Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৬, ১৬ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

রাবিতে আ.লীগ নেতাদের চাপে ফের আন্দোলনে ছাত্রলীগ চার দফা দাবিতে ভিসিকে স্মারকলিপি

প্রকাশের সময় : ১০ এপ্রিল, ২০১৬, ১২:০০ এএম

রাবি রিপোর্টার : ভারপ্রাপ্ত প্রধান প্রকৌশলীকে মারধরের ঘটনায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ছাত্রলীগের তিন নেতার ছাত্রত্ব বাতিলের সিদ্ধান্তকে কেন্দ্র করে স্থানীয় আ’লীগ নেতাদের চাপে ফের আন্দোলনে নেমেছে চাত্রলীগ। গতকাল বেলা ১১টার দিকে ছাত্রত্ব বাতিলের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারসহ চার দফা দাবিতে ভিসিকে স্মারকলিপি দিয়েছেন তারা। পরে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করে দাবি আদায়ে লাগাতার আন্দোলনের ঘোষণা দেন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। তবে এর মাধ্যমে কৌশলে ভিসিবিরোধী আন্দোলন গড়ে তোলার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
সূত্রে জানা যায়, রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের কিছু নেতার পরামর্শে এমন আন্দোলনে নেমেছে ছাত্রলীগ। দীর্ঘদিন থেকে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের নেতাদের সাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর মুহম্মদ মিজানউদ্দিনের দ্ব›দ্ব চলে আসছে। মহানগর আওয়ামী লীগের নেতারা বর্তমান ভিসিকে আর চাইছেন না। ফলে ছাত্রলীগের এই আন্দোলনকে বৃহৎ আন্দোলনে রূপ দিয়ে ভিসিকে অপসারণ করার চিন্তাভাবনা করছেন তারা।
ছাত্রলীগের চার দফার মধ্যে অন্যতম দাবিগুলো হলোÑ ছাত্রলীগ কর্মী ফারুক হত্যার সাথে জড়িতদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থায়ী বহিষ্কার, সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর যাবতীয় হয়রানিমূলক ‘মিথ্যা’ মামলা প্রত্যাহার ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের নির্যাতনকারীসহ হাত- পায়ের রগ কর্তনকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা ও চিকিৎসার জন্য আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেয়া।
ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রাশেদুল ইসলাম রাঞ্জু বলেন, যদি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আমাদের দাবিসমূহ মেনে না নেন তাহলে আগামী ১১ এপ্রিল কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে এক গণস্বাক্ষর কর্মসূচি পালন করা হবে। এসময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সহ-সভাপতি আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা, রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি রকি কুমার ঘোষ, সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান রাজীব, বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রাশেদুল ইসলাম রাঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক খালিদ হাসান বিপ্লবসহ অন্য নেতাকর্মীরা।
উল্লেখ্য, গত ২০১৪ সালের ২৮ আগস্ট চাঁদা না পেয়ে রাবির ভারপ্রাপ্ত প্রধান প্রকৌশলী সিরাজুম মুনীরকে মারধর করেন ছাত্রলীগরে তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুল ইসলাম তুহিন, সহ-সভাপতি তন্ময়ানন্দ অভি ও শহীদ হবিবুর রহমান হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মামুন-অর-রশীদ। গত ২৯ মার্চ সিন্ডিকেট সভায় তাদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ