Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১০ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

নিরাপত্তা পরিষদে ফিলিস্তিন বিরোধী মার্কিন প্রস্তাবের ঐতিহাসিক পরাজয়

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩ জুন, ২০১৮, ১২:০০ এএম

ফিলিস্তিনিদের রক্ষায় কুয়েতের তরফ থেকে জাতিসংঘে উত্থাপিত প্রস্তাবের বিরুদ্ধে ভেটো দিয়েছে নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য যুক্তরাষ্ট্র। অন্যদিকে কুয়েতী প্রস্তাব পাস কাটিয়ে নিজেদের সমাধান প্রস্তাব আকারে পেশ করলে সেই প্রস্তাবে যুক্তরাষ্ট্র ছাড়া আর কেউ সমর্থন দেয়নি। যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাবে গাজায় চলমান সহিংসতার জন্য হামাসকে দায়ী করা হয়েছে। আল-জাজিরার জেমস বয়েস মন্তব্য করেছেন, শেষ কবে নিরাপত্তা পরিষদে উত্থাপিত প্রস্তাব মাত্র এক ভোট পেয়েছে তা স্মরণ করা কঠিন। তার ভাষ্য, নিজেদের আনা প্রস্তাবে নিজেদের দেওয়া একটি মাত্র ভোট পাওয়া যুক্তরাষ্ট্রের জন্য ‘খুবই অপমানজনক।’ সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা লিখেছে, ইসরাইল সীমান্তের কাছে গাজাবাসীর বিক্ষোভে এখন পর্যন্ত শতাধিক ফিলিস্তিনি প্রাণ হারিয়েছে, যাদের মধ্যে সাধারণ নাগরিকের পাশাপাশি রয়েছেন সাংবাদিক থেকে নার্স। সহস্রাধিক ফিলিস্তিনি আহতও হয়েছেন ইসরাইলি সেনাবাহিনীর হামলায়।
জাতিসংঘে শুক্রবার কুয়েতী প্রস্তাবের বিষয়ে ভোট গ্রহণ হয়। রাশিয়া ও ফ্রান্সসহ মোট ১০টি দেশ প্রস্তাবের পক্ষে সমর্থন জানায়। যুক্তরাজ্য, পোল্যান্ড, নেদারল্যান্ড ও ইথিওপিয়া ভোট দানে বিরত ছিল। শুধুমাত্র যুক্তরাষ্ট্রই কুয়েতী প্রস্তাবের বিরুদ্ধে ভেটো ক্ষমতা প্রয়োগ করেছে। প্রাথমিক পর্যায়ে কুয়েতী প্রস্তাবটিতে ফিলিস্তিনিদের রক্ষায় আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপের ব্যবস্থা করার কথা থাকলেও পরে তা তিন দফায় সংশোধন করা লেগেছিল। সর্বশেষ সংশোধিত প্রস্তাবে ‘গাজা উপত্যকাসহ দখলকৃত ফিলিস্তিনের নাগরিকদের সুরক্ষা ও নিরাপত্তা নিশ্চিতে ব্যবস্থা নেওয়ার’ সুপারিশ করা হয়েছিল। তারপরও জাতিসংঘে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের স্থায়ী প্রতিনিধি নিকি হ্যালি প্রস্তাবটির বিরুদ্ধে ভেটো দিতে গিয়ে বলেছেন, প্রস্তাবটি ‘খুবই এক পেশে।’ তিনিও ফিলিস্তিনিদের দুর্ভোগের জন্য গাজার নিয়ন্ত্রণে থাকা হামাসকে দায়ী করেছেন।
এই ঘটনার পর ‘প্যালেস্টিনিয়ান লিবারেশন অর্গানাইজেশনের’ কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য হানান আশরাউই বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র আরও একবার প্রমাণ করল তারা ইসরাইললের অন্ধ সমর্থক এবং ইসরাইল যতবারই আইন ভাঙুক, ইচ্ছা মতো মানুষ মারুক, গণহত্যা চালাক, যুদ্ধাপরাধ করুক, সব সময়ই যুক্তরাষ্ট্র তাদের দোষ ঢাকার চেষ্টা করবে। তার ভাষ্য, ‘এই ভেটো প্রদানের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র আরও একবার ইসরাইলের আইন ভাঙার অভ্যাস এবং ইসরাইলি সেনাবাহিনীর নির্মম দখলদারিত্বকে যথার্থতা দেওয়ার চেষ্টা করল এবং আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইন, আন্তর্জাতিক আইন, এবং ফিলিস্তিনি জনগণের বিরুদ্ধে ইসরাইলের হানা আঘাতের আইনি ও রাজনৈতিক বৈধতা দিলো।
যুক্তরাষ্ট্র তার প্রস্তাবে হামাসসহ সমমনা সকল সংগঠনের তৎপরতা বন্ধের প্রস্তাব করেছে। তাদের উপস্থাপিত প্রস্তাবে ইসরাইলি সরকারের বলপ্রয়োগের ঘটনা ও ফিলিস্তিনিদের সুরক্ষা দেওয়ার বিষয়ে কোনও কিছু বলা হয়নি। যুক্তরাষ্ট্র নিজেই শুধু ওই প্রস্তাবে ভোট দিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র হিসেবে স্বীকৃত দেশগুলোও সমর্থ দেয়নি। মার্কিন প্রস্তাবে নিরাপত্তা পরিষদের ৩ সদস্য না ভোট দিয়েছে। ভোট দানে বিরত ছিল ১১টি দেশ। সূত্র : আল-জাজিরা।



 

Show all comments
  • মাহবুব ৩ জুন, ২০১৮, ১১:২৯ পিএম says : 0
    এখানে আপনি আপনার মন্তব্য করতে পারেন ইসরাইল প্রীতিই একদিন মার্কিনীদের অনুশোচনার কারণ হবে এবং রাশিয়ার প্রভাব বৃদ্দিতে সহায়ক।অসহায় মুসলিম বিশ্বকে ইতিমধ্যে মায়াকান্নার অভিনয়ে জোট গঠনের বহু পথ অগ্রসর হয়েছে রাশিয়া, যা মার্কিন ইমেজে অপমানজনক তিলক। আমরা থিউরিক্যাল ম্যাড রাশিয়ার চেয়ে আপেক্ষিকভাবে আমেরিকাকে পছন্দ করি।কিন্তু তার মাত্রাহীন ইসরাইল প্রেম যে তারই জন্য ক্ষতির কারন হচ্ছে,তা অনুভবে যৌক্তিক ভালবাসার প্রয়োজনে কষ্ট পাচ্ছি।আমাদের শান্তি মিঃ Trump.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ফিলিস্তিন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ