Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ০৩ আগস্ট ২০২০, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ১২ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

রাশিয়া বিশ্বকাপের টুকিটাকি

| প্রকাশের সময় : ১৬ জুলাই, ২০১৮, ১০:২২ পিএম

৩২ দলের অংশগ্রহণে ২১তম বিশ্বকাপ শেষ। ক্রোয়েশিয়াকে ৪-২ গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ফ্রান্স। নিজেদের ফুটবল ইতিহাসে দ্বিতীয়বার বিশ্বকাপ শিরোপা জিতলো ১৯৯৮ সালের জয়ী ফরাসিরা। আর এই মহারণের মধ্যদিয়েই পর্দা নামলো রাশিয়া বিশ্বকাপের। মোট ৬৪ ম্যাচ শেষে চলুন দেখে নেওয়া যাক রাশিয়া বিশ্বকাপের টুকিটাকি কিছু তথ্য।
আয়োজক : রাশিয়া
অংশগ্রহনকারী দেশ : ৩২টি
চ্যাম্পিয়ন : ফ্রান্স
রানার্স আপ : ক্রোয়েশিয়া
তৃতীয় স্থান : বেলজিয়াম
চতুর্থস্থান : ইংল্যান্ড
গোল্ডেন বল : লুকা মড্রিচ (ক্রোয়েশিয়া)
সিলভার বল : এডেন হ্যাজার্ড (বেলজিয়াম)
ব্রোঞ্জ বল : আঁতোয়ান গ্রিজম্যান (ফ্রান্স)
গোল্ডেন বুট : হ্যারি কেন (ইংল্যান্ড)
সিলভার বুট : আঁতোয়ান গ্রিজম্যান (ফ্রান্স)
ব্রোঞ্জ বুট : রোমেলু লুকাকু (বেলজিয়াম)
গোল্ডেন গেøাভস : থিবো কোর্তোয়া (বেলজিয়াম)
সেরা উদীয়মান : কিলিয়ান এমবাপে (ফ্রান্স)
ফেয়ার প্লে ট্রফি : স্পেন
ম্যান অব দ্য ফাইনাল : আঁতোয়ান গ্রিজম্যান (ফ্রান্স)
যা কিছু প্রথম
ম্যাচ : রাশিয়া-সউদী আরব, ১৪ জুন (লুঝনিকি, মস্কো)
রেফারি : নেস্টর পিটানা (আর্জেন্টিনা)
কিক : সউদী আরব
কর্নার : রাশিয়া
থ্রো ইন : সউদী আরব
ফাউল :ওমার হাওশাই (সউদী আরব)
ফ্রি-কিক : আলেকজান্ডার সামেদভ (রাশিয়া)
গোল : ইউরি গ্যাজিনস্কি (রাশিয়া)
হেড থেকে গোল :ইউরি গ্যাজিনস্কি (রাশিয়া)
অ্যাসিস্ট : আলেক্সান্ডার গোলভিন (রাশিয়া)
পেনাল্টি থেকে গোল : ইউরি গ্যাজিনস্কি (রাশিয়া)
হ্যাটট্রিক : ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো (পর্তুগাল)
পেনাল্টি মিস : লিওনেল মেসি (আর্জেন্টিনা)
আত্মঘাতি গোল : আজিজ বুহাদ্দুজ (মরক্কো)
হলুদ কার্ড : আলেক্সান্ডার গোলভিন (রাশিয়া)
লাল কার্ড : কার্লোস সানচেজ (কলম্বিয়া)
ভিএআরে গোল : রাশিয়া-সউদী আরব
ভিএআরে পেনাল্টি : ফ্রান্স-অস্ট্রেলিয়া
দ্রæততম গোল : থমাস মিউনিয়ের (বেলজিয়াম, ৪মিনিট)
পঞ্চাশতম গোল : লুকা মড্রিচ (ক্রোয়েশিয়া)
শততম গোল : লিওনেল মেসি (আর্জেন্টিনা)
দ্রæততম হলুদ কার্ড : জেসুস গালারডো (মেক্সিকো)
বদলি হিসেবে নেমে গোল : আর্টেম জিউবা (রাশিয়া)
দ্রæততম পরিবর্তন : ডেনিস চেরিশেভ (রাশিয়া)
সর্বোচ্চ গোলদাতা : হ্যারি কেন (৬ গোল)
সর্বোচ্চ গোল করা দেশ : বেলজিয়াম ১৬টি
কম গোল হজমকারী দেশ : উরুগুয়ে
সর্বশেষ গোল : কিলিয়ান এমবাপে (ফ্রান্স)
সর্বোচ্চ গোলরক্ষাকারী : থিবো কোর্তোয়া (বেলজিয়াম)
ফাইনাল ম্যাচের রেফারি : নেস্তর পিটানা (আর্জেন্টিনা)

সংখ্যায় সংখ্যায়
ম্যাচ : ৬৪টি
গোল : ১৬৯টি
গোল গড় : ২.৬
হলুদ কার্ড : ২১৯টি
হলুদ কার্ডের গড় : ৩.৫
মোট পাস : ৪৯৬৫১
গড় পাস : ৭৭৫.৮
লাল কার্ড : ৪টি
লাল কার্ডের গড় : ০.০৬
একনজরে
সর্বোচ্চ হলুদ কার্ড দেখা দল : পানামা (১১টি)
সর্বোচ্চ আক্রমণকারী দল : ক্রোয়েশিয়া (৩৫২)
সর্বাধিক পাস : ইংল্যান্ড (৩৩৩৬)
সেরা রক্ষণ (সেভ): ক্রোয়েশিয়া (৩০১)
গোলমুখে সর্বোচ্চ চেষ্টা : নেইমার (ব্রাজিল, ২৭টি)
সবচেয়ে বেশি দৌঁড়েছেন : ইভান পেরিসিচ (৭২ কিমি)
সবচেয়ে বেশি পাস : সার্জিও রামোস (স্পেন, ৪৮৫টি)
কে কত পেল
ট্রফির ওজন : ৬.১ কেজি
চ্যাম্পিয়ন দলের পুরষ্কার : ৩৮ মিলিয়ন ডলার (প্রায় ৩১৮ কোটি টাকা)
রানার্স আপ দলের পুরষ্কার : ২৮ মিলিয়ন ডলার (প্রায় ২৩৪ কোটি টাকা)
তৃতীয়স্থান অর্জনকারীর পুরষ্কার : ২০১ কোটি ৬ লাখ টাকা
চতুর্থস্থ অর্জনকারীর পুরষ্কার : ১৮৪ কোটি ৩০ লাখ টাকা
পঞ্চম-অষ্টম (শেষ আট) : ১৩৪ কোটি ৪ লাখ টাকা
নবম-১৬তম (দ্বিতীয় রাউন্ড) : ১০০ কোটি ৫৩ লাখ টাকা
১৭-৩২তম (গ্রæপ পর্ব) : ৩৩ কোটি ৫১ লাখ টাকা
সবিস্তারে
মোট গোল : রাশিয়া বিশ্বকাপে ৬৪ ম্যাচে মোট গোল হয়েছে ১৬৯টি। ৬৪ ম্যাচের টুর্নামেন্টে সর্বোচ্চ ১৭১ গোল হয়েছিল গত বিশ্বকাপে (ব্রাজিল) এবং ১৯৯৮ সালের ফ্রান্স বিশ্বকাপে। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গোল দেখলো রাশিয়া বিশ্বকাপ। তৃতীয় সর্বোচ্চ ১৬১ গোল হয়েছিল ২০০২ জাপান-দ. কোরিয়া বিশ্বকাপে।
সর্বোচ্চ গোল : এই বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ ১৬ গোল করেছে বেলজিয়াম। তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে দেশে ফিরেছে তারা। ৭ ম্যাচ খেলে বেলজিয়ানদের গোল মোট ১৬টি। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৪টি (টাইব্রেকার ছাড়া) গোল করেছে চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স। আর ফাইনালিস্ট ক্রোয়েশিয়াও ৭ ম্যাচে করেছে সমান ১৪টি গোল। চতুর্থ হয়ে বাড়ি ফেরা ইংল্যান্ড ৭ ম্যাচে গোল করেছে ১২টি।
গড় গোল : গড় গোলে এগিয়ে ১৯৫৪ সালের সুইজারল্যান্ড বিশ্বকাপ। সেবার ম্যাচ প্রতি গোল হয়েছিল ৫.৪। ১৬ দল খেলেছিল মাত্র ২৬টি ম্যাচ, গোল হয়েছিল ১৪০টি। এবার রাশিয়ায় গোলের গড় ২.৬। গত ব্রাজিল বিশ্বকাপে গোলের গড় ছিল ২.৭।
হলুদ ও লাল কার্ড : রাশিয়ায় খেলোয়াড়রা দেখেছে ২১৯টি হলুদ কার্ড এবং চারজন দেখেছে লাল কার্ড। তাদের মধ্যে সরাসরি লাল কার্ড দেখেছেন কলম্বিয়া আর সুইজারল্যান্ডের খেলোয়াড়। গ্রæপপর্বে বেলজিয়াম-পানামা ম্যাচে সর্বোচ্চ ৮টি কার্ড দেখানো হয়।
সঠিক পাস : ২১তম বিশ্বকাপে ৪৯ হাজার ৬৪৭টি পাস সফল হয়েছে। এর মধ্যে ম্যাচ প্রতি সঠিক পাসের সংখ্যা ৭৭৫.৭। এর মধ্যে সর্বোচ্চ ৩ হাজার ৩৩৬টি সঠিক পাস দিয়েছে ইংল্যান্ড। গ্রুপপর্বে স্পেন-রাশিয়া ম্যাচ দেখেছে সর্বোচ্চ পাসের রেকর্ড। সে ম্যাচে স্প্যানিশরাই সর্বোচ্চ ১ হাজার ২৩৫টি পাস সম্পন্ন করেছে। স্প্যানিশ তারকা সার্জিও রামোস একাই ৪৮৫টি পাস সম্পন্ন করেছিলেন।
সর্বাধিক গোলের ম্যাচ : রাশিয়া বিশ্বকাপের ৬৪টি ম্যাচের মধ্যে সর্বোচ্চ গোল হয়েছে বেলজিয়াম-তিউনিসিয়া ম্যাচে। গ্রæপপর্বের সেই ম্যাচে মোট গোল হয়েছিল ৭টি। বেলজিয়াম জিতেছিল ৫-২ ব্যবধানে।
সর্বাধিক সেভ : বেলজিয়ামের গোলরক্ষক থিবো কোর্তোয়া সর্বোচ্চ ২৭ বার বল সেভ করেছেন। এজন্য জিতেছেন এবারের গোল্ডেন গøাভস পুরস্কার।
এককথায়
বিশ্বকাপ ফাইনালে আত্মঘাতী গোল করা প্রথম ফুটবলার ক্রোয়েশিয়ার মারিও মানজুকিচ।
কোচ ও অধিনায়কের ভূমিকায় বিশ্বকাপ জেতা মাত্র তৃতীয় ব্যক্তি হলেন দিদিয়ের দেশম।
তৃতীয় সর্বকনিষ্ঠ হিসেবে বিশ্বকাপ জিতলেন এমবাপে।
বিশ্বকাপের সবচেয়ে বয়স্ক খেলোয়াড় এসাম এল-হাদারি। মিসর, ৪৫ বছর ১৬১ দিনে বিশ্বকাপে নামেন।
বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি বয়সে হ্যাটট্রিক করেছেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো, ৩৩ বছর বয়সে।
ষষ্ঠ দল হিসেবে একাধিকবার বিশ্বকাপ জেতার রেকর্ড গড়ল ফ্রান্স। সর্বোচ্চ ব্রাজিল (৫ বার)।
বিশ্বকাপ ফাইনালে গোল করে কিলিয়ান এমবাপে (১৯ বছর ২০৭ দিন) পেলের পর দ্বিতীয় খেলোয়াড় হলেন, যিনি ২০ বছরের কম বয়সে ফাইনালে গোল করলেন। পেলে করেছিলেন ১৯৫৮ বিশ্বকাপে (১৭ বছর ২৪৯ দিন বয়সে)।
জেনে রাখুন
পরবর্তী বিশ্বকাপের আয়োজক দেশ : কাতার
২০২২ আসর হবে : ২১ নভেম্বর থেকে ১৮ ডিসেম্বর
৪৮ দলের বিশ্বকাপ হবে : ২০২৬ সালে কানাডা, মেক্সিকো এবং যুক্তরাষ্ট্রে



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বিশ্বকাপ

৩ জুলাই, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ