Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫, ১৪ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

প্যারালাইসিস চিকিৎসায় নতুন দিগন্ত

| প্রকাশের সময় : ৪ মে, ২০১৮, ১২:০০ এএম


তরতাজা প্রানোচ্ছল মানুষ শেলী রাহমান। সকালেও ঘরের সব কাজ সামলেছেন। সামনে ঘরোয়া অনুষ্ঠানের ব্যস্ততায় প্রেসার কমানোর ঔষধ সেবনের নিয়মে ছেদ পড়েছে। এই সুযোগটাই নিয়েছে ঘাতক ব্যাধি স্ট্রোক। ঘুমের মধ্যেই স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে মস্তিষ্কের বামপার্শে¦ রক্ত চলাচলে ব্যাঘাত ঘটায় মস্তিষ্কের ওই অংশ তার কর্মক্ষমতা হারিয়েছে। ফলে শরীরের ডান পাশ প্যারালাইসিসড হয়ে গেছে। রাতেই আই সি ইউ সাপোর্ট পাওয়াতে তার জীবন বেঁচেছে। কিন্ত প্যারালাইসিস তাকে নিস্তার দেয়নি। সাত দিন পর হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেলেও তিনি হাত পা নাড়াতে পারতেন না। সারাদিনই বিছানা বন্দী। চিকিৎসক ও তার এক নিকট আতœীয়ের পরামর্শে বাসায় ফিজিওথেরাপি নেয়া শুরু করলেন। মাস পার হয়ে গেলেও তেমন উন্নতি পরিলক্ষীত না হওয়ায় একজন ফিজিওথেরাপি বিশেষজ্ঞের তত্বাবধানে পূর্নবাসন কেন্দ্রে ভর্তি হলেন। সুচিকিৎসায় তিন মাসেই তিনি নব্বই শতাংশ সুস্থ হয়ে গেলেন।
দু:খের বিষয় হলো বেশিরভাগ স্ট্রোক রোগীর জীবনের গল্প এমন নয়। সচেতনতার অভাব চিকিৎসা নিতে অনিহা ভুল পরামর্শ রোগী ও রোগীর আতœীয় স্বজনের জীবনের বিপদ আরও বাড়িয়ে দেয় । প্যারালাইসিস রোগী চলাফেরার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলে তাই প্র¯্রাব পায়খানা গোসল খাওয়া সব কাজের জন্যই তাকে অন্যের মুখাপেক্ষী হতে হয় । প্যারালাইসিস রোগী সারাদিন ঘরে শুয়ে থাকেন তাই তিনি বাইরের পরিবেশের নতুনত্ত উপভোগ করতে পারেন না। এভাবেই পরনির্ভশীল জীবরযাপন করতে করতে রোগী খিটখিটে মেজাজের হয়ে পড়েন । এক সময় তিনি কারও কথা শুনতে চান না। সঠিক ব্যায়াম না করানোয় তারা প্যারালাইসড অংগ গুলো শক্ত হয়ে যায় এবং প্রচন্ড ব্যথায় আক্রান্ত হয়ে সম্পূর্ন রুপে পংগু হয়ে যান । তখন আর তেমন কিছুই করার থাকে না । কোন চিকিৎসাই কাজে আসে না । তাই প্যারালাইসিস রোগীর জন্য দ্রæত বিজ্ঞান সম্মত ফিজিওথেরাপি শুরু করা অবশ্য কর্তব্য। প্রয়োজনে পূণর্বাসন কেন্দ্রে ভর্তি রেখে দিনে তিন চার বার ফিজিওথেরাপি দিতে হবে। সেটা সম্ভব না হলে একজন ফিজিওথেরাপি বিশেষজ্ঞের তত্বাবধানে বাসায় ফিজিওথেরাপির ব্যবস্থা করতে হবে।
নতুন চিকিৎসা পদ্ধতি: স্ট্রোক-প্যারালাইসিস পূনর্বাসনের অনেক পদ্ধতি আছে । এর মধ্যে বোবাথ, পিএনএফ টেকনিক উল্লেখ যোগ্য, কিন্তু প্রচলিত এইসব পদ্ধতির কোনটাই আক্রান্ত মস্তিষ্কে সরাসরি কোন উদ্দিপনা সৃষ্টি করতে পারে না। এক্ষেত্রে “কাওয়াহিরা মেথড” যুগান্তকারী সফলতা পেয়েছে। জাপানের কাগোশিমা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্যারালাসিস রোগীর উপর চালিত গবেষণায় ব্যাপক সফলতা পাওয়া গেছে। স্ট্রোক পরবর্তী প্যারালাইসিসের অভিশাপ থেকে বাচার উপায় আছে কিন্তু সেজন্য ধৈর্য ধরে চিকিৎসা চালিয়ে যেতে হবে।

ষ ডা. মোহাম্মদ আলী
চীফ কনসালট্যান্ট
হাসনা হেনা পেইন এন্ড ফিজিওথেরাপি রিসার্চ সেন্টার
বাড়ি-৭, শায়েস্তাখান রোড , সেক্টর-০৪, উত্তরা, ঢাকা।
ফোন: ০১৮৭২ ৫৫৫ ৪৪৪।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।