Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৮, ১১ বৈশাখ ১৪২৫, ০৭ শাবান ১৪৩৯ হিজরী
শিরোনাম

রেকর্ড গড়েও বার্সায় বিষাদ

স্প্যানিশ লা লিগা

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৬ এপ্রিল, ২০১৮, ১২:০০ এএম

হেলাফেলা করার মত কোন রেকর্ড নয়। লা লিগার ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ অপরাজিত থাকার অনন্য রেকর্ড। পরশু রাতে ন্যু ক্যাম্পে ভ্যালেন্সিয়াকে ২-১ গোলে হারিয়ে যে রেকর্ড গড়েছে বার্সেলোনা। কিন্তু এরপরও মন ভালো নেই কাতালান ক্লাবটির। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ব্যর্থতার বিরল নজির স্থাপন করে রোমার কাছে হারের ক্ষতটা যে এখনো শুকাইনি মেসি-সুয়ারেজদের মন থেকে।
কোর্টার ফাইনালের প্রথম লেগে তিন গোলে এগিয়ে থেকেও বিদায় নিতে হয়েছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ থেকে। যদিও লা লিগা শিরোপা থেকে তার দল মাত্র ৭ পয়েন্ট দূরত্বে। বড় ধরণের কোন অঘটন না ঘটলে বাকি ১৮ পয়েন্ট থেকে যার আশা করতেই পারে দলটি। ওদিকে কোপা দেল রে’তেও ফাইনালে উঠে রয়েছে তারা। কিন্তু দলটির নাম যে বার্সেলোনা। ক্লাব ফুটবলের সবচেয়ে বড় আসরের হতাশা এত তাড়াতাড়ি ভুলবে কেন।
রেকর্ড গড়া এক ম্যাচের পরও তাই এদিন কোচ আর্নেস্তো ভালভার্দের কণ্ঠে ছিল হতাশার সুর, ‘রেকর্ড নিয়ে চিন্তা করার মত সপ্তাহ এটা ছিল না। আমরা এটাকে বেশি গুরুত্ব দেইনি। এটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ যে কঠিন একটা সপ্তাহ পার করার পর আমরা নিজেদের ফিরে পেয়েছি। আর রেকর্ড নিয়ে বলব, এটা স্বভাবিক যে, এসব খেলেয়াড় রেকর্ড ভাঙতেই থাকবে।’ ভালভার্দে বলেন, ‘আমরা ব্যর্থ হয়েছি। সমর্থকদের হতাশ করেছি। কিন্তু আমাদের সামনে তাকাতে হবে। এই মৌসুমে এখনো যা কিছু জয়ের সুযোগ রয়েছে তা থেকে দৃষ্টি সরালে চলবে না।’
১৯৭৯ ও ১৯৮০ সালে লা লিগায় টানা ৩৮ ম্যাচ অপরাজিত থাকার রেকর্ড গড়েছিল রিয়াল সোসিয়াদাদ। সেই রেকর্ড টপকে বার্সা অপরাজিত টানা ৩৯ ম্যাচে। গেল মৌসুমে লুইস এনরিকের অধীনে ৭ ম্যাচ অপরাজিত ছিল বার্সেলোনা। চলতি মৌসুমেও সেই ধারা ধরে রেখেছেন ভালভার্দে। এখন তার দলের সামনে সুযোগ, প্রথম দল হিসেবে লিগে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হওয়ার।
ম্যাচের স্কোরকার্ডই বলছে এদিনও বার্সার জয়টা সহজ ছিল না। আক্রমণে মেসি-সুয়ারেজরা কয়েকবার ঝলক দেখালেও রক্ষণের দুর্বলতা ছিলই। ফরাসি ডিফেন্ডার স্যামুয়েল উমতিতির ব্যর্থতায় গোলের হাত থেকে এদিও বেঁচে বেঁচে স্বাগতিকরা। আর পোস্টের নীটে গোলরক্ষক টার স্টেগেনের বিশ্বস্থ গøাভস তো ছিলই। নইলে ম্যাচের ফল ভিন্নও হতে পারত।
শুরুটা অবশ্য দুর্দান্ত ছিল স্বাগতিকদের। ম্যাচের ১৫তম মিনিটে ফিলিপ কুতিনহোর বাড়ানো বল সহজেই জালে পাঠান লুইস সুয়ারেজ। লিগে এটি ছিল তার ২৩তম গোল। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুর দিকে উমতিতির ভুলে সমতায় ফিরতে পারত ভ্যালেন্সিয়া। কিন্তু এ যাত্রায় দলকে রক্ষা করেন জেরার্ড পিকে ও টার স্টেগেন। পরের মিনিটেই অবশ্য কর্নার থেকে কুতিনহোর ভাসানো বলে হেড করে ব্যবধান দ্বিগুন করেন উমতিতি। এরপরও পয়েন্ট তালিকার তিন নম্বর দলটি একের পর এক আক্রমণে স্বস্তিতে থাকতে দেয়নি শীর্ষস্থানধারীদের। নির্ধারিত সময়ের তিন মিনিট আগে পেনাল্টি পেয়ে ব্যবধানও কমানোর পর বার্সা সমর্থকদের মনে আরো জেকে বসে পয়েন্ট হারানোর ভয়। শেষ পর্যন্ত অবশ্য রেকর্ডময় ম্যাচেরই সাক্ষি হয় ন্যু ক্যাম্প।

 


দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর