Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫, ১০ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

সরকারি কর্মচারী আইনে কিছু ধারা বাতিল চায় টিআইবি

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৮ এপ্রিল, ২০১৮, ১২:০০ এএম

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের উপকমিটির প্রতিবেদনে সরকারি কর্মচারী আইনের খসড়ার কিছু বিতর্কিত ধারা অন্তর্ভুক্ত থাকায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। সংগঠনটি খসড়া আইনটির বেশ কিছু বিধান পুনর্বিবেচনা ও বাতিলের আহ্বান জানিয়েছে। গতকাল শুক্রবার এক বিবৃতিতে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান বলেন, খসড়া সরকারি চাকরি আইনে ফৌজদারি অপরাধে অভিযুক্ত সরকারি কর্মকর্তাকে গ্রেফতারের আগে অনুমতি নেয়া, এক বছরের বেশি কারও সাজা হলে তাৎক্ষণিকভাবে বরখাস্ত না করা, কারাদন্ডপ্রাপ্ত ও চাকরি থেকে বরখাস্ত বা অপসারণকৃত কোনো ব্যক্তিকে বরখাস্ত বা অপসারণ হতে অব্যাহতি দেয়ার সুযোগ রাখা হয়েছে। এই ধারাগুলো কর্মকর্তাদের উন্নত পেশাদারি ও নিরপেক্ষ জনপ্রশাসন নিশ্চিতের পরিপন্থী।
ইফতেখারুজ্জামান বলেন, দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে মামলা হলে অভিযোগপত্র দেয়ার আগে গ্রেফতার করতে সরকারের অনুমতি নেয়ার যে বিধান বহাল রাখা হয়েছে, তা বৈষম্যমূলক ও সাংবিধানিক চেতনার পরিপন্থী। বিশেষ করে সরকারি খাতে দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণে সরকারি অঙ্গীকারের সঙ্গে ধারাটি সাংঘর্ষিক এবং এর মাধ্যমে দুর্নীতি দমন কমিশনের ক্ষমতা খর্ব হওয়ার ঝুঁকি সৃষ্টি হবে। এই ধারাটি বাতিল করতে হবে। অন্যদিকে জনপ্রশাসন যেন দলীয় রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত হয়ে ভয়ভীতি ও চাপের ঊর্ধ্বে থেকে সততা ও স্বচ্ছতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে পারে, সে জন্য কিছু ধারা বাদ দেয়া জরুরি। পাশাপাশি এটাও নিশ্চিত করতে হবে যেন জনপ্রশাসনে মেধা, দক্ষতা ও অভিজ্ঞতার অবমূল্যায়ন না হয়। এ ছাড়া সামগ্রিক স্বচ্ছতার স্বার্থে আইনটির নতুন প্রস্তাবনাসহ পূর্ণ খসড়াটি ওয়েবসাইটে প্রকাশ ও সবার মতামত দেয়ার সুযোগ তৈরিরও আহŸান জানান ইফতেখারুজ্জামান।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ