Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ০৩ ভাদ্র ১৪২৬, ১৬ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

যশোরের সেই প্রিন্সিপাল ফের স্বপদে বহাল

যশোর ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১০ জুন, ২০১৮, ১২:০০ এএম

যশোরের নাভারন ফজিলাতুননেছা মহিলা কলেজের সাবেক সভাপতি আলহাজ শেখ আফিল উদ্দিন এমপির স্বাক্ষর জালিয়াতি করে মোটা অংকের অর্থ তছরূপকারী বরখাস্তকৃত প্রিন্সিপাল জামাল উদ্দিন স্বপদে বহাল হওয়ায় কলেজ পরিচালনা কমিটির মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
জানা যায়, তার বিরুদ্ধে মোটা অংকের টাকা তছরুপের অভিযোগ উঠলে তাকে বরখাস্ত করা হয়। কিন্তু তছরুপ হওয়া অর্থ পরিশোধ না করেই কর্মস্থলে যোগদানের বিষয়টি কলেজ পরিচালনা পরিষদের অধিকাংশ সদস্য মেনে নিতে পারছেন না।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ফজিলাতুননেছা মহিলা কলেজের সাবেক সভাপতি যশোর-১ শার্শা আসনের এমপি আলহাজ শেখ আফিল উদ্দিনের স্বাক্ষর জাল করে ফাস্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক নাভারন শাখা থেকে ২০ হাজার টাকা উত্তোলন করেন প্রিন্সিপাল জামাল উদ্দিন। স্বাক্ষর জালিয়াতির ঘটনায় ২০১৬ সালের ২৮ মার্চ ধরা পড়েন তিনি। কলেজ পরিচালনা পরিষদ প্রিন্সিপাল জামাল উদ্দিনের আরো চেকে স্বাক্ষর জালিয়াতির আরো তথ্য জানতে পারেন। প্রিন্সিপাল অগ্রণী ব্যাংক বেনাপোল শাখার ০২০০০০১৮৭৪১৮৯ হিসাব নম্বরের আরো ৫টি চেকে এমপি আলহাজ শেখ আফিল উদ্দিনের স্বাক্ষর জাল করে ১ লাখ ৪০ হাজার উত্তোলন করেন।
দুই ব্যাংকের মোট ৬টি চেকে স্বাক্ষর জালিয়াতি করে ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা উত্তোলনের ঘটনায় প্রিন্সিপাল জামাল উদ্দিনের বিরুদ্ধে শার্শা থানায় মামলা করেন কলেজ পরিচালনা পরিষদের সভাপতি আলহাজ শেখ আফিল উদ্দিন এমপি। মামলাটি বর্তমানে আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। এদিকে, গোপন যোগাযোগের মাধ্যমে ২০১৮ সালের ২৩ এপ্রিল জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত কলেজ পরিদর্শক ড. মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান স্বাক্ষরিত জামাল উদ্দিনের সাময়িক বরখাস্ত আদেশ প্রত্যাহারের অনুরোধ জানিয়ে একটি পরিপত্র পাঠনো হয় কলেজ পরিচালনা পরিষদের সভাপতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পুলক কুমার মন্ডলের কাছে। এতে অধিকাংশ সদস্যের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: প্রিন্সিপাল

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন