Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ১৯ আগস্ট ২০১৮, ০৪ ভাদ্র ১৪২৫, ০৭ যিলহজ ১৪৩৯ হিজরী‌

চিঠিপত্র

| প্রকাশের সময় : ১৩ জুন, ২০১৮, ১২:০০ এএম

জবির আবাসন সঙ্কট
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) প্রায় ১৯ হাজার শিক্ষার্থীর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা হলো আবাসন। ২০০৫ সালের ২০ অক্টোবর পুরান ঢাকার সদরঘাটে বিশ্ববিদ্যালয়টি (কলেজ থেকে বিশ্ববিদ্যালয়) প্রতিষ্ঠার শুরু থেকেই সাধারণ শিক্ষার্থীরা হলো উৎখাত। নতুন হল নির্মাণের মাধ্যমে আবাসন সংকটের দাবি জানিয়ে আসছে। উল্লেখ্য, জবির পুরনো ১২টি হল থাকলেও নানা জটিলতায় উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। প্রশাসন শুধু আবাসন সংকট সমাধানের বিভিন্ন রকম আশ্বাস দিয়ে গেছেন। বাস্তবে কাজের কাজ কিছুই হয়নি। স¤প্রতি বিশ্ববিদ্যালয় স্থানান্তর, স¤প্রসারণ ও আবাসন সমস্যার সমাধানে ঢাকার অদূরে বুড়িগঙ্গা নদীর ওপারে কেরানীগঞ্জের তেঘরিয়া ইউনিয়নে প্রায় ২০০ একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়টির জন্য সব ধরনের সহযোগিতারও আশ্বাস দিয়েছেন। কেরানীগঞ্জের এই জায়গায় ২০১৮ সালের শুরুর দিকে ক্যাম্পাস স¤প্রসারণসহ শিক্ষার্থীদের আবাসন সংকট সমাধানে নতুন হল নির্মাণের কথা। কিন্তু এখনও কাজ শুরু হওয়ার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না।
সাধন সরকার
ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।


ঈশ্বরদী বিমানবন্দর কবে চালু হবে
ঈশ্বরদী শহরে ৪৩৬ দশমিক ৬৫ একর জায়গা নিয়ে স্থাপিত হয়েছিল একটি বিমানবন্দর। ১৯৬৫ সালে বিমান চলাচল শুরু হয়েছিল। বর্তমানে অবশ্য মাত্র ৭০ একর জায়গা অবশিষ্ট আছে। শুরুতে ঢাকার সঙ্গে নিয়মিত দুটি ফ্লাইট ছিল। মুক্তিযুদ্ধের সময় বিমানবন্দরটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ১৯৭২ সালে সংস্কার করে এটি আবার চালু করা হয়। ১৯৮৭ সালে লোকসানের কারণে বিমান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। পরে বেশ কয়েক দফা চালু ও বন্ধ হয়েছে। সর্বশেষ বন্ধ হয় ২০১৪ সালে। ঈশ্বরদীর বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে কথা বলে দেখা গেল, কেবল যোগাযোগ ব্যবস্থা হিসেবেই নয়, বিমানবন্দর তাদের কাছে এলাকার একটি গর্বের বিষয়ও। সবাই চান, দ্রæত এটি চালু করা হোক। ঈশ্বরদীতে অবস্থানরত রুশসহ বিভিন্ন দেশের তিন শতাধিক বিদেশি বিমান ভ্রমণ করতে না পেরে প্রতিনিয়ত অসুবিধার সম্মুখীন হচ্ছেন। নানা কারণেই ঈশ্বরদীর এই বিমানবন্দরটি আবারও চালু হওয়া বিশেষ প্রয়োজন। প্রধানমন্ত্রীর সদয় সুদৃষ্টি কামনা করছে ঈশ্বরদীবাসী, যাতে ঈশ্বরদী বিমানবন্দর অতিশিগগিরই চালুর উদ্যোগ নেওয়া হয়।
এস এম সাইদুর রহমান উলু
স্কুলপাড়া, এয়ারপোর্ট রোড, ঈশ্বরদী, পাবনা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর