Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৫ আগস্ট ২০১৮, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৫, ০৩ যিলহজ ১৪৩৯ হিজরী‌

চিঠিপত্র

| প্রকাশের সময় : ১২ জুন, ২০১৮, ১২:০০ এএম

বড় জাতের রসুন বীজ আমদানি করুন
বাংলাদেশ মানুষের খাবার জন্য কয়েক দশক ধরে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ রসুন আমদানি করে। স্থানীয়ভাবে চাষ করা দেশি রসুনের প্রতিটির ওজন ৫ থেকে ১০ গ্রাম হলেও আমদানিকৃত রসুনের আকার দেশি রসুনের চেয়ে পাঁচ থেকে দশগুণ বড় হয়, প্রায় ৫০ থেকে ১০০ গ্রাম হয়। যুক্তরাষ্ট্রের ওহাইও স্টেটে প্রতিবছর রসুনচাষিদের একটি মেলা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে এমন রসুনও দেখানো হয়েছে, যার ওজন প্রায় ৩০০ গ্রাম। সাধারণত বাংলাদেশ চীন থেকে বড় আকারের রসুন আমদানি করে থাকে। সামপ্রতিক বছরগুলোতে দেশে রসুনের উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে তার পরিমাণ এখনও দেশের চাহিদা পূরণ করতে পারছে না। আশা করা যায়, কয়েক বছরের মধ্যে বড় জাতের রসুন বীজ বাংলাদেশকে তার প্রয়োজন পূরণের মতো উৎপাদনের সুযোগ করে দেবে, যা দেশের জন্য বৈদেশিক মুদ্রা ব্যয় হ্রাসে সহায়তা করবে। এ কাজে কৃষি সমপ্রসারণ অধিদপ্তর এবং বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশনের উদ্যোগ খুবই দরকার। তাদেরকে কয়েকটি প্রকল্প গ্রহণ করতে হবে, যাতে দেশের প্রয়োজনীয় রসুন সম্পূর্ণ দেশেই উৎপাদন করা যায়। প্রকল্পের আওতায় বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশনকে উচ্চ ফলনশীল বড় জাতের রসুন বীজ আমদানি করতে হবে। রসুন বীজ যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমদানি করতে হবে। কৃষি সমপ্রসারণ অধিদপ্তর কর্তৃক কৃষকদের বড় জাতের রসুন চাষে উৎসাহ জোগাতে হবে এবং তাদেরকে উৎপাদনের প্রযুক্তির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতে হবে। তাহলেই এ প্রকল্প বাংলাদেশের প্রয়োজনীয় রসুন উৎপাদন নিশ্চিত করবে।
মো. আশরাফ হোসেন
সেন্ট্রাল বাসাবো, ঢাকা।

 

কৃষিজমি রক্ষা করুন
দেশের প্রায় প্রতিটি নদীতীরে গড়ে উঠেছে ইটভাটা। এই ইটভাটাগুলো পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন এলাকায় কৃষকদের কৃষিজমির মাটি জোর করে কেটে নিয়ে যাচ্ছে। ইটভাটার মালিকরা এতই প্রভাবশালী যে, এদের কাছে কৃষকরা সর্বত্রই যেন বড় অসহায়। জিম্মি হয়ে আছে ওদের কাছে। ইটভাটার মালিকরা কোথাও কোথাও নদীতীর দখল করে এদের ইট তৈরির ব্যবসা চালিয়েও যাচ্ছে। যে জন্য নদীগুলো পড়ছে দূষণের কবলে। শুধু কি তাই, এরা নদীর মাটিও লুটেপুটে নিচ্ছে। নদীও হচ্ছে ক্ষতিগ্রস্ত। ইটভাটার ইট পোড়ানোর জন্য ইটভাটার মালিকরা আশপাশের গাছপালা ও সামাজিক বনভূমি উজাড় করে দিচ্ছে। এতে করে পরিবেশও হচ্ছে বিপর্যস্ত। এ অবস্থায় কৃষিজমি ও নদী রক্ষার জন্য যা যা করণীয় সংশ্লিষ্ট বিভাগকে সেই ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।
লিয়াকত হোসেন খোকন
ঢাকা।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর