Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৮, ৮ কার্তিক ১৪২৫, ১২ সফর ১৪৪০ হিজরী

রাজাপুরে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে হত্যা

প্রকাশের সময় : ২৩ এপ্রিল, ২০১৮, ১২:০০ এএম | আপডেট : ১২:১৪ এএম, ২৩ এপ্রিল, ২০১৮

 


রাজাপুর (ঝালকাঠি) উপজেলা সংবাদদাতা : ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলা সদরে বাজারের দক্ষিন মাথায় মিজানুর রহমান পিয়নের বাড়ি (মিয়া মাহমুদ পাখির) বসতবাড়ির সামনে মো. খলিলুর রহমান (৪০) নামে এক গৃহকর্তাকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে দুর্বিত্তরা। শনিবার দিবাগত রাত বারটায় সুরতহাল শেষে লাশ পুলিশ উদ্ধার করে রাজাপুর থানা নিয়ে আসে। এ সময় খলিলের ব্যবহৃত একটি মোবাইল সেট উদ্ধার করে। নিহতের স্ত্রী পিয়ারা বেগম বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামী করে রাজাপুর থানায় ৩০২/৩৪ ধারা পেনাল কোর্ট একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে। এ ঘটনায় ঐ স্থান থেকে মিঞা মাহমুদ পাখিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে এবং আদালতে প্রেরণ করে। পুলিশ জানায়, নিহতের বাড়ি রাজাপুর উপজেলার পশ্চিম বাদুর তলা গ্রামে, পিতা আমজেদ মোল্লা। নিহতের মাথায় হাতুড়ির আঘাতে মাথার মগজ বের হয়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে গেছে। তাকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। খলিলের স্ত্রী জানায়, পশ্চিম বাদুরতলা গ্রামে জমিজমার জের ধরে সুজন সিকদার, হিরু, হাবিব, জামাল, মজিবর, আক্কাস তার স্বামীকে গত তিনবছর পূর্বে হত্যার উদ্যেশ্যে আহত করে এবং রাজাপুর থানায় জিআর মামলা হয়, তিন বছর ধরে ঝালকাঠিতে মামলা বিচারাধীন। তাদের ভয়ে পরিবারবর্গ নিয়া রাজাপুর বন্দরে ভাড়া বাসা নিয়া বসবাস করি। গত দুদিন আগে গ্রামের বাড়ি বাদুরতলা গেলে মজিবরের পুত্র সাগর জেলের ভাত খেতে ইচ্ছে করে বলে হুমকি দেয়। তিনি আর ও জানান, তার স্বামী রাজমিস্ত্রী ও কাঠমিস্ত্রীর কাজ করতেন, গত দুই তিন মাস পূর্বে সোহাগ ক্লিনিকের সামনে চায়ের দোকান ছিল। তিন মাস পর্যন্ত দোকান বন্ধ। আড়াই বছর হয় রাজাপুর শহরে একটি ভাড়া বাসায় পুত্র কন্যা নিয়ে বসবাস করতেছি। ঘটনার দিন শনিবার সকালে তার স্বামী নিয়মিত কাজে বের হয়, সন্ধ্যার পর বাসায় ফিরে বাজার করে এশার আজানের পরে বাজার দিয়ে যায়। এবং তাড়াহুরা করে বাসা থেকে ব্যাস্ত বলে ঘর থেকে বের হয়ে যায়। এবং আধাঘন্টা পরে শুনতে পান, তার স্বামী খুন হয়েছে। খবর শুনে ঝালকাঠি জেলা পুলিশ সুপার মোঃ জোবায়দুর রহমান ও রাজাপুর কাঠালিয়া সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোজ্জাম্মেল হক রেজা ও ওসি সামসুল আরেফিন ঘটনস্থল পরিদর্শন করেছেন। রাজাপুর থানার ওসি সামসুল আরেফিন বলেন, কারা খলিলকে হত্যা করেছে তা এখন পর্যন্ত বলা যাচ্ছে না। রাজাপুর থানায় মামলা হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।