Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ মে ২০১৮, ০৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ৫ রমজান ১৪৩৯ হিজরী

যুক্তরাষ্ট্রের দৃষ্টি দেয়া উচিত নিজের কার্যক্রমের দিকে : এরদোগান

তুরস্ক আর্থিক মন্দা এড়াতে পারবে আগাম নির্বাচনে : ইকোনমিস্ট

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৩ এপ্রিল, ২০১৮, ১২:০০ এএম

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র যদি আটক খ্রিস্টান যাজককে ফিরিয়ে নিতে চায়, তবে দেশটির উচিত নিজের পদক্ষেপগুলোর দিকে দৃষ্টি দেয়া। ২০১৬ সালের ব্যর্থ অভ্যুত্থানে জড়িত সন্দেহে ওই যাজককে তুরস্কে আটকে রাখা হয়েছে। অ্যান্ডু ব্রুনসন নামে ওই যাজক দুই দশক ধরে তুরস্কে বসবাস করছেন। এরদোগানকে হটাতে ব্যর্থ অভ্যুত্থানের সহায়তার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। ব্রুনসন অভিযোগ অস্বীকার করলেও আদালতে তিনি দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। তাকে ৩৫ বছর কারাদন্ডের শাস্তি দেয়া হয়েছে। এর আগে তুর্কি ধর্মীয় নেতা ফেতুল্লাহ গুলেনের সঙ্গে ব্রুনসনের ভাগ্য জুড়ে দেন এরদোগান। গুলেনকে প্রত্যর্পণের বিনিময়ে ব্রুনসনকে ফিরিয়ে দিতে চান তিনি। অভ্যুত্থানের নেপথ্যে গুলেনের হাত রয়োছে বলে দাবি করা হচ্ছে। ১৯৯৯ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করা এই ধর্মীয় নেতাকে ফিরিয়ে এনে বিচারের মুখোমুখি করতে চাচ্ছে তুরস্ক। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পসহ কয়েক ডজন সিনেটর ব্রুনসনের মুক্তি দাবি করেছেন। এদিকে লন্ডন ভিত্তিক ম্যাগাজিন দ্যা ইকোনমিস্ট এক প্রতিবেদনে লিখেছে, গত বছর তুরস্কের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ছিল ৭.৪%। এর নেপথ্যে ছিল ঋণ প্রদানের হার বৃদ্ধি পাওয়া ও সরকারের একঝাঁক প্রণোদনামূলক পদক্ষেপ। তবে তা সত্তে¡ও তুরস্কের অর্থনীতি নিস্তেজ হয়ে যেতে শুরু করেছে। গত এক বছরজুড়ে মুদ্রাস্ফীতি ছিল দুই অংকের কোঠায়। এক মাসের ব্যবধানে, দেশটির দুই বৃহত্তম শিল্প প্রতিষ্ঠান প্রায় ৯০০ কোটি ডলারের ঋণ পুনর্বিন্যাসের আলোচনা শুরু করে। ২০১৩ সালের পর থেকে ডলারের বিপরীতে লিরার (মুদ্রা) মান অর্ধেক কমে গেছে। মার্চের শেষ নাগাদ প্রায় প্রতিদিনই মুদ্রার নতুন দরপতনের রেকর্ড হচ্ছিল। তবে আগাম নির্বাচনের খবরে লিরা ঘুরে দাঁড়িয়েছে। এর অর্থ হলো যে, বিনিয়োগকারীরা মনে করছেন, প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এরদোগান ও পার্লামেন্ট নির্বাচনে তার দল জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি (একে) জিতবে। নতুন করে ক্ষমতায় এসে তারা প্রণোদনামূলক সরকারী ব্যয় কমাবেন। তুর্কি প্রেসিডেন্ট স্পষ্টতই জানেন যে, অর্থনৈতিক মন্দা আসন্ন। তাই যত তাড়াতাড়ি ভোট হয়ে যাবে, তত এই মন্দা এড়ানোর সময় ও সুযোগ পাবেন তিনি। জুনের এই নির্বাচন হবে তুরস্কের ইতিহাসে প্রথম ঘটনা যেদিন তুর্কি জনগণ একই দিনে প্রেসিডেন্ট ও পার্লামেন্ট নির্বাচনে ভোট দেবেন। এই পরিবর্তন ছিল একগুচ্ছ সাংবিধানিক পরিবর্তন যার ফলে এরদোগান বেশ কিছু নতুন ক্ষমতা পান। রয়টার্স, ইকোনমিস্ট।

 


দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর