Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৯, ৬ বৈশাখ ১৪২৬, ১২ শাবান ১৪৪০ হিজরী।

আন্দ্রেজ লোপেজ ওব্রাদর মেক্সিকোর নয়া প্রেসিডেন্ট

দুর্নীতি নির্মূল, দারিদ্র্য দূর : সহিংসতা অবসানের প্রতিশ্রুতি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩ জুলাই, ২০১৮, ১২:০২ এএম

মেক্সিকোতে রোববার অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আন্দ্রেজ ম্যানুয়েল লোপেজ ওব্রাদর বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়ে দেশের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন। মেক্সিকো সিটির সাবেক মেয়র নবনির্বাচিত এই প্রেসিডেন্টকে দেশের মানুষ এএমএলও নামে ডাকে। তিনি প্রায় ৫৩ শতাংশ ভোট পেয়েছেন। তার প্রাপ্ত ভোট নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বীর দ্বিগুণ। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। প্রতিদ্ব›দ্বীরা পরাজয় স্বীকার করে নিয়ে তাকে শুভকামনা জানিয়েছেন। বিশ্লেষকরা বলছেন, নির্বাচনে ভ‚মিধস বিজয় তার জন্য দেশকে নতুন করে গড়ার সুযোগ এনে দিয়েছে। তিনি হচ্ছেন কয়েক দশকের মধ্যে ল্যাটিন আমেরিকার দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির নেতৃত্বে আসা প্রথম বামপন্থী প্রেসিডেন্ট। ৬৪ বছর বয়স্ক ওব্রাদরের এটি ছিল তার তৃতীয় দফা প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অংশগ্রহণ। তিনি দুর্নীতি নির্মূল, দারিদ্র দূরীকরণ ও কম সহিংস পন্থায় মাদক চক্রকে দমন করার প্রতিশ্রæতি দিয়েছেন।
মেক্সিকোর প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারণায় বহু সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। এতে ১৩০ জন রাজনৈতিক নেতা ও দলীয় কর্মী প্রাণ হারান। এই নির্বাচনে সমর্থকদের কাছে আমলো নামে পরিচিত ওব্রাদরের প্রধান প্রতিপক্ষ ছিলেন ক্ষমতাসীন ‘ইনস্টিটিউশনাল রেভুল্যুশনারি পার্টি’ (পিআরআই) ও ‘ন্যাশনাল অ্যাকশন পার্টির’ (প্যান) প্রার্থীরা। পিআরআইয়ের প্রার্থী হোসে অ্যান্তোনিও মিয়াদে ভোটের হিসেবে তৃতীয় স্থানে রয়েছেন। ওব্রাদরকে শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি তার জন্য সফলতা কামনা করেছেন। আর দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা প্যানের প্রার্থী রিকার্ডো আনায়া বলেন, জনগণ পরিবর্তন চেয়েছিল। আমি তার বিজয় স্বীকার করে নিচ্ছি। আমি তাকে অভিনন্দন জানাই এবং সমৃদ্ধ মেক্সিকোর জন্য তার সফলতা কামনা করি।’
নির্বাচনে বিপুল পরিমাণ ভোট পাওয়া ওব্রাদর তার নির্বাচন পরবর্তী প্রথম প্রকাশ্য ভাষণে জানিয়েছেন, দুর্নীতির মূলোৎপাটন ও দায়মুক্তির সংস্কৃতির অবসান ঘটানো তার প্রধান লক্ষ্য। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ‘বন্ধুত্ব ও সহযোগিতার’ সম্পর্ক স্থাপন করতে চান।
প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বামপন্থী ওব্রাদরের বিজয় প্রসঙ্গে বিবিসি জানায়, ক্ষমতাসীন পিআরআই সমর্থিত প্রেসিডেন্ট এনরিক পেনা নিয়েতোর শাসনে মেক্সিকোর জনগণ অখুশি ছিল। দেশটিতে একদিকে যেমন দেখা দিয়েছিল অর্থনৈতিক মন্দা, অন্যদিকে তেমন ছিল দুর্নীতির বিস্তার। দুর্নীতির বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়ার প্রতিশ্রæতিটিকে নির্বাচনি প্রচারণার কেন্দ্রে রেখেছিলেন ওব্রাদর। তবে তার সমালোচকরা বলেছেন, তিনি জনপ্রিয়তার জোয়ারে ভাসলেও দেশের অর্থনীতি তার হাতে ছেড়ে দেওয়া যায় না।
আনুষ্ঠানিকভাবে ফল ঘোষণার আগেই লোপেজ ওব্রাদরকে অভিনন্দন জানিয়েছেন ট্রাম্প। এক টুইটে তিনি বলেন, আমি তার সাথে কাজ করতে চাই। অনেক কিছু করার রয়েছে যা থেকে যুক্তরাষ্ট্র ও মেক্সিকো উভয়েই লাভবান হবে। রোববার ট্রাম্প নয়া সরকারের সাথে উত্তেজনা অব্যাহত থাকলে মেক্সিকো থেকে আমদানি করা গাড়ির ওপর শুল্ক আরোপের সম্ভাবনার কথা জানান। ওব্রাদর এমনিতে ট্রাম্পের সমালোচক। তিনি বলেন, যুক্তিযুক্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণে তিনি ট্রাম্পকে বোঝাবার চেষ্টা করবেন।
টাবাস্কো স্টেটে জন্মগ্রহণকারী লোপেজ ওব্রাদর ২০০০ সালে মেক্সিকো সিটি মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর প্রথম বিশে^র দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। ২০০৬ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অংশ করেন। কিন্তু স্বল্প ভোটে পরাজিত হন। তিনি নির্বাচনে জালিয়াতির বিরুদ্ধে সোচ্চার হন ও এর বিরুদ্ধে আন্দোলনে রাজপথে নামেন। বিপুল আত্মবিশ^াস নিয়ে ক্ষমতার পথে তার দীর্ঘ অভিযাত্রা শুরু হয়। তিনি নিরলসভাবে প্রত্যন্ত গ্রাম ও শহরগুলো পরিভ্রমণ করেন এবং বহু দশক ধরে মূলধারার রাজনীতিকদের দ্বারা উপেক্ষিত জনসমাজের সাথে যোগসূত্র স্থাপন করেন।
কর্তৃপক্ষ এবারের নির্বাচনকে মেক্সিকোর ইতিহাসের বৃহত্তম নির্বাচন হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। কর্তৃপক্ষ বলেছেন, ওবরাডোরের বিজয় গত ৮৯ বছরের মধ্যে একটানা ৭৭ বছর মেক্সিকো শাসনকারী পিআরআই এবং রক্ষণশীল প্রতিদ্ব›দ্বী প্যান-এর জন্য একটি তিক্ত তিরস্কার।
জনসাধারণের কাছে নামের আদ্যাক্ষর এএম এলও, সংক্ষেপে আমলো নামে পরিচিত বামপন্থী আন্দ্রেজ ম্যানুয়েল লোপেজ ওব্রাদর গরিব কৃষকদের সাহায্য করার অঙ্গীকার করেছেন, তবে জোর দিয়ে বলেছেন যে তিনি ব্যক্তিগত সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করবেন না।
ওব্রাদর বলেছেন, তার সরকার স্বৈরাচারী হবে না। তিনি ক্ষমতা পৃথকীকরণ, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা ও কেন্দ্রীয় ব্যাংককে সরকারের নিয়ন্ত্রণমুক্ত রাখার অঙ্গীকার করেন। তিনি বলেন, তিনি দীর্ঘদিন ক্ষমতাসীন পিআরআই শীর্ষনেতাদের মত বিলাসী হবেন না। তিনি তার মাঝারি শ্রেণির বাড়িতে থাকবেন এবং সরকারী বাসভবনকে একটি কলা কেন্দ্রে পরিণত করবেন, প্রেসিডেন্টের ব্যবহৃত বিমান বিক্রি করে দেবেন ও নিজ বেতন হ্রাস করবেন। তিনি চাকুরিজীবীদের বেতন বৃদ্ধি, বয়স্ক ব্যক্তিদের জন্য পেনশন সুবিধা, তরুণদের জন্য শিক্ষা মঞ্জুরি ও কৃষকদের জন্য অতিরিক্ত ঋণ সুবিধা প্রদানেরও প্রতিশ্রæতি দিয়েছেন।
তবে সমালোচকরা বলছেন, ওবরাডোরের প্রধান নির্বাচনী প্রতিশ্রæতি দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই ধারাবাহিক দুর্নীতির জটিল বাস্তবতার প্রেক্ষিতে কার্যকর করা সহজ হবে না। এর পরিণতিতে ভোটাররা তার ব্যাপারে হতাশ হয়ে পড়তে পারে।
স্বায়ত্তশাসিত মেট্রোপলিটান বিশ^বিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞানের অধ্যাপক ও মেক্সিকোর বামপন্থী ঐতিহাসিক কার্লোস ইলাডেস বলেন, তিনি যে প্রত্যাশা তৈরি করেছেন তাকেই আমি বড় সমস্যা হিসেবে দেখছি। তিনি যা করতে সক্ষম হবেন না তা নিয়েই সমস্যা দেখা দেবে। মানুষের প্রত্যাশা অনেক। সূত্র : বিবিসি, রয়টারস ও দি নিউইয়র্ক টাইমস।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মেক্সিকো


আরও
আরও পড়ুন