Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ১১ কার্তিক ১৪২৭, ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

ফের খুলনায় পাটকল শ্রমিকদের রাজপথ-রেলপথ অবরোধ

প্রকাশের সময় : ১১ এপ্রিল, ২০১৬, ১২:০০ এএম

খুলনা ব্যুরো : ৩ দিন বিরতির পর ফের অনির্দিষ্টকালের জন্য রাজপথ-রেলপথ অবরোধ শুরু করেছে খুলনার পাটকল শ্রমিকরা।
আজ সোমবার সকাল ৬টা থেকে অবরোধ শুরু করেছে শ্রমিকরা। চলবে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত। এই শ্রমিক ধর্মঘটে খুলনা অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত ৭টি পাটকলের শ্রমিকরা অংশ নিয়েছে।
ফলে ঢাকাগামী চিত্রা ট্রেনসহ ৫টি ট্রেন এবং অসংখ্য যানবাহন আটকা পড়ে ভয়াবহ দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন বিভিন্ন রুটে চলাচলরত যাত্রীরা।
খুলনার জেলা প্রশাসক মো. নাজমুল আহসানের আশ্বাসে শ্রমিকরা গত বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে তিন দিনের জন্য রাজপথ-রেলপথ অবরোধ কর্মসূচি প্রত্যাহার করে নিয়েছিল।
রাষ্ট্রায়ত্ত জুট মিল সিবিএ-নন সিবিএ ঐক্য পরিষদ গত ৪ এপ্রিল ভোর ৬টা থেকে অনির্দিষ্টকালের শ্রমিক ধর্মঘট পালন করে বিক্ষোভ মিছিল, রাজপথ-রেলপথ অবরোধ কর্মসূচি পালন করে আসছিল।
রাষ্ট্রায়ত্ত জুট মিল সিবিএ-নন সিবিএ ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক সোহরাব হোসেন জানান, পাট খাতে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ, মজুরি বৃদ্ধি, বকেয়া মজুরি প্রদান, ২০ভাগ মহার্ঘভাতাসহ ৫ দফা দাবিতে ৪র্থ ধাপের ২১ দিনের কর্মসূচি অনুযায়ী ৩ এপ্রিলের মধ্যে দাবি আদায় না হলে কঠোর কর্মসূচি দেয়ার ঘোষণা ছিল।
কিন্তু তাদের আহ্বানে সাড়া না দেয়ায় তারা ৪ এপ্রিল থেকে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট শুরু করে।
পরে জেলা প্রশাসক মো. নাজমুল আহসান ২ সপ্তাহ মজুরির নিশ্চয়তা এবং দাবির বিষয় অলোচনায় বসার আহ্বান জানিয়েছিলেন। সে আশ্বাসের প্রেক্ষিতে তারা গত ৭ এপ্রিল বৃহস্পতিবার থেকে তিন দিন রাজপথ-রেলপথ অবরোধ কর্মসূচি স্থগিত ঘোষণা করেন।
কিন্তু এই সময় পাট মন্ত্রণালয় কোন আলোচনার উদ্যোগ এবং মজুরি না দেয়ায় তারা আজ সোমবার থেকে লাগাতার সকাল থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত রাজপথ-রেলপথ অবরোধ কর্মসূচি পালন শুরু করেছে।
খুলনা জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান জানান, তিনি রোববার রাতে আবারও পাট মন্ত্রণালয়ে বার্তা দিয়েছেন।
তিনি বলেন, শ্রমিকরা ২ সপ্তাহের মজুরি আসলে পায়নি।
সোমবার সকাল ৬টার দিকে মিলের শ্রমিকরা স্ব স্ব মিল গেটে সমবেত হয়। পরে মিছিল করে খুলনা খালিশপুর এবং আটরা শিল্প এলাকায় রাজপথ-রেলপথ অবরোধ শুরু করে অবস্থান গ্রহণ করে। শ্রমিকরা কাঠের গুঁড়ি এবং টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়। একই কর্মসূচি চলছে যশোর নওয়াপাড়া রাজঘাট এলাকায়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ