Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫, ১০ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

লাল মাংস এবং হৃদরোগ

| প্রকাশের সময় : ২০ এপ্রিল, ২০১৮, ১২:০০ এএম

রেডমিট বা লাল মাংস হৃদরোগে মৃত্যুর ঝুঁকি বাড়ায় । গবেষণায় স্পষ্টভাবে এটি জানা গেছে। হারভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে এক গবেষণায় দেখা গেছে যেকোন ধরণের রেডমিট স্বাস্থ্যের জন্যে ক্ষতিকর। হৃদরোগে প্রতিদিন সারাবিশ্বে অনেক মানুষ মারা যায় । আমাদের দেশেও প্রতিদিন অনেকে মারা যাচ্ছে হৃদরোগে। তরুণরাও বর্তমানে এসব রোগে বেশী মারা যাচ্ছে। তাই সাবধান হতেই হবে। গবেষকরা দেখেছেন, দৈনিক শুধু একবার যারা লাল মাংস আহার করেন তাদের হৃদরোগে মৃত্যু ঝুঁকি ১৬ ভাগ বেশি । লাল মাংস বেশি খেলে শুধু যে হৃদরোগ বেশি হয় তা নয়। এতে ক্যান্সারের ঝুঁকি আরও অনেক বেড়ে যায়। রেডমিট বেশি খেলে ডায়াবেটিস ও কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকিও বেড়ে যায় বলে সুনিশ্চিত ভাবে জানা গেছে।
আমাদের দেশে লাল মাংস খুব জনপ্রিয়। অনেকে গরুর মাংস ছাড়া ভাতই খেতে চাননা । খাসীর মাংসও এদেশে খুব জনপ্রিয় । বাইরের অনেক দেশে পর্ক, বিফ, ল্যাম্ব এবং প্রক্রিয়াজাত মাংস খুব জনপ্রিয়। এসব বেশিমাত্রায় খেলে হৃদরোগ এবং ক্যান্সারে মৃত্যুর ঝুঁকি অনেক বেশি। এসব খাবারের পরিবর্তে মাছ, পোল্ট্রি, বাদাম এবং সিম জাতীয় সবজি এবং অন্যান্য শাকসবজি খাওয়া অনেক ভালো। তাতে অনেক রোগের ঝুঁকি কমে যায় ।
গবেষকরা দেখেছেন, মাংসভোজীরা যদি খাদ্য তালিকায় লাল মাংসের পরিবর্তে সপ্তাহে শুধু একবার মাছ অন্তর্ভূক্ত করেন তাহলেও অকাল মৃত্যুর হার কিছুটা কমতে পারে। প্রক্রিয়াজাত মাংসও খুব ক্ষতিকর। প্রক্রিয়াজাত মাংস বেশি খে অকাল মৃত্যুর ঝুঁকি বেড়ে যায়।
লাল মাংস সুস্বাদু হলেও বেশি খাওয়া যাবেনা । সুন্দর সুস্থভাবে বেঁচে থাকতে হলে লাল মাংস কম খেতেই হবে। ফলমূল শাকসবজি বেশি খেতে হবে। মাছ বেশি খেলে সমস্যা নেই। মাঝে মাঝে লাল মাংস খাওয়া যেতেই পারে। তবে নিয়মিত খাওয়া যাবেনা। বেশিও খাওয়া যাবেনা। এতে বড় বিপদ হতে পারে।

ডা. মো: ফজলুল কবীর পাভেল



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর