Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৮, ৮ কার্তিক ১৪২৫, ১২ সফর ১৪৪০ হিজরী

ড্র ম্যাচে মোসাদ্দেক বার্তা

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২১ এপ্রিল, ২০১৮, ১২:০০ এএম

শেষ দিনে এসে নাটকীয় কিছু হলো না। দক্ষিণাঞ্চলও ছিল একটু বেশিই রক্ষণাত্মক। ষষ্ঠ বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগের (বিসিএল) পঞ্চম রাউন্ডে মধ্যাঞ্চল-দক্ষিণাঞ্চল ম্যাচটিও হয়েছে নিরুত্তাপ ড্র। এই ম্যাচে নির্বাচকদের একটা প্রচ্ছন্ন বার্তা দিয়েছেন মোসাদ্দেক হোসেন। কেন্দ্রিয় চুক্তি থেকে বাদ পড়াব জবাবটা তিনি দিয়েছেন অপরাজিত শতক হাঁকিয়ে।
জাতীয় দলে দ্যুতি ছড়িয়েও চোখের সংক্রমণের কারণে হঠাৎ করেই আড়ালে চলে যান মোসাদ্দেক। এরপর আর কোন ম্যাচ খেলার সুযোগ পাননি। তা সত্তেও কেন্দ্রিয় চুক্তি থেকে বাদ দেয়া হয় এই আস্থাভাজন মিডিলঅর্ডার ব্যাটসম্যানকে। বল হাতেও প্রয়োজনে অনেকবার পাশে দেখা গেছে তাকে। এর জবাব দিতে বেছে নিলেন চুক্তি থেকে বাদ পড়ার পরের ইনিংসই। ওয়ানডে স্টাইলে ব্যাট করে তুলে নিয়েছেন প্রথম শ্রেনির ক্রিকেটে দশম শতক। তার ১০৭ বলে অপরাজিত ১০২ রানের ইনিংসে চার ছিল ১০টি, ৪টি ছক্কা।
৩৪৮ রান ও হাতে ৪ উইকেট নিয়ে দিন শুরু করা দক্ষিণাঞ্চলও তাদের দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করে ৪৮৪ রানে অষ্টম ব্যাটসম্যান হিসেবে নাঈম ইসলাম আউট হওয়ার পর পরই। মধ্যাঞ্চলকে ছুড়ে দেওয়া হয় ৩৭৪ রানের চ্যালেঞ্জ। প্রথম সেশনে ৪ ওভার ব্যাটিয়ের সুযোগ পায় মধ্যাঞ্চল। এসময় তাদের অল আউট করার জন্য চেষ্টা করেও সফল হয়নি দক্ষিণ। ম্যাচ বাঁচানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে থাকা মাহমুদউল্লাহ’র দল দিন শেষ করে ৫ উইকেটে ১৫৮ রান তুলে। এরপরই ম্যাচটি ড্র মেনে নেয় দু’দল। নুরুল হাসানের দল আরেকটু আক্রমণাত্মক হলে জয়-পরাজয়ের দেখা পেতেও পারত এই ম্যাচ। আসলে পরাজয় এড়ানোই প্রধান লক্ষ্য ছিল দক্ষিণের।
রাজশাহীতে অনুষ্ঠিত ম্যাচে প্রথম ইনিংসে ১৯১ রানে গুটিয়ে যায় প্রাইম ব্যাংক দক্ষিণাঞ্চল। জবাবে প্রথম ইনিংসে ৩০২ রান করতে পারে ওয়ালটন মধ্যাঞ্চল। প্রথম ইনিংসে ১১১ রানে পিছিয়ে থেকে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে মোহাম্মদ মিথুনের ১১৮ ও তুষার ইমরানের ৮৮ রানের পর মোসাদ্দেকের দারুণ শতকে ঘুরে দাঁড়ায় দক্ষিণ।
জিয়াউর রহমান ১৭ ও মোসাদ্দেক ২২ রান নিয়ে চর্তুথ ও শেষ দিনের খেলা শুরু করেন। নিজের ইনিংসটা বড় করতে পারেননি জিয়াউর। ২৫ রানেই থেমে যান তিনি। তবে নয় নম্বরে নামা নাইম হাসানকে নিয়ে দলের স্কোর বড় করতে থাকেন মোসাদ্দেক। দুজনে মিলে গড়েন ৮১ রানের জুটি। দ্রæত সেঞ্চুরি তুলে নিতে খুব বেশি সময় অপচয় করতে হয়নি তাকে। দ্বিতীয় ইনিংসে মধ্যাঞ্চলের হয়ে আব্দুল মাজিদ অপরাজিত ৬০ ও সাইফ হাসান ৪৩ রান করেন। দক্ষিণের হয়ে আব্দুর রাজ্জাক নেন ৩ উইকেট। প্রথম ইনিংসে নিয়েছিলেন ৬টি। ম্যাচ সেরাও হয়েছেন বাঁ-হাতি এই স্পিনার।
এই রাউন্ডে আগের দিন ইসলামী ব্যাংক পূর্বাঞ্চলকে ইনিংস ব্যবধানে হারায় বিসিবি উত্তরাঞ্চল। পয়েন্ট তালিকাতেও তারা শীর্ষে। পঞ্চম রাউন্ডের আগে তৃতীয় স্থানে ছিলো দক্ষিণাঞ্চল। এই পর্বে ড্র করায় দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে তারা।
উত্তরের কাছে হেরে যাওয়ায় তৃতীয় স্থানে নেমে যেতে হয়েছে পূর্বাঞ্চলকে। চতুর্থ থেকে পঞ্চম রাউন্ড শুরু করা মধ্যাঞ্চল রয়েছে টেবিলের তলানিতেই।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।