Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৭ আশ্বিন ১৪২৫, ১১ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

এবারও ঈদে ছোট পর্দার বড় আকর্ষণ হানিফ সংকেত-এর ইত্যাদি

বিনোদন রিপোর্ট | প্রকাশের সময় : ১৪ জুন, ২০১৮, ১২:০০ এএম

প্রতি বছরের মত এবারও ঈদ আনন্দের সাথে দর্শকদের জন্য বাড়তি আনন্দ নিয়ে আসছে হানিফ সংকেত-এর ইত্যাদি। ঈদের সঙ্গে ইত্যাদির ঐতিহ্যের এক মেলবন্ধন তৈরি হয়েছে। দর্শকরাও ঈদের সময় অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করেন ইত্যাদি দেখার জন্য। কোন নির্দিষ্ট বয়স বা শ্রেণীর জন্য নয়, সব বয়সী ও শ্রেণী পেশার মানুষের জন্যই ইত্যাদি। নিয়মিত ইত্যাদি ঢাকার বাইরে বিভিন্ন ঐতিহাসিক ও প্রত্মতাত্তি¡ক নিদর্শন সমৃদ্ধ স্থানে ধারণ করা হলেও ঈদের ইত্যাদি ধারণ করা হয় ঢাকায়। কারণ বর্ষাকালে উন্মুক্ত স্থানে দর্শক নিয়ে অনুষ্ঠান করা ঝুঁকিপূর্ণ, এবং ঈদ আয়োজনের চার-পাঁচশো অংশগ্রহণকারীকেও ঢাকার বাইরে নিয়ে যাওয়া অসম্ভব। তাই এবারেও ঈদের ইত্যাদি ধারণ করা হয়েছে মিরপুর শহীদ সোহ্রাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে। ইনডোর স্টেডিয়ামের প্রায় তিন ভাগের এক ভাগ স্থান জুড়ে নির্মাণ করা হয়েছিল নান্দনিক সেট। বর্নাঢ্য এই আয়োজনে পুরো অনুষ্ঠানটিতে এক উৎসবের আমেজ তৈরী হয়েছিল। বরাবরের মত এবারও ইত্যাদি শুরু করা হয়েছে ‘ও মন রমজানের ঐ রোজার শেষে এলো খুশীর ঈদ’ এই গানটি দিয়ে। নানা শ্রেণী-পেশার মানুষের অংশগ্রহণের ধারাবাহিকতায় এবারের গানটি পরিবেশন করবেন কয়েক হাজার শ্রমজীবী মানুষ ও ইনডোর স্টেডিয়ামে আগত কয়েক হাজার দর্শক। এবারের ঈদ ইত্যাদিতে একটি বিষয়ভিত্তিক গান গেয়েছেন নন্দিত শিল্পী সাবিনা ইয়াসমিন ও এ্যান্ড্রু কিশোর। সা¤প্রতিক সময়ে দেশে উদ্বেগজনক হারে বেড়ে যাওয়া সড়ক দুর্ঘটনা ও আমাদের সচেতনতা নিয়ে গানটির কথা লিখেছেন মোহাম্মদ রফিকউজ্জামান, সঙ্গীতায়োজন করেছেন ফরিদ আহমেদ। গানটির চিত্রায়নে সাবিনা ইয়াসমিন ও এ্যান্ড্রু কিশোরের সঙ্গে অংশ নিয়েছে শতাধিক নৃত্যশিল্পী। ইত্যাদির নাচ মানেই বাড়তি আয়োজন, বাড়তি আকর্ষণ এবং ভিন্নমাত্রা। ইত্যাদিই একমাত্র অনুষ্ঠান যেখানে নাচের প্রচলিত ধারার বাইরে বিষয় ভিত্তিক নাচ করা হয়। এবারের নাচটিতেও রয়েছে ব্যাপক আয়োজন এবং সমসাময়িক বিষয়। নাচটি পরিবেশন করবেন দেশের খ্যাতিমান নৃত্যজুটি শিবলী মোহাম্মদ ও শামীম আরা নিপা। তাদের সঙ্গে ছিলেন প্রায় শতাধিক নৃত্য ও অভিনয় শিল্পী। ছন্দে-সুরে ব্যতিক্রমী একটি আলোচনায় অংশগ্রহণ করেছেন অভিনেতা শহীদুজ্জামান সেলিম, মীর সাব্বির, সাজু খাদেম ও শাহরিয়ার নাজিম জয়। এবারের ঈদ ইত্যাদির নানা চমকের একটি হচ্ছে এই প্রজন্মের ৪ তারকাকে নিয়ে একটি বিষয়ভিত্তিক বিশেষ গান। নাচে-গানে পর্বটিতে প্রাণবন্ত অভিনয় করেছেন চিত্রনায়ক ফেরদৌস, অভিনেতা অপূর্ব, অভিনেত্রী মম ও মোনালিসা। তাদের সাথেও নৃত্যে অংশগ্রহণ করেছেন অর্ধশতাধিক নৃত্যশিল্পী। ঈদ ইত্যাদির চমকের একটি হচ্ছে বিশেষ মিউজিক্যাল ড্রামা। এবারের মিউজিক্যাল ড্রামায় অভিনয় করেছেন অভিনয় তারকা ঈমন ও কুসুম শিকদার এবং অন্যটিতে অভিনয় করেছেন এই প্রজন্মের জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী প্রতীক হাসান ও কনা। সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন নাভেদ পারভেজ। শুধু প্রত্যন্ত অঞ্চলে গিয়ে অনুষ্ঠান ধারণই নয়, প্রায় দুই যুগ ধরে ইত্যাদিতে বিদেশি নাগরিকদের দিয়েও আমাদের লোকজ সংস্কৃতি, বিভিন্ন গ্রামীণ খেলাধুলা, ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে নিয়মিতভাবে তুলে ধরা হচ্ছে। এর ফলে বিদেশিদের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ছে আমাদের সংস্কৃতি। বিদেশিদের নিয়ে এবারও রয়েছে তেমনি একটি ব্যতিক্রমী আয়োজন। এই পর্বটিতে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের প্রায় অর্ধ শতাধিক বিদেশি নাগরিক অংশগ্রহণ করেছেন। এবারের বিষয় ‘পারিবারিক শান্তি’। জন্ম, মৃত্যু, বিয়ে সবজায়গাতেই টাকার খেলা। এই বিষয় নিয়েই পরিবেশিত হয়েছে এবারের দলীয় সঙ্গীত। এতে অংশগ্রহণ করেছেন ইত্যাদির নিয়মিত নৃত্যশিল্পীরা। নৃত্য পরিচালনা করেছেন মামুন। সঙ্গীতায়োজন করেছেন মেহেদী। দর্শক নির্বাচন প্রক্রিয়ায় প্রতিটি দর্শকের হাতে একটি করে বর্ণাঢ্য উপকরণ দিয়ে বাছাই করা হয়েছে অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বের জন্য ৩ জন দর্শক। রয়েছে স্মৃতির আড়ালে হারিয়ে যাচ্ছে আমাদের দেশিয় বাদ্যযন্ত্র, ভিনদেশী সংস্কৃতি ধীরে ধীরে গ্রাস করে নিচ্ছে আমাদের সংস্কৃতি, তার উপর ভিত্তি করেই তাৎক্ষণিকভাবে তৈরী কিছু টুকরো নাট্যাংশে পরবর্তী পর্বে চঞ্চল চৌধুরীর সঙ্গে অভিনয় করেছেন নির্বাচিত দর্শকরা। দর্শক এবং চঞ্চল চৌধুরীর তাৎক্ষণিক অভিনয় পর্বটিকে প্রানবন্ত করে তোলে। রয়েছে আজিজুল হাকিম ও রোজী সিদ্দিকীর মজাদার দাম্পত্য কলহ পর্ব। মামার মানা সত্তেও এবারের ঈদেও মৌসুমী ব্যবসায়ী ভাগ্নে নতুন ব্যবসার পরিকল্পনা করেছে। আর ওদিকে নানী-নাতিকে দেখা যাবে স্টুডিওতে দর্শকদের সামনে। তবে এবারে তাদের সঙ্গে ছিল একদল চৌকষ ব্যান্ড বাদক। এছাড়া ঈদকে ঘিরে ডজনখানেক বিদ্রুপাত্বক রসালো নাট্যাংশ রয়েছে এবারের পর্বে। প্রচারে প্রসার না অসাড়, ভিক্ষুকের ভিক্ষায় নতুনত্ব, হুঁশ হয়ে ঘুষ নেওয়া, যানজট, হকার যখন টকার, তকদিরের তদবির, অর্থ না বোঝায় অনর্থ কান্ডসহ বিভিন্ন বিষয়ে আরো কয়েকটি নাট্যাংশ রয়েছে। ইত্যাদির শিল্প নিদের্শনা করেছেন যথারীতি মুকিমূল আনোয়ার মুকিম। পরিচালকের সহকারী হিসাবে ছিলেন রানা সরকার ও মামুন মোহাম্মদ। প্রতিবারের মত এবারেও ছোট পর্দার বড় আকর্ষন থাকবে ইত্যাদি। ইত্যাদি রচনা, পরিচালনা ও উপস্থাপনা করেছেন হানিফ সংকেত। নির্মাণ করেছে ফাগুন অডিও ভিশন, স্পন্সর করেছে কেয়া কস্মেটিকস্ লিমিটেড। ইত্যাদি একযোগে প্রচারিত হবে বিটিভি ও বিটিভি ওয়ার্ল্ড-এ ঈদের পরদিন রাত ১০:২০ মিনিটে এবং ইত্যাদি পুনঃপ্রচার করা হবে ঈদের ৪র্থ দিন রাত ০৮টার বাংলা সংবাদের পর।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর