জাতীয় দলের দায়িত্ব নেন তিনি। তার অধীনে ১৯৯৮ বিশ্বকাপ খেলে সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়ন দলটি। ২০০২ বিশ্বকাপে প্যারাগুয়ে দলের দায়িত্ব পালন করেন এই ফুটবল কিংবদন্তি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন