Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৬ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

বিএনপি-আ.লীগ সংঘর্ষ বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ সাড়ে ৬শ’ জনকে অভিযুক্ত করে পুলিশের মামলা

প্রকাশের সময় : ১২ এপ্রিল, ২০১৬, ১২:০০ এএম

গাবতলী (বগুড়া) উপজেলা সংবাদদাতা

বগুড়া গাবতলীর রামেশ্বরপুরে নির্বাচনী সহিংসতার ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে সাড়ে ৬শ’ জনকে অভিযুক্ত করে একটি মামলা দায়ের করেছে। গত রোববার এসআই আবু জাররা বাদী হয়ে পুলিশের কাজে বাঁধা প্রদান ও ককটেল বিস্ফোরণ আইনে রামেশ্বরপুর ইউপির বিএনপি মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল ওহাব মন্ডলকে প্রধান আসামি করে ৪৮জনের নাম উল্লেখ করে ৫শ’ থেকে ৬শ’ জন অজ্ঞাত বলে মামলাটি দায়ের করা হয়। পুলিশ এই মামলায় ৬জনকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে প্রেরণ করেছে। উল্লেখ্য, ২৩ এপ্রিলে ইউপি নির্বাচন উপলক্ষে গত শনিবার গাবতলীর রামেশ্বরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে বিএনপি মনোনীত ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল ওহাব মন্ডলের নির্বাচনী সভা চলছিল। এসময় নৌকা মার্কার সমর্থকরা সভাকে বানচাল করার চেষ্টা করলে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ বেঁধে যায়। সংঘর্ষকালে দফায় দফায় ককটেল বিস্ফোরণ, ১১টি মোটরসাইকেল অগ্নিসংযোগ, ১৬টি দোকান ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষকালে এসআই ফিরোজ, আলিম, কনস্টেবল আহসান, আশরাফসহ কমপক্ষে ১০জন আহত হয়। এদের মধ্যে গুরুতর আহত হয় রামেশ্বরপুর আকন্দপাড়া গ্রামের শামীম আহম্মেদ (২৮)। পুলিশ উত্তেজনাকর পরিস্থিতিকে নিয়ন্ত্রণে আনতে ৭৬ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে ও ঘটনাস্থল থেকে ৫জনকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃতরা হল রামেশ্বরপুর ইউনিয়নের নামাজপুর মোল্লাপাড়া গ্রামের আব্দুল বারী, রঞ্জু, তেজোপাড়া গ্রামের মামুন, মাঝপাড়া গ্রামের শফিকুল ও কাগইলের দাসকান্দি গ্রামের সাবলু। গত রোববার পুলিশ জিন্নাকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত জিন্না রামেশ্বরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এমএলএসএস ও রামেশ্বরপুর মাঝপাড়া গ্রামের আব্দুস ছাত্তারের ছেলে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন