Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২০ আগস্ট ২০১৮, ০৫ ভাদ্র ১৪২৫, ০৮ যিলহজ ১৪৩৯ হিজরী‌

রাজসিক সংবর্ধনা পেল বেলজিয়াম

স্পোর্টস ডেস্ক : | প্রকাশের সময় : ১৬ জুলাই, ২০১৮, ১০:৩২ পিএম

 বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলতে না পারলেও রাজকীয় সংবর্ধনা পেল বেলজিয়াম জাতীয় ফুটবল দল। এর আগে শনিবার তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে ইংল্যান্ডকে ২-০ গোলে হারিয়ে তৃতীয় স্থাল লাভ করে বেলজিয়াম। প্রতিবেশী রাষ্ট্র ফ্রান্সের কাছে হেরে বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলার স্বপ্ন ভঙ্গ হয় বেলজিয়ামের। এবারের বিশ্বকাপে ফাইনালে খেলতে না পেরে হতাশ হলেও, এই আসর থেকে গর্ব করার মত অনেক অর্জন নিয়ে এসেছে দলটি। দুই ম্যাচে ইংল্যান্ডকে হারানো, দুই গোলে পিছিয়ে পড়ার পরও জাপানকে হারিয়ে এগিয়ে যাওয়া এবং ৫ বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলকে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় করার ঘটনায় দলটি স্মরণীয় হয়ে থাকবে সমর্থকদের কাছে। দলীয় কোচ রবার্তো মার্টিনেজ বলেন, ‘আমরা শিরোপা নিয়েই দেশে ফিরতে চেয়েছিলাম। যখন ব্রাজিলকে হারিয়ে সেমি-ফাইনালে পৌঁছলাম, তখন সম্প‚র্ণ মনোযোগ ছিল ফাইনালের দিকে। কিন্তু বাস্তবতা ভিন্ন। এই খেলোয়াড়রাই বেলজিয়ামকে ইতিহাস ফিরিয়ে দিয়েছে। এরা অবশ্যই প্রশংসার দাবীদার। দেশবাসীর কাছ থেকে সেটি তারা পেয়েছে।’ দেশে ফেরার পর ব্রাসেলসে রাজ পরিবার সংবর্ধনা দেয় রাশিয়া ফেরত বেলজিয়াম দলকে। এ সময় ব্রাসেলসের রয়্যাল ক্যাসলের সামনে হাজার হাজার সমর্থক উপস্থিত হয়ে তাদের অভ্যর্থনা জানায়। মার্টিনেজ ও অধিনায়ক এডেন হ্যাজর্ডাকে সর্ব প্রথম অভ্যর্থনা জানান রাজা ফিলিপ ও রাণী ম্যাথিলদে।
উদযাপনে করুণ মৃত্যু
স্পোর্টস ডেস্ক : পর্দা নেমেছে ফিফা বিশ্বকাপের ২১তম আসরের। রাশিয়া বিশ্বকাপের মহারণে ক্রোয়েশিয়াকে ৪-২ গোলে হারিয়ে ১৯৯৮ সালের পর দ্বিতীয় বারের মত শিরোপা জিতলো ফরাসিরা। এমন জয়ে উল্লাস না করে থাকা যায় না। তবে অতিরিক্ত উল্লাসই কাল হলো দুই ফরাসি সমর্থকের। জয়োৎসব করতে গিয়ে মারা যান ফ্রান্সের দুই সমর্থক। ফ্রান্স চ্যাম্পিয়ন হবার পর সবাই জয় উদযাপন করতে থাকে। তখন পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ বাঁধে সমর্থকদের। এতে মারা যান ৫০ বছর বয়সী এক ফরাসি সমর্থক। অন্যদিকে সেন্ট-ফেলিক্সে দ্বিতীয় ব্যক্তির মৃত্যু হয় গাছের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে। জয় উদযাপনের পর মদপান করে গাড়ি চালানোর সময় তার গাড়িটি গাছের সঙ্গে ধাক্কা খায়। তারপরেই মারা যান ওই ফরাসি সমর্থক।
দালিচের কাঠগড়ায় সেই পেনাল্টি
স্পোর্টস ডেস্ক : বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচে ফ্রান্সের কাছে ৪-২ ব্যবধানে উড়ে গিয়েছে ক্রোয়েশিয়া। ম্যাচের প্রায় পুরোটা সময় আধিপত্য বিস্তার করেছে ক্রোয়েশিয়া। কিন্তু ম্যাচের ৯০ মিনিট শেষে গোল বেশি ফ্রান্সের। ক্রোয়েশিয়ার জালে ফরাসিদের ৪ বার বল ঢুকলেও, এর মধ্যে দুইটিই ছিল বিতর্কিত। এই দুই গোলের দায় সরাসরি রেফারির ঘাড়েই দিচ্ছেন ক্রোয়েশিয়ার কোচ জ্বলাতকো দালিচ। ম্যাচের ১৮তম মিনিটে গ্রিজম্যানের ফ্রিকিক থেকে বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে নিজেদের জালেই বল ঢুকিয়ে দেন মারিও মানজুকিচ। ভিডিও রিপ্লেতে দেখা যায় ফ্রিকিক দেয়া হয়েছিল যে ফাউলের কারণে সেটি আদতে ফাউল ছিলই না। গ্রিজম্যান নাটক করে ফাউল আদায় করে নিয়েছিলেন। পরে ম্যাচের ৩৫তম মিনিটে ডি বক্সের ভেতরে ক্রোয়েশিয়ার স্ট্রাইকার ইভান পেরেসিচের হাতে বল লাগলে ভিএআরের মাধ্যমে পেনাল্টি পায় ফ্রান্স। সেই পেনাল্টি থেকে গোল করে এগিয়ে যায় ফরাসিরা। ক্রোয়েশিয়ার কোচ সরাসরি প্রশ্ন তুলেছেন এই দুই গোল সম্পর্কে। ম্যাচের পরে সংবাদ মাধ্যমে দালিচ বলেন, ‘প্রথমেই আমি ফ্রান্সকে অভিনন্দন জানাতে চাই। আমরা ভালো খেলেছি। প্রথম ২০ মিনিটে ম‚লত শুধু আমরাই ছিলাম মাঠে। এরপর প্রথমে আত্মঘাতী গোল খেলাম, তবু ম্যাচে ফিরলাম। তখনই আবার রেফারি পেনাল্টি দিয়ে দিল।’ দালিচ আরও বলেন, ‘আমি কখনোই রেফারিং নিয়ে কিছু বলিনি। এটা আমার সাথে যায় না। তবে একটা বাক্যই বলবো, বিশ্বকাপ ফাইনালের মতো ম্যাচে আপনি এমন কোন পেনাল্টি দিতে পারেন না। এটা খুবই দৃষ্টিকটু ছিল।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ