Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২৩ মে ২০১৯, ০৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১৭ রমজান ১৪৪০ হিজরী।

তানোরে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদে মেয়ের বাবাকে পেটাল বখাটেরা

তানোর (রাজশাহী) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৪ এপ্রিল, ২০১৮, ১২:০০ এএম

রাজশাহীর তানোরে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় ৬ষ্ঠ শ্রেণীর মাদ্রাসা পড়ুয়া ছাত্রীর পিতাকে বেধড়ক পিটিয়েছে বখাটেরা বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এঘটনায় ছাত্রীর পিতা রাকিব উদ্দিন বাদি হয়ে গতকাল দুপুরের দিকে তিনজনকে আসামী করে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। এরা হলো উপজেলার নড়িয়াল গ্রামের সম্পা মন্ডলের পুত্র শাকিল হোসেন ও একই গ্রামের ছহির উদ্দিনের পুত্র হাবিবুর রহমান এবং ছলেট উদ্দিনের পুত্র ফয়সাল আহম্মেদ। গত রোববার বিকাল ৫টার দিকে উপজেলার নড়িয়াল সিংড়া পুকুরের কাছে মারপিটের ঘটনাটি ঘটেছে। বেধড়ক মার খেয়ে ছাত্রীর পিতা বর্তমানে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন। এঘটনায় উভয়ের মধ্যে বিরাজ করছে চরম উত্তেজনা ।
অভিযোগ ও পুলিশ সূত্রে জানায়, উপজেলার কলমা ইউপি এলাকার নড়িয়াল দাখিল মাদ্রাসার ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী মাদরাসায় যাওয়া আসার পথে বখাটে নড়িয়াল গ্রামের শাকিল, হাবিবুর প্রেমের প্রস্তাবসহ নানা ধরনের কথাবার্তা বলে আসছিলো । এ অবস্থায় গত রোববার বিকেলের দিকে ওই ছাত্রী মাদরাসা থেকে বাড়ীতে যাবার সময় নড়িয়াল গ্রামের বাবুর বাড়ীর কাছে পৌছামাত্রই বখাটে শাকিল ও হাবিবুর প্রেমের প্রস্তাবসহ নানা কু প্রস্তাব দেন । ওই ছাত্রী নিষেধ করা শর্তেও নানা ধরনের অশ্লীল কথাবার্তা বলছিল। বাধ্য হয়ে ওই ছাত্রী বাড়ীতে এসে পিতাকে সব ঘটনা খুলে বলে। মেয়ের মুখে এমন কথা শুনে পিতা রাকিব উদ্দিন বখাটে শাকিল ও হাবিবুরকে তার মেয়েকে এসব কথা না বলতে অনুরোধ করেন । এনিয়ে ছাত্রীর পিতা রাকিব উদ্দিন জানান, বেশ কিছু দিন ধরে আমার মাদরাসা পড়ুয়া মেয়েকে উত্যক্ত করে তাঁরা। আমি ঘটনা শুনে তাদের কে ভালো ভাবে এসব কথা বলতে নিষেধ করি । নিষেধ করার কারণে আমাকে তাঁরা মারপিট করেছে । এমন কি আমি কোন আইনি ব্যবস্থা নিলে প্রানে মেরে ফেলবে বলেও হুমকি দেন তাঁরা। আমি এর দৃষ্টান্ত মুলুক শাস্তি চায় । এ নিয়ে শাকিল হাবিবুর ও ফয়সাল আহম্মেদ জানান, তার মেয়েকে কিছু না বলে আমাদের উপর দোষ দিচ্ছেন এজন্য তার সাথে কথা কাটাকাটি হয়েছে। মারধরে বিষয়টি অস্বীকার করেন তারা। এ নিয়ে নড়িয়াল দারুস সুন্নাহ দাখিল মাদরাসার সুপার আবদুর রহিম জানান,বিষয়টি নিয়ে আমিসহ আমার শিক্ষক মুন্ডলীরা ওই ছেলেদের পরিবারের লোকজনকে অবহিত করেছি। এর পরেই ছেলেরা এধারনের ঘটনা ঘটিয়েছে। এর উপযুক্ত বিচার হয়া উচিৎ বলে জানান তিনি। এনিয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রেজাউল ইসলাম বলেন, অভিযোগ পাবার পর অভিযুক্তদের আটকের ব্যাপারে অভিযান চলছে। আটকের পর সব ধরনের আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। যাতে এমন ঘটনা পুনরায় না ঘটে বলে জানান এ কর্মকর্তা ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইভটিজিং


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ