Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার , ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ০৯ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

সারাদেশে নিজেদের ‘গোলাগুলি’ ও ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ১৪ মাদক ব্যবসায়ী নিহত

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩০ মে, ২০১৮, ১০:২২ এএম | আপডেট : ১০:৩৬ এএম, ৩০ মে, ২০১৮

সারাদেশে মঙ্গলবার রাত ও বুধবার ভোরে ১১ মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে নিজেদের মধ্যে ‘গোলাগুলিতে’ মাগুরায় ৩ এবং যশোরের বেনাপোলে দুইজন নিহত হয়েছেন বলে দাবি করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। বাকিরা র‌্যাব ও পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছেন। এসময় মাদক ও অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। আহত হয়েছেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বেশ কয়েকজন সদস্য।

ঢাকা : রাজধানীর ভাষানটেকে দেওয়ানপাড়া লোহার ব্রিজের কাছে র‌্যাবের সঙ্গে মাদক ব্যবসায়ীদের বন্দুকযুদ্ধে ৩ মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। র‌্যাব-৪ এর অধিনায়ক (সিও) চৌধুরী মঞ্জুরুল কবির এই তথ্য জানিয়েছেন।

নিহতরা হলো, বাপ্পি (৩৮), আতাউর রহমান আতা (৪০) ও মোস্তফা হাওলাদার (৪৫)। এদের মধ্যে আতা সাভারের শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী বলে জানায় র‌্যাব।

অভিযানে বিপুল পরিমাণ মাদকদ্রব্য, অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।

র‌্যাব-৪ এর অধিনায়ক (সিও) চৌধুরী মঞ্জুরুল কবির বলেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি কসাই মোস্তফার নামে ৭-৮টি মামলা রয়েছে। বাপ্পির নামে হত্যা মামলাসহ মাদকের মামলা রয়েছে। সে প্রতিদিন ‘শখানেক ইয়াবা বিক্রি করতো। তবে নিহতদের বিষয়ে সার্বিক তথ্য খুঁজে বের করতে আমরা কাজ করছি।’

মাগুরা : মাগুরায় তিন মাদক ব্যবসায়ীর গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার গভীর রাতে সদর উপজেলার বাটিকাডাঙ্গা মাঠ থেকে এসব মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ ৩২০ গ্রাম হেরোইন, ১ কেজি গাঁজা ও ৬ বোতল ফেনন্সিডিল উদ্ধার করেছে।

নিহতরা হলেন, শহরতলীর ইসলামপুর পাড়ার মৃত আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে রায়হান মিয়া ওরফে ব্রিটিস, ভায়না গ্রামের মহিউদ্দিন চোপদারের ছেলে বাচ্চু চোপদার ও নতুন বাজার এলাকার খোকন অধিকারীর ছেলে কিশোর অধিকারী কালা। এদের বিরুদ্ধে সদর থানাসহ আশপাশের থানায় কয়েক ডজন মাদকের মামলা রয়েছে।

পুলিশ জানায়, বাটিকাডাঙ্গা মাঠের মধ্যে দু’দল মাদক ব্যবসায়ী মাদকের টাকা ভাগাভাগি নিয়ে গোলাগুলি করছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশের টহল দল সেখানে যায়। ঘটনাস্থলে পৌঁছে তিনজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় দেখতে পেয়ে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন। পরে এলাকাবাসী তাদের পরিচয় নিশ্চিত করে।

যশোর : যশোরের বেনাপোলে দু’দল মাদক ব্যবসায়ীদের মধ্যে ‘গোলাগুলিতে’ দুই জন নিহত হয়েছেন। বুধবার ভোরে বেনাপোলের বড়আঁচড়া এলাকায় ‘গোলাগুলির’ এই ঘটনা ঘটে। এ সময় সেখান থেকে অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার করা হয়।

নিহতরা হলেন, বেনাপোল ভবেরবেড় গ্রামের মৃত শাহাজানের ছেলে লিটন (৩৪) ও অজ্ঞাত একজন (৪০)।

বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি অপূর্ব হাসান জানান, ভোরে বেনাপোল বড়আঁচড়া এলাকায় দু’দল মাদক ব্যবসায়ীর মধ্যে গোলাগুলি হচ্ছে বলে খবর পান। খবর পেয়ে সেখানে গেলে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। এসময় সেখানে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় দু’টি মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ঘটনাস্থল থেকে ১০ কেজি গাঁজা, ১টি দেশি আগ্নেয়াস্ত্র, দুই রাউন্ড গুলি ও গুলির খোসা উদ্ধার করা হয়।

যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) সালাউদ্দিন শিকদার জানান, স্থানীয়রা নিহত লিটনের মরদেহ শনাক্ত করেছেন। সে চিহ্নিত মাদক কারবারি। তার বিরুদ্ধে ১০টি মামলা রয়েছে। তবে অপরজনের পরিচয় এখনও পাওয়া যায়নি।

নড়াইল : নড়াইল-লোহাগড়া সড়কের মালিবাগ মোড়ে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক কারবারি সজিব শেখ (৩০) নিহত হয়েছে। মঙ্গলবার রাত ২টার দিকে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। সজিব সদর উপজেলার দত্তপাড়া গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য আলতাফ শেখের ছেলে। ঘটনাস্থল থেকে একটি রিভলবার ও দুই রাউন্ড গুলি, দু’টি রামদা, একটি গাছিদা এবং ২১৩ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে পুলিশ। সজিবের নামে মাদকের একাধিক মামলা রয়েছে।

জানা যায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ জানতে পারে মাদক কারবারিরা নড়াইলের মালিবাগ মোড়ে অবস্থান করছে। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে আক্রমণ চালায় তারা। পুলিশও পাল্টা আক্রমণ চালায়। একপর্যায়ে ঘটনাস্থলে এক মাদক কারবারির মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশ। এ সময় অন্যরা পালিয়ে যায়। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নড়াইল সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় পাঁচ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন।

পাবনা : পাবনার বেড়ায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ইজ্জত আলী প্রামানিক (২৮) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন ৫ পুলিশ সদস্য। জব্দ করা হয়েছে বেশকিছু অস্ত্র ও মাদকদ্রব্য। মঙ্গলবার রাত একটার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশের দাবি, নিহত ইজ্জত আলী কুখ্যাত অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী, মাদক কারবারী ও ডাকাত। তার বিরুদ্ধে হত্যা, ডাকাতি, চাঁদাবাজী ও অপহরণ সহ বিভিন্ন অপরাধে ১৪টি মামলা রয়েছে।

কক্সবাজার : কক্সবাজারে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মঙ্গলবার রাতে নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক মজিবুর রহমান নিহত হয়েছেন।

মজিবুর মোহনগঞ্জ উপজেলার তেথুলিয়া গ্রামের মৃত আব্দুর রশিদের ছেলে। তার বিরোদ্ধে নেত্রকোণার বিভিন্ন থানায় চারটি মাদক মামলা, হত্যা মামলা, দ্রুত বিচার আইনের মামলাসহ মোট ১০টি মামলা রয়েছে।

নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ থানার ওসি আনসারী জিন্নাত আলী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে র‌্যাব-৭ কক্সবাজার ক্যাম্পের ইনচার্জ মেজর রুহুল আমিন জানান, মাদক ব্যবসায়ীদের একটি দল কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের কবিতাচত্বর এলাকায় অবস্থান করছে- এমন খবর পেয়ে অভিযানে গেলে মাদকব্যবসায়ীদের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নেত্রকোণার শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী ১০ মামলার আসামী মুজিবুর রহমান (৪২) নিহত হন। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান শ্যুটার গান , ৫টি গুলি ও খালি খোসা এবং ৬ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

চট্টগ্রাম : চট্টগ্রাম মহানগরের পলোগ্রাউন্ড এলাকায় র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মোহাম্মদ ইসহাক (৩৭) নামে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। র‌্যাবের দাবি, ঘটনাস্থল থেকে চার হাজার পিস ইয়াবা, কাতুর্জসহ একটি ওয়ান শ্যুটারগান উদ্ধার করা হয়েছে। মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে এ ‘বন্দুকযুদ্ধের’ ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব-৭।

নিহত ইসহাক চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে মাদকের ৯টি, কয়েকটি হত্যা মামলাসহ মোট ১৯টি মামলা রয়েছে।

র‌্যাব-৭ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) এএসপি মিমতানুর রহমান বলেন, ‘গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নগরের টাইগারপাস পলোগ্রাউন্ড এলাকায় অভিযান চালায় র্যাব সদস্যরা। র‌‌্যাব সদস্যদের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যাবসায়ীদের একটি দল তাদের ওপর গুলি ছোড়ে। র‌্যাবও আত্মরক্ষার্থে গুলি চালায়। গোলাগুলির এক পর্যায়ে র্যাব সদস্যরা কিছুক্ষণের জন্য পিছু হটে। পরে ঘটনাস্থলে গিয়ে মাদক ব্যবসায়ী ইসহাক মিয়ার মরদেহ দেখতে পায়।’

নগরের ডবলমুরিং থানা পুলিশের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, ‘ ঘটনাস্থল থেকে চার হাজার পিস ইয়াবা, কাতুর্জসহ একটি ওয়ান শ্যুটারগান উদ্ধার করা হয়েছে। তার লাশ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।’

কুমিল্লা : কুমিল্লায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রোছমত আলী (৪০) নামের এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার দিবাগত রাত পৌনে ১টার দিকে জেলার বুড়িচং উপজেলার লড়িবাগ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত রোছমত আলী একজন তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী এবং তার বিরুদ্ধে থানায় ৭টি মাদকের মামলা রয়েছে।

বুড়িচং থানার ওসি মনোজ কুমার দে জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মাদক উদ্ধার করতে উপজেলার লড়িবাগ এলাকায় রাস্তার পাশে তিনি পুলিশ নিয়ে অবস্থান নেন। সেখানে মাদক ব্যবসায়ী রোছমত ও তার সহযোগীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। পুলিশও আত্মরক্ষায় ২৫ রাউন্ড শটগানের গুলি চালায়। উভয়পক্ষের গুলিবিনিময়ে মাদক ব্যবসায়ী রোছমত গুলিবিব্ধ হন। তাকে উদ্ধার করে কুমেক হাসপাতালে নেয়া হলে ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন। ওই অভিযানের সময় থানার তিন পুলিশ আহত হয়েছেন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে এক রাউন্ড কার্তুজসহ একটি পাইপগান ও ৪০ কেজি গাঁজা উদ্ধার করেছে।

সিরাজগঞ্জ : সিরাজগঞ্জের কামারখন্দে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ আশান হাবিব (৪৫) নামে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। এ সময় একটি ওয়ান শ্যুটার গান, এক হাজার পিস ইয়াবা ও ২০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়েছে।

বুধবার ভোরে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম মহাসড়কের ঝাঐল ওভার ব্রিজের পাশের একটি ইউক্যালিপটাস খেতে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। নিহত আশান হাবিব কামারখন্দ উপজেলার কামারখন্দ হাটপাড়া গ্রামের ইজার উদ্দিনের ছেলে।

র‌্যাব-১২ সিরাজগঞ্জ ক্যাম্পের কমান্ডার মো. সাকিবুল ইসলাম খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ