Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ৩০ কার্তিক ১৪২৫, ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

আজ ফেরদৌসী রহমানের জন্মদিন

বিনোদন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ জুন, ২০১৮, ১২:০২ এএম

‘এখন আর জন্মদিন নিয়ে তেমন কোন চিন্তা করিনা। আগের মতো শরীরও ভালো থাকেনা সবসময়। তবে এটা সত্য যে প্রতিবারই দিনটি বিশেষভাবে পালন করার চেষ্টা করে চ্যানেল আই। যদি শরীর ভালো থাকে আজও চ্যানেল আইয়ের তারকা কথন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবো। অনুষ্ঠানটিতে অংশগ্রহণ করতে বেশ ভালোই লাগে। জন্মদিনের বাকীটা সময় পরিবারের সঙ্গেই কাটবে আমার। আজ রাত ৯টায় বিটিভিতে প্রিয় শিল্পী প্রিয় গান অনুষ্ঠানটি প্রচার হবে। সবার কাছে দোয়া চাই যেন সবসময় সুস্থ থাকি, ভালো থাকি।’ নিজের জন্মদিন প্রসঙ্গে বলছিলেন, উপমহাদেশের প্রখ্যাত সঙ্গীতশিল্পী ফেরদৌসী রহমান। অনন্যা রুমার প্রযোজনায় আজ দুপুর ১২.৩০ মিনিটে চ্যানেল আইয়ের ‘তারকা কথন’ অনুষ্ঠানে জন্মদিনের বিশেষ আয়োজনে উপস্থিত থাকবেন ফেরদৌসী রহমান। অনুষ্ঠানটির উপস্থাপনা করবেন মৌসুমী বড়–য়া। আজ রাত ৯টায় বিটিভিতে মাহবুবা ফেরদৌস’র প্রযোজনায় ‘প্রিয় শিল্পী প্রিয় গান’ অনুষ্ঠান প্রচার হবে। এটি উপস্থাপনা করেছেন দিনাত জাহান মুন্নী। প্রায় পাঁচ বছর পর বিটিভিতে গান গাইলেন ফেরদৌসী রহমান। এই অনুষ্ঠানে শ্রোতা দর্শক তার কন্ঠে ‘যার ছায়া পড়েছে’,‘ পরাণে দোলা দিলো’,‘ আমি সাগরের নীল’,‘ লোকে বলে প্রেম আমি বলি জ্বালা’,‘আমি রূপনগরের রাজকন্যা’সহ আরো বেশ কয়েকটি গান শুনতে পাবেন। গত বছর জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ফেরদৌসী রহমানকে ‘আজীবন সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়। ফেরদৌসী রহমানের জন্ম ১৯৪১ সালে কুচবিহারে। ১৯৪৭ সালে ঢাকায় ‘সেন্ট জেভিয়ার্স’ স্কুলে ভর্তি হন তিনি। এখানে মেট্রিক পরীক্ষার চল ছিলনা। এজন্য তিনি বাংলাবাজার উচ্চবিদ্যালয়ে দশম শ্রেণীতে ভর্তি হন এবং এখান থেকে ১৯৫৬ সালে এসএসসি পরীক্ষায় মেয়েদের মধ্যে প্রথম এবং মেধাতালিকায় সপ্তম হন । ১৯৫৮ সালে এইচএসসি পরীক্ষায় ইডেন কলেজ থেকে দ্বাদশ স্থান লাভ করেন। ১৯৬১-৬২ শিক্ষাবর্ষে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞানে অনার্সসহ মাস্টার্স ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯৬৩ সালে সংগীতে ইউনেস্কো ফেলোশীপ নিয়ে লন্ডনের ট্রিনিটি কলেজ অব মিউজিকে স্টাফ নোটেসান শেখেন। সংগীতে প্রথম হাতেখড়ি নেন বাবা-মার কাছে। উচ্চাঙ্গসংগীতে তালিম নেন উপমহাদেশের খ্যাতনামা ওস্তাদদের কাছ থেকে। এদের মধ্যে মুহাম্মদ হোসেন খসরু, ইউসুফ খান কোরাইশি, কাদের জামেরী, নাজাকাত আলী খান, সালামত আলী খান, মাস্তান গামা, মুন্সি রইচ উদ্দিন, মুনির হোসেন, আব্দুল গহর খান উল্লেখযোগ্য। মাত্র ছয় বছর বয়সে রেডিওতে প্রথম গান করেন ‘খেলাঘর’ অনুষ্ঠানে । ১৯৬৪ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান টেলিভিশনের উদ্বোধনী দিনে প্রথম শিল্পী হিসেবে তিনি সঙ্গীত পরিবেশন করেন - ‘ঐ যে আকাশে নীল হলো আজ সেও তোমার প্রেমে’। প্রথম ডিস্ক রেকর্ড বের হয় ১৯৫৭ সালে হিস মাস্টার্স ভয়েজ থেকে ‘আমায় ঘর ছাড়া করিলি’ এবং ‘আমার প্রাণের ব্যথা কে বুঝবে সই’। তার গাওয়া বেশকিছু সিডি এবং অসংখ্য ক্যাসেট বেরিয়েছে দেশে-বিদেশে। তিনি প্রায় আড়াইশ সিনেমা’তে প্লেব্যাক করেছেন। এছাড়া জীবনে হাজার হাজার গান গেয়েছেন বেতার, টেলিভিশন এবং মঞ্চে। খেয়াল, ঠুমরী, দাদরা, গজল, গীত, নজরুলসংগীত, আধুনিক, পল্লীসংগীত, ভাটিয়ালি, ভাওয়াইয়া, চটকা, বিচ্ছেদী, বারোমাসি ইত্যাদি । তিনি চলচ্চিত্রে প্রথম সঙ্গীত পরিচালনা করেন রবিন ঘোষ-এর সাথে ‘রাজধানীর বুকে’ ছবিতে। এককভাবে সংগীত পরিচালনা করেন ‘মেঘের অনেক রং’ ছবিতে। এই ছবিতে তিনি শ্রেষ্ঠ সংগীত পরিচালক হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও অর্জন করেন। ফেরদৌসী রহমান আব্বাসউদ্দীন সংগীত একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ। নজরুল সঙ্গীত শিল্পী পরিষদের সভাপতির দায়িত্বও পালন করেছেন। জন্মদিনে বিনোদন প্রতিদিনের পক্ষ থেকে তাকে শুভেচ্ছা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর