Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ৫ কার্তিক ১৪২৭, ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

দিনাজপুরে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকি- গ্রহণযোগ্য নির্বাচন জরুরী হয়ে পড়েছে

মাহফুজুল হক আনার | প্রকাশের সময় : ১৮ এপ্রিল, ২০১৮, ৫:২৫ পিএম

কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকি বলেছেন, জাতীর সামনে মারাত্মক দুর্যোগ যদি না সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হলে সকল সমস্যা, হিংস, বিদ্বেষ ও হানাহানি সব বন্ধ হয়ে যাবে। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পাকিস্তান শাসনামলের শেষ সময়ে যেমন একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অসম্ভ্যাবী ছিল যার মাধ্যমে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল ঠিক এখন প্রয়োজন একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন। যেই নির্বাচনে মানুষ বলতে পারবে আমি আমার ভোট দিতে পেরেছি। আর তা হলেই দেশের অর্ধেক সমস্যা, হিংসা, হানাহানি অর্ধেক কমে যাবে। কোটা বিরোধী ছাত্রদের সাম্প্রতিক আন্দোলন প্রসঙ্গে তিনি বলেন বিএনপিসহ বিরোধীদল সম্পূর্ণরূপে ব্যর্থ হয়েছে। ছাত্রদের আন্দোলনে ছাত্রদলকেও সমর্থন দিতে দেখা যায়নি। এক কথায় দেশীয় রাজনীতি দেউলিয়া হয়ে গেছে। কেউ কেউ একে লন্ডন ষড়যন্ত্রের কথা বলছেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন যারা বলছেন তারা বোকার স্বর্গরাজ্যে বাস করছেন।

সাবেক সেনা প্রধান ও সাবেক এমপি মেজর জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমানের শতবর্ষী মাতাকে দেখতে দিনাজপুরে আসেন। দুপুর পৌনে দু’টায় তিনি দিনাজপুর সার্কিট হাউসে এসে পৌঁছান। এসময় তার জন্য অপেক্ষমাণ ইলেকট্রিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকদের দেখে অভিভূত হয়ে পড়েন। তিনি দুপুরের খাওয়ার আগেই সাংবাদিকদের মুখোমুখি হোন। এসময় তিনি টাঙ্গাইল থেকে আনা বিশেষ চমচম সাংবাদিকদের খেতে দেন। তিনি বলেন, আমি আমার শতবর্ষী মাকে দেখতে এসেছি। আমার মা বেঁচে থাকলে আজ ১০৩ বছরে পা রাখতো। তিনি জেনারেল মাহবুবেরর ১০৩ বছর বয়সী মাকে নিজের মায়ের আসনে রেখে বলেন আমি তার কাছে দোয়া নিতে এসেছি।

উপস্থিত সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ছাত্রদের তীব্র আন্দোলনের প্রেক্ষিতে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী রাগত সুরে কোটা আন্দোলন বাতিল করার ঘোষণা দেন। কিন্তু আন্দোলনকারীরা কোটা বাতিল চায়নি চেয়েছে সংস্কার। কিন্তু প্রধান মন্ত্রী সম্পূর্ণরূপে বাতিল করে দিলেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন প্রধান মন্ত্রী, মন্ত্রী শপথ গ্রহণের সময় কি বলেন রাগ ও বিরাগের বসে কিছু করবো না । কিন্তু তিনি তো শপথ লঙ্ঘন করলেন। এছাড়া সম্পূর্ণরূপে কোটা ব্যবস্থা বাতিলের ক্ষমতা প্রধান মন্ত্রী কেন- কারোই নেই। কেননা সংবিধানের এমন কিছু মৌলিক অধিকার রয়েছে যা কোন দিনও বাতিল করা সম্ভব নয় যতদিন বাংলাদেশ আছে।

পরে তিনি শহরের ঘাসিপাড়া এলাকায় সাবেক সেনা প্রধান বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য মেজর জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমানের বাসায় তার বৃদ্ধা মাকে দেখতে যান। এসময় তিনি আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন। বয়সের ভারে শয্যাশায়ী বৃদ্ধা মাকে যখন কাদের সিদ্দিকি বললেন আপনার আরেক ছেলে আমি কাদের এসেছি তখন তিনি সাড়া দেন এবং মেয়েদের সহযোগিতায় উঠে বসেন। এসময় কাদের সিদ্দিকি তাকে টাঙ্গাইলের একটি শাড়ী উপহার দেন।
বিকেল ৪ টার দিকে তিনি সেখান থেকে সরাসরি ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হোন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন